1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:০৬ অপরাহ্ন

নকলায় জনবলের অভাবে চিকিৎসাসেবা ব্যাহত, নষ্টের পথে অপারেশন থিয়েটারের যন্ত্রপাতি

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১

শফিউল আলম লাভলু, স্টাফ রিপোর্টার: প্রয়োজনীয় জনবল না থাকায় ব্যাহত হচ্ছে শেরপুরের নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা সেবা। ২০১০ সালে ৩১ শয্যার হাসপাতালটি থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হলেও জনবল রয়ে গেছে আগের মতোই। এমতাবস্থায় হাসপাতাল চালাতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষকে।

সূত্রমতে, হাসপাতালটিতে রয়েছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অপারেশন থিয়েটার। সার্জারী চিকিৎসক ও অ্যানেসথেসিওলজিস্ট থাকলে সিজারিয়ান অপারেশন ছাড়াও অন্যান্য সাধারণ অপারেশন করা যেতো এখানে। কিন্তু একজন সার্জারী চিকিৎসক ও এ্যানেস্থেসিস্ট এর অভাবে চালু হচ্ছে না অপারেশন থিয়াটার। ফলে অযতেœ নষ্ট হতে চলেছে অপারেশন থিয়েটারের যন্ত্রপাতি।

সূত্র আরও জানায়, এ উপজেলায় দুই লাখের বেশি মানুষের বসবাস। বিশাল জনগোষ্ঠীর জন্য ৩১ শয্যার মুঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যাই ১৭১টি। শুন্য রয়েছে ১৯টি পদ। তার মধ্যে আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ও ৪ জন জুনিয়র কনসালটেন্ট এর মধ্যে একজনও নেই। ফার্মাসিস্ট ৩ জনের মধ্যে রয়েছে ২ জন। স্বাস্থ্য সহকারী ৪০ জনের মধ্যে রয়েছে ৩৫জন। ৫০ শয্যা হাসপাতালের জন্য ১ম শ্রেণির জনবলে ৬ জন জুনিয়র কনসালটেন্ট ও নবসৃষ্ট আইএমও, ইএমও, এ্যানেস্থেসিস্ট, এমও এবং সহকারী সার্জনের মধ্যে একজনও নেই। ৩য় শ্রেণির প্রধান সহকারী, নবসৃষ্ট হিসাব রক্ষক, এমটি (ল্যাব), এমটি (ফিজিও), কার্ডিওগ্রাফী, কম্পাউন্ডার ও কুষ্ঠ নিয়ন্ত্রণ সহকারীসহ ৪র্থ শ্রেণির ৭টি পদের মধ্যে সবই শুন্য রয়েছে। জরুরী বিভাগে একজন মেডিক্যাল অফিসার (কলে), একজন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার ও একজন ওয়ার্ড বয়। এ জনবলেই চলে ইমার্জেন্সি বিভাগ। মাঝে-মধ্যে খাবারও নিম্নমানের হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ৫০ শয্যা হাসপাতাল অনুযায়ী মেডিক্যাল টেকনোলোজিস্ট এর ৩টি পদের অনুকূলে রয়েছেন ২ জন। এরমধ্যে মুঞ্জুরুল ইসলাম ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেপুটেশনে চলে গেছেন। ফলে একজনকেই পালন করতে হচ্ছে হাসপাতালে আসা সকল রোগীর প্যাথলজি পরীক্ষা। করোনা মহামারীর জন্য আরও হিমশিম খেতে হচ্ছে তাকে।

এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে প্রয়োজনীয় সেবা না থাকায় বাধ্য হয়ে সেবা নিতে আসা রোগী ও স্বজনদের যেতে হচ্ছে জেলা না হয় বিভাগীয় শহরে। অথচ একজন এনেসথেসিয়া ও সার্জারী চিকিৎসক থাকলে সিজারিয়ান অপারেশন করা সম্ভব হতো এ হাসপাতালেই।

কর্মরত চিকিৎসকরা জানান, জনবল সংকটের কারণে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাসেবা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এসব কারণে সদিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আমরা চিকিৎসাসেবা দিতে পারছি না। পরিস্থিতি এমন যে, হাত-পা বেঁধে আমাদের সাঁতার কাটতে হচ্ছে।

মেডিক্যাল টেকনোলোজিস্ট আবু কাউছার বিদ্যুৎ জানান, তিনজনের কাজ একা করতে হচ্ছে। করোনায় বেড়েছে দায়িত্ব, বেড়েছে কাজ। কাজ করতে করতে মানুষ থেকে যন্ত্রে পরিণত হওয়ার পথে। তিনি বলেন, এখন যেখানে প্রতিদিন গড়ে ৫০ জনকে প্যাথলজি টেস্টের সেবা দিতে পারি, সেক্ষেত্রে জনবল থাকলে ১৫০ জনকে ওই সেবা দিতে পেতাম।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা বলেন, নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবার সার্বিক অবকাঠামো ও যন্ত্রপাতি আছে। কিন্তু জনবলের অভাবে রোগীরা পুরোপুরি সেবা পাচ্ছেন না। তবে আমরা সাধ্যমতো সর্বাত্মক সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি। সেবাকে বৃদ্ধির জন্য হাসপাতালে লাগানো হয়েছে সাউন্ড সিস্টেম ও নিরাপত্তার জন্য বসানো হয়েছে সিসি ক্যামেরা। জনবল ও অপারেশন থিয়াটার চালুর বিষয়ে আমি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত ও মৌখিকভাবে জানিয়েছি। তারা আশ্বস্ত করছেন সমস্যাটি নিরসন করবেন বলে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!