1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০৭ অপরাহ্ন

যোগাযোগের ভরসা বাঁশের সাঁকো, কেউ সমন্ধ করতে চান না এ তিন গ্রামে

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

মোহাম্মদ দুদু মল্লিক, ঝিনাইগাতী (শেরপুর) : শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে বাঁশের সাঁকোই তিন গ্রামের জনসাধারণের চলাচলের একমাত্র ভরসা। গ্রাম ৩টি হচ্ছে- ধানশাইল ইউনিয়নের চাপাঝুড়া, উত্তর দাড়িয়ারপাড় ও ধানশাইল পূর্বপাড়া।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে রাস্তা-ঘাটের উন্নয়ন হলেও স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে আজও এই তিন গ্রামে রাস্ত- ঘাটের কোন উন্নয়ন হয়নি। হয়নি কোন ব্রীজ-কালভার্ট। গ্রামবাসীর উদ্যোগে একাধিক বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে কোনমতে যাতায়াতের ব্যবস্থা করা হয়েছে। শুস্ক মৌসুমে যাতায়াত করা সম্ভব হলেও বর্ষা মৌসুমে কঠিন হয়ে পড়ে এসব বাঁশের সাঁকোয় যাতায়াত।

জানা গেছে, অনেক তয়-তদ্বির আর গ্রামবাসীর অনুরোধে ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম গত ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে এলজিএসপি প্রকল্পের অর্থায়নে একটি বক্স কালভার্ট নির্মাণ করে দিলেও বছর না ঘুরতেই কালভার্টটি ভেঙ্গে হেলে পড়ে। ফলে এ কালভার্টটিও এখন পুরোপুরি চলাচল উপযোগী নেই। গ্রাম তিনটিতে কোন লোক অসুস্থ হয়ে পড়লে বা অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে সরাসরি কোন যানবাহন প্রবেশের সুযোগ নেই।

স্থানীয়রা জানান, অদৃশ্য কারণে কোন জনপ্রতিনিধিই এ এলাকার উন্নয়নে এগিয়ে আসেন না। তবে ভোটের সময় নানান প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট নেন। ভোটের সময় গড়িয়ে গেলে আর কোন খোঁজ নেন না তারা।

ধানশাইল গ্রামের জামাল ফকির, চাপাঝুড়া গ্রামের আব্দুল্লাহ, উত্তর দাড়িয়ারপাড় গ্রামের জাকির হোসেন, শিক্ষক আল হারুনসহ অনেকে জানান, দেশ যখন উন্নয়নের মহাসড়কে অবস্থান করছে, তখন আমাদের এলাকার রাস্তা-ঘাটের অভাবে জীবন-যাত্রার মান অনেক পিছিয়ে। শুধুমাত্র রাস্তা-ঘাটের অভাবে আমাদের এলাকায় ভাল কোন পরিবার বিয়ে দিতে বা করাতে উৎসাহ দেখান না।

তারা জানান, এই তিন গ্রামের মাঝে দুটি ব্রীজ নির্মাণ করা হলে রাতারাতি পাল্টে যাবে গ্রামগুলোর দৃশ্যপট। তাই এলাকাবাসী দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে ওই তিন গ্রামের জনসাধারণের দুর্ভোগ লাগবে অনুরোধ জানিয়েছেন।

ধানশাইল ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম জানান, জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ প্রকৌশলী একেএম ফজলুল হক মহোদয়ের মাধ্যমে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে ওইসব এলাকার জন্য ব্রীজের চাহিদা দেওয়া আছে। অনুমোদন পেলে ব্রীজ তৈরী সম্ভব হবে।

উপজেলা প্রকৌশলী মোজাম্মেল হক জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। সরেজমিনে পরিদর্শন করে কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!