1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

মহিপুরে ২৫ কিলোমিটার রাস্তা চলাচলের অনুপযোগী, দুর্ভোগে ২০ গ্রামের মানুষ

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১ নভেম্বর, ২০২১

রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : মহিপুর সদর ইউনিয়নের মহিপুর বাজার হতে ভায়া কাটাভারানী বেড়িবাঁধ সড়ক দিয়ে ও ডাবলুগঞ্জ ইউনিয়নের মনসাতলী এবং পার্শ্ববর্তী ধুলাসার ইউনিয়নে তারিকাটা-অনন্তপাড়া ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ২৫ কিলোমিটার সড়ক চলাচলের সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

কলাপাড়ার সবচেয়ে দূর্গম এলাকা একবিংশ শতাব্দীর এ যুগেও মাত্র একটি কাঁচা রাস্তা হাজার হাজার মানুষ প্রতিবছর বর্ষাকাল এলে দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে। গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে বেহাল দশায় থাকায় প্রায় ২০ গ্রামের মানুষের দৈনন্দিন চলাচলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কাঁচা রাস্তাগুলো গ্রামবাসীর জন্য এখন গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমন দূরাবস্থার জন্য অতিরিক্ত কাঁদা আর পানির কারনে কোন যানবাহন তো দূরের কথা জুতা পায়ে হাঁটাও অসম্ভব। মনে হয় যেন রাস্তা নয় চাষের জন্য প্রস্তুত কোন জমি। বিকল্প কোন ব্যবস্থা না থাকায় হাঁটু সমান কাঁদা মাড়িয়ে চলাচল করতে হয় এইসব গ্রামের হাজারো মানুষের। হাতে জুতা পানি-কাঁদা মাখা শরীরে চলে শিক্ষার্থীসহ হাজার হাজার লোকজন।

বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ এ সড়কের অধিকাংশ জায়গায় মাটি ক্ষয়ের ফলে বাঁধ হয়ে পড়েছে অপ্রশস্থ। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানান, বেড়িবাঁধের স্লোপে বসবাসকারী মানুষ তাদের প্রয়োজনে বেড়িবাঁধ থেকে মাটি কেটে নেয়ার ফলে এ দশায় পরিণত হয়েছে।

এছাড়াও বেড়িবাঁধ নির্মাণের পর থেকে কোন সংস্কার কাজ না হওয়ায় চলাচলের উপযোগীতা হারানোসহ ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে এ বেড়িবাঁধ কাম সড়ক। রাস্তার কারনে ঝিমিয়ে পড়েছে এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক চাকা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, স্বাধীনতার ৫০ বছর মুজিব বর্ষ পালিত হলেও শুধু মহিপুর সদর ইউনিয়নের মহিপুর বাজার হতে ভায়া কাটাভারানী বেড়িবাঁধ সড়ক দিয়ে ও ডাবলুগঞ্জ ইউনিয়নের মনসাতলী এবং পার্শ্ববর্তী ধুলাসার ইউনিয়নে তারিকাটা-অনন্তপাড়া ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ২৫ কিলোমিটার গ্রামে উন্নয়নের কোন ছোঁয়া লাগেনি। শুধু এই গ্রামগুলো অবহেলিত। এ গ্রামে হাজার হাজার লোকের বাস। রাস্তা পাশে রয়েছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দাখিল মাদরাসা, হাফিজী মাদরাসা ছাড়াও কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী। বর্ষা মৌসুমে গ্রাম থেকে বের হতে হলে জমির আইলের ওপর দিয়ে হাঁটা পথ। কারও মৃত্যু হলে খাটিয়ায় করে লাশ কবরস্থানে নেয়ার উপায় থাকে না।

এছাড়া শিক্ষার্থীরাও ঠিকমতো স্কুল-কলেজ যেতে পারে না। বছরের পর বছর ধরে এ গ্রামের মানুষ এ ভোগান্তি নিয়ে অবহেলিত জনপদে বসবাস করছে। দীর্ঘ দিনের এ ভোগান্তি নিরসনে এলাকাবাসী দাবী জানিয়ে সমস্যার সমাধানে উদাসীন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘ দিন ধরে এলাকাবাসী একটি রাস্তার জন্য বিভিন্ন মহলের কাছে আবেদন করলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

স্থানীয় অধিবাসীরা এ প্রতিবেদককে বলেন, মহিপুর বাজার হতে কাটাভারানি বেড়িবাঁধ সড়ক দিয়ে মহিপুর, বিপিনপুর, সেরাজপুর, লতিফপুর, নিজশিব বাড়িয়া, ডাবলুগঞ্জ ইউনিয়নের রসুলপুর, মেহেরপুর, কাটাভারানি, কাজিকান্দা, সুরডগি, বরকুতিয়া, খাপড়াভাঙ্গা, মনসাতলী, পার্শ্ববর্তী ধুলাসার ইউনিয়নে তারিকাটা, নয়াকাটা, নয়াকাটা দিওর, বেীলতলী, বেীলতলীপাড়া, মুসলিমপাড়া, বেতকাটা, বেতকাটাপাড়া, খোচাউপাড়া. সোনাপাড়া, পক্ষিয়াপাড়া ও অনন্তপাড়াসহ গ্রামের মানুষ মহিপুর থানা সদরে যাতায়াত করে থাকে। সড়কটির বিভিন্ন অংশে মাটি ক্ষয়ে সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য খানা-খন্দের। এ সড়কের মহিপুর বাজার হতে প্রায় ২ কিলোমিটার ইট সলিং রাস্তা ছিল। বর্তমানে তার চিহ্ন পর্যন্ত নেই। এ রাস্তা দিয়ে ওই তিন ইউনিয়নের মানুষ নবগঠিত মহিপুর থানার সাথে যে কোনো মামলা ও কৃষি ব্যাংকের লোন এবং সাপ্তাহিক বাজার করার জন্য মহিপুরের সাথে যোগাযোগ করতে হয়। এছাড়া পুলিশ প্রশাসন যোগাযোগ খারাফের কারনে যে কোনো মামলার আসামি ও গ্রামে চুরি ছিনতাই হলে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারে না। বর্ষাকালে সামান্য বৃষ্টিতে কাঁদামাটিতে একাকার হয়ে সম্পূর্ণ চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। তিনটি ইউনিয়নের ২০টি গ্রামের ছ্ত্রা ছাত্রীদের পড়াশুনার জন্য ওই রাস্তা দিয়ে মহিপুর কো-অপারেটিভ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মহিপুর মুক্তিযোদ্ধা ডিগ্রি কলেজ, বিপিনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মনসাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তারিকাটা দাখিল মাদরাসা, ধুলাসার আলহাজ্ব জালাল উদ্দিন ডিগ্রি কলেজ, বৌলতলী সৈয়দপুর (নয়াকাটা) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নয়াকাটা এবতেদায়ী মাদরাসা, অনন্তপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চরচাপলী ইসলামীয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় যেতে হয় একই রাস্তা দিয়ে। উপজেলার এ তিনটি ইউনিয়ন একেবারেই অবহেলিত। এ এলাকায় কোনো মাইক্রো বাস, ট্রাক, নছিমন-করিমন, আটো রিকশা, আটোভ্যান, পায়ে চালিত ভ্যান চলাচল করতে পারে না। কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত ধান রাস্তা পাকা না হওয়ার ধান ব্যবসায়ীরা ধান ত্রুয় করতে আসেন না। ফলে তাদের ধান কম দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। ফলে তারা ফসলের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হন তারা। এ এলাকার সন্তান সম্ভাবা মা, মুমূর্ষু রোগীদের হাসপাতালে নিতে পার হতে হয় চড়াই-উৎড়াই। কখনো রাস্তার মধ্যেই বেগ হয়ে সন্তান হয় ও মারা যায় রোগী। সপ্তাহের একদিন বৃহসপতিবার একটি প্রাচীন বড়হাট এ হাট বসে মহীপুরে। দূর-দূরন্ত থেকে কৃষিপণ্য ও মালামাল মাথায় করে এলাকাবাসীকে মহিপুর হাটে যেতে হয়ও বিক্রি করতে হয়।

মহিপুরের তারিকাটা ও নয়াকাটা গ্রামের সুজন, হোছেন, সোলেমান এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘কতো মেম্বার-চেয়ারম্যান আইলো আর গ্যালো কিন্ত মোগো রাস্তার কোনো কাজ অয় না। ভোড আইলে ভোড দিই, কিন্তু মোগো ভাগ্যের পরিবর্তন অয় না। দশ টাহার চালও চাই না, চাই না কাপড়; চাই শুধু পাকা রাস্তা। ভোড নেওয়ার কালে কয় রাস্তা পাকা কইর‌্যা দিমু। কিন্তু ভোড গ্যালে একখান ইটও ও পড়ে না। নির্বাচনের পর পাঁচ বছরে হ্যারা মোগো এলাকায় ডোহে না। বছরের পর বছর মোরা বর্ষা মৌসুমে রাস্তাগুলো পানি-কাঁদায় একাকার হয়ে যায়।’

নয়াকাটা গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য মো: নোয়াব আলী হাওলাদার এ প্রতিবেদককে জানায়, এলাকার রাস্তাঘাট পাকা ও খাপড়াভাঙ্গা নদীতে ব্রিজ নির্মাণ না হওয়ায় আধুনিকতার ছোঁয়া লাগেনি এ এলাকায়। সড়ক এবং সেতু নির্মিত না হওয়ায় এ এলাকাগুলো অনেক পিছিয়ে রয়েছে।

ধুলাস্বার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল আকন, মহিপুর সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফজলু গাজী, ডাবলুগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ দেলোওয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ২৫ কিলোমিটার দূর্ভোগের এ রাস্তাটি এ এলাকার জনগণের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও জনস্বার্থে রাস্তাটি অতিদ্রুত পাকা করা উচিত।

কলাপাড়া উপজেলা স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশলী অধিদপ্তর (এলজিইডি) মহর আলী জানান, ২৫ কিলোমিটার রাস্তা যখন জনগণের জন্য খুবই প্রয়োজন তাহলে পরবর্তীতে রাস্তা পাকার জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে এবং যত দ্রুত সম্ভব প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!