1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:১১ পূর্বাহ্ন

কলাপাড়ায় ভবন সংকটে বেতকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২১

রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : কলাপাড়ায় ধুলাস্বার ইউনিয়নে নিভৃত এক অজপাড়াগাঁয়ের মনোরম পরিবেশে বেতকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জরাজীর্ণ ও ঝুকিপুর্ণ শ্রেণিকক্ষে চলছে কোমলমতি শিশুদের পাঠদান।

বর্তমানে এ বিদ্যালয় ১১১ জন শিক্ষার্থী নিয়মিত অধ্যায়ন করছে। শিশু শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ছয়টি ক্লাসের পাঠদান চালাতে গিয়ে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে কক্ষের অভাবে হিমশিম খাচ্ছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়টি দীর্ঘ ২২ বছর ধরে এলাকায় শিক্ষার মনোন্ন্য়নে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়টি ১৯৯১ সালে ৩৩ শতাংশ জমির উপর প্রতিষ্ঠিত করা হয়। এরপর ২০১৩ সালে এটি জাতীয়করণ করা হয়। বর্তমানে এতে ১১১ জন শিক্ষার্থী ও ৪ জন শিক্ষক রয়েছে। এ অঞ্চলের মানুষের মাঝে প্রায় ২২ বছর ধরে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে আসছে এই আদর্শ বিদ্যাপিঠটি।

কিন্তু অনেক বছর পার হলেও এখনো এই বিদ্যাপিঠে কোনপ্রকার আধুনিকতার ছোঁয়া লাগেনি। সুন্দর ও মনোরম পরিবেশে শিক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে ভবন সঙ্কট। শ্রেণিকক্ষ সঙ্কট, বেঞ্চের সঙ্কট, জরুরি কাগজপত্র রাখার জন্য নেই পর্যাপ্ত-পরিমাণ আসবাবপত্রসহ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জড়িত বিদ্যালয়টি। আশানুরূপ ছাত্রছাত্রী থাকলেও প্রয়োজনীয় অবকাঠামো ও শ্রেণিকক্ষের সঙ্কট, অন্তহীন সমস্যায় পাঠদান ব্যবস্থা দিন দিন মুখ থুবড়ে পড়ছে। শ্রেণিকক্ষ সঙ্কটের কারণে বাধ্য হয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জরাজীর্ণ ছোট একটি টিনসেড ঘরে ক্লাস করানো হচ্ছে।

বৌলতলীপাড়া, বেতকাটাপাড়া, মুসলিমপাড়া, বেতকাটাচর, ষ্ঠ’র্ব ডালবুগজ্ঞ গ্রামের শিক্ষার্থীরাও পড়াশুনা করে এ বিদ্যালয়। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি রাখাইন নামানুসারে বেতকাটা পাড়া রয়েছে বিদ্যালয়ের নাম। দুটি পাড়ার মাঝ খানে রয়েছে এ বিদ্যালয়টি। বৌলতলীপাড়া ১৭টি ও বেতকাটাপাড়া ২৪টি রাখাইন পরিবারের ছেলে মেয়েরা ওই বিদ্যালয় পড়াশুনা করে। বাংলা বর্ণমালায় আলো ছড়ালেও নিজ মাতৃভাষায় (রাখাইনরা) এখনও অন্ধকারেই রয়ে গেছে তাদের নিজস্ব ভাষা।

বেতকাটাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্র বেল্লাল হোসেন জানায়, টিনশেড ঘরে আমাদের ক্লাশ করতে খুবই কষ্ট হয়। গরমে দিনে ক্লাসে বসা থাকা যায় না।

বেতকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন এ প্রতিবেদককে বলেন, বিদ্যালয় ভবন নেই তা সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বারবার জানানোর পরও বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কোনো অগ্রগতি নেই।

কলাপাড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল বাশার জানান, উপজেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় জরাজীর্ণ অবস্থায় ১৭টি রয়েছে। ওইসব বিদ্যালয় সমস্যা চিহ্নিত করে এরই মধ্যে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!