1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:১৭ পূর্বাহ্ন

কলাপাড়া ৫০ শয্যার হাসপাতালে ভয়াবহ জনবল ও বেড সংকট

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২

রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : কলাপাড়া হাসপাতালে ৫০ শয্যার হাসপাতালে বাস্তবে ৩০ শয্যার সেবাও নেই। সবসময়ই বেড সংকটে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে রোগীদের মেঝেতে। নেই প্রয়োজনীয় জনবল। ফলে ভোগান্তির শেষ নেই চিকিৎসাসেবা নিতে আসা রোগী ও স্বজনদের।

জানা গেছে, তিন লক্ষাধিক মানুষের চিকিৎসাসেবার একমাত্র ভরসাস্থল কলাপাড়া এ হাসপাতালটি। আবহাওয়া পরিবর্তনের সাথে সাথে নারী-শিশুসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষের সর্দি-কার্শি, শ্বাসকষ্ট-জ্বর, ডায়রিয়ার প্রকোপ, ঘনঘন বমি, পাতলা পায়খানা, মারামারি ও সড়ক দুর্ঘটনাসহ বিভিন্ন সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন অসুস্থ রোগীরা এখানে ভর্তি হন। কিন্তু বেড সংকটের কারনে রোগীদের চিকিৎসা নিতে হচ্ছে মেঝেতে। ৫০ বেডের স্থানে শতাধিক রোগীর চাপে হাসপাতালের ওয়ার্ডে জায়গা না হওয়ায় মেঝেতেই চিকিৎসা নিচ্ছেন রোগীরা। অনেকে বেড ও মেঝেতে জায়গায় না পেয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি চলে যাচ্ছেন। প্রয়োজনীয় ওষুধ ও খাবার সরবরাহ পাচ্ছেন না অনেক রোগী। এ ধরণের নড়বড়ে অব্যবস্থাপনার কারণে কাঙ্খিত চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন রোগীরা।

তথ্যমতে, হাসপাতালের বহি:বিভাগে প্রতিদিন গড়ে ২শ থেকে ২৫০ রোগী চিকিৎসাসেবা নিতে আসেন। হাসপাতালের অভ্যন্তরে ৫০ শয্যার বিপরীতে প্রতিদিন রোগী ভর্তি হয় অনেকগুণ বেশি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রয়োজনীয় জনবলের অভাবে হাসপাতালে সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসক ও নার্সদের। হাসপাতালে গুরুত্বপুর্ণ শুন্য পদগুলো হলো- জুনিয়র কনসালটেন্ট (সার্জারী), জুনিয়র কনসালটেন্ট (মেডিসিন), জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনি এন্ড অবস), জুনিয়র কনসালটেন্ট (চক্ষু), জুনিয়র কনসালটেন্ট (নাক, কান, গলা), জুনিয়র কনসালটেন্ট (কার্ডিওলজি), জুনিয়র কনসালটেন্ট (অর্থোপ্যাডিক), জুনিয়র কনসালটেন্ট (শিশু), জুনিয়র কনসালটেন্ট (এ্যানেসথেসিয়া), জুনিয়র কনসালটেন্ট (চর্ম ও যৌন), পরিসংখ্যানবিদ, স্টোর কিপার, প্যাথলজিস্ট, ডেন্টাল সার্জন, মেডিকেল অফিসার (ইউনানী, আয়ুর্ব্বেদী ও হোমিও), উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল কর্মকর্তা একজন, মেডিকেল টেকনোলজি (ফার্মাসিউটিক্যাল) একজন, মেডিকেল টেকনেশিয়ান (ল্যাব) দুইজন, মেডিকেল টেকনোলজি (ফিজিও) একজন, অফিস সহকারী কাম মুদ্রাক্ষরিক দুইজন, টিকিট ক্লার্ক একজন, জুনিয়র মেকানিক একজন, ওটি বয় একজন, আয়া একজন, নিরাপত্তা প্রহরী একজন, কুক দুইজন, সুইপার তিনজন, যক্ষা-কুষ্ঠ নিয়ন্ত্রণ সহকারী একজন, স্বাস্থ্য পরিদর্শক দুইজন, স্বাস্থ্য সহকারী ১৬ জন, সিএইচসিপি তিনজন ও এমএলএসএস তিনজন।

হাসপাতালের পরিসংখ্যান ও অনুযায়ী, ১২টি ইউনিয়ন ও দু’টি পৌরসভায় প্রায় তিন লক্ষাধিক মানুষ এবং পাশের তালতলী-রাঙ্গাবালী উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দিতে ২০১২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারী ৩১ শয্যার এ হাসপাতালকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। প্রতিদিন গড়ে আউট ডোর-ইনডোর ও জরুরী বিভাগ থেকে ২০০-২৫০ জন রোগী চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করে থাকে। হাসপাতালে ৫০টি বেড থাকলেও ১৯টি পুরুষের, ২১টি মহিলা (্এর মধ্যে ৭টিই ও সি) ও ১০টি শিশুর জন্য।

মেঝেতে চিকিৎসা নেওয়া দিলারা বেগম জানান, নিজের শরীরে অনেক দিন ধরে জ্বর। জ্বরের জন্য ডাক্তার দেখালাম। ডাক্তার বলছে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিন। বেড না পাওয়ায় মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছি। দুর্গন্ধ ও মশাও বেশি। ওষুধ কিনতে হয় বাইরে থেকে। একই সমস্যার কথা বলেন হাসপাতালে ভর্তিকৃত বেড ও মেঝেতে চিকিৎসা নেয়া অনেক রোগী।

কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা চিন্ময় হাওলাদার জানান, হাসপাতালে সীমিত বেডের বিপরীতে অনেক বেশি রোগী ভর্তি হওয়ায় অনেকে মেঝেতে জায়গা নিয়ে সেবা নিচ্ছেন। এ এলকা খুবই গুরুত্বপুর্ণ। ২৫০ জন রোগী সবসময় চিকিৎসা নিয়ে থাকে। সরকারের উন্নয়নমূলক কাজ চলছে এ অঞ্চলে। পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, পর্যটন এলাকা হিসেবে সবসময় লোক সমাগম থাকে। তাদের কিছু হলেও এ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে থাকেন। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে কয়েকবার জানানো হয়েছে। কিন্তু কোন ফল হচ্ছে না।

পটুয়াখালী সিভিল সার্জন ডা. এসএম কবির হাসান বলেন, কলাপাড়া হাসপাতালে প্রতিদিনই রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি হয়। এ জন্য এখানে ১০০ শয্যা হাসপাতাল দরকার। বর্তমানে একটি উপজেলা ১০০ শয্যার কাজ করছি। পর্যায়ক্রমে কলাপাড়াকেও করা হবে। সংসদ সদস্য ডিউ লেটার দিলে ও সংসদে এ নিয়ে আলোচনা করতেন তাহলে এটি কার্যকর হতো।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!