1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:০২ অপরাহ্ন

হালুয়াঘাট সীমান্তে হাতি-মানুষের জীবন মরণ যুদ্ধ: প্রশ্নবিদ্ধ বন বিভাগ

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২

মাজহারুল ইসলাম মিশু : ২০১৯ সালের ১৬ ও ১৭ই জুন হালুয়াঘাট উপজেলার ভূবনকুড়া ইউনিয়নে সীমান্তবর্তী কয়েকটি গ্রামে মানুষের বসতবাড়িতে ব্যাপক তান্ডব চালায় বন্যহাতির দল। সে সময় এ ঘটনায় কেউ হতাহত না হলেও ৩০ থেকে ৩৫টি বসতঘর এবং ঘরের মধ্যে থাকা আসবাবপত্র গুঁড়িয়ে দেয় বন্যহাতির দলটি।

২০২০ সালের ২৩ অক্টোবর বন্যহাতির আক্রমনে হালুয়াঘাট সীমান্তে বন বিভাগের গোপালপুর বিটের কার্যালয়সহ আশপাশের বাড়িঘরে ব্যাপক তান্ডব চালায় বন্যহাতি। ২০২১ সালের ১৩ জুন কড়ইতলী গ্রামে বন্যহাতির একটি দল মহর উদ্দিন নামে স্থানীয় এক কৃষকের বসতবাড়িতে তান্ডব চালিয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করে। সে সময় বাড়িতে থাকা লোকজন দৌড়ে পালিয়ে হাতির আক্রমণ থেকে বেঁচে যান। একই বছরের অক্টোবর মাসে কৃষি অফিসের তথ্যানুযায়ী মাত্র এক সপ্তাহে সীমান্তের গ্রামগুলোতে বন্যহাতির তান্ডবে রোপনকৃত ৪০ একর ধানের ক্ষেত ও সবজি ফসল নষ্ট করে হাতির দল।
চলতি বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে কড়ইতলী গ্রামের কৃষক বৃদ্ধ নওশের আলী তার রোপনকৃত ফসলি জমি বন্যহাতির আক্রমণ থেকে রক্ষার জন্য অন্যান্য কৃষকদের সাথে হাতি তাড়াতে যান। এ সময় একটি হাতি তার উপর আক্রমণ করে শুঁড়ে পেচিয়ে ও পায়ে পিষ্ট করে। হাসপাতালে নেওয়ার আগেই মৃত্যু হয় বৃদ্ধ কৃষক নওশের আলীর।
এ শোক কাটতে না কাটতেই ২০ সেপ্টেম্বর রাতে হাতির আক্রমণ থেকে ফসলি জমি রক্ষার জন্য জেনারেটারের মাধ্যমে ফাঁদ তৈরি করেন কড়ইতলী গ্রামের কৃষক জাহাঙ্গীর আলম। কিন্তু সে ফাঁদে পড়েই তার মর্মান্তিক মৃত্যু হয়।

এ এলাকার হাজারো কৃষকের এখন হাতির ভয়ে নির্ঘুম রাত কাটে। ফসলি জমিতে রোপনকৃত ধান ও সবজি খাওয়া শেষ হলে হাতির দল যদি ঘরবাড়িতে এসে আক্রমণ চালায়। হাতির আক্রমণে কেউ মারা গেলে বা কেউ গুরুতর আহত হলেই কেবলমাত্র বন বিভাগের গোপালপুর বিটের কর্মকর্তাদের দেখা যায়। এছাড়া বন্যহাতির আক্রমণ থেকে কৃষকদের ফসল ও ঘর বাড়ি রক্ষায় কোন কার্যকরী উদ্যোগ নেওয়া হয় না বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় থেকে জারিকৃত ‘বন্যপ্রাণী দ্বারা আক্রান্ত জানমালের ক্ষতিপূরণ বিধিমালা, ২০২১’ অনুযায়ী বাঘ, হাতি, কুমির, ভাল্লুক বা সাফারি পার্কে বিদ্যমান বন্যপ্রাণীর আক্রমণে কোনো ব্যক্তি মারা গেলে তার পরিবার তিন লাখ টাকা, গুরুতর আহত ব্যক্তির ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা ও বন্যপ্রাণীর আক্রমণে গবাদিপশু, ঘরবাড়ি, গাছপালা, ফসল ইত্যাদি সম্পদ ক্ষতিগ্রস্ত হলে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়।

তবে হালুয়াঘাট সীমান্তের কৃষকরা হাতির আক্রমণে কেউ মারা গেলে ও ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হলে সরকারীভাবে ক্ষতিপূরণ আছে কিনা তাই জানেন না। এ বিষয়ে নেই কোন প্রচার প্রচারণা। হাতির আক্রমণ থেকে ফসল ও ঘরবাড়ি রক্ষায় কি করণীয় তাও তাদের জানা নেই। সনাতন পদ্ধতিতে হাতির আক্রমণ থেকে ফসল ও ঘরবাড়ি রক্ষায় টর্চ লাইট দিয়ে হাতিকে ভয় দেখানো আর হৈ-হুল্লোড় তাদের সম্বল। এখন আর এতেও কাজ হচ্ছে না। হাতি প্রায়ই চলে আসছে মানুষের বাড়িঘরে।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার সীমান্তবর্তী কড়ইতলী, বানাইপাড়া, ধোপাজুরী, রঙ্গনপাড়া, মহিষলেটি, কোচপাড়া ও আমতৈলী গ্রামের কৃষকেরা দূর্বিষহ জীবন পাড় করছেন। সন্ধ্যা হলেই খাদ্যের সন্ধানে বন্যহাতির দল সীমান্তের ওপারের পাহাড় থেকে নেমে এসে হানা দিচ্ছে ফসলি জমিতে কিংবা লোকালয়ের বসত বাড়িতে। আর মানুষ তাদের ফসল ও ঘরবাড়ি রক্ষার জন্য হাতি তাড়াতে রাতের পর রাত জেগে কাটাচ্ছেন। এতে মানুষ ও হাতি উভয়ের জীবন দূর্বিষহ হয়ে পড়েছে।

কড়ইতলী গ্রামের কৃষাণী কুলসুম বিবি। নিজের ছেলে কবির হোসেনকে সাথে নিয়ে ১৫ কাঠা জমিতে ঝিঙা রোপন করেছিলেন। ঝিঙা বিক্রির সময় হয়ে এসেছিলো। কিন্তু মঙ্গলবার রাতে হাতির তান্ডবে সব শেষ। কুলসুম বলেন, হাতি এসে আমাদের ঝিঙা ফসল নষ্ট করে দিয়েছে। আমি ও আমার ছেলে দিনরাত পরিশ্রম করে ঝিঙা আবাদ করেছিলাম। আমাদের লাখ টাকার উপর ক্ষতি হয়ে গেলো। তবে কেউ এখনো আমাদের খোঁজ-খবর নিতে আসেনি। বন বিভাগের কাউকে কোনদিন দেখিনি। সীমান্তে আমরা বড় অসহায়ভাবে দিন যাপন করছি। জানি না আমাদের কপালে কি আছে?

মহিষলেটি গ্রামের কৃষক জমির উদ্দিন বলেন, আমি ১৬ কাঠা জমিতে শীত লাউ ও প্রায় ২ একর জমিতে ধান রোপন করেছিলাম। হাতি এসে লাউ ক্ষেত একেবারে খেয়ে শেষ করে ফেলেছে। রোপনকৃত ধান ক্ষেতেও ব্যাপক ক্ষতি করেছে। আমাদের খোঁজ-খবর বন কর্মকর্তা বা কৃষি কর্মকর্তা কোনদিন নেয়নি। ক্ষতিপূরণ কিভাবে পাওয়া যায় তা আমাদের জানা নেই। কেউ আমাদের বলেওনি। হাতি বছরে ৪ থেকে ৫ বার এসে আমাদের ফসল নষ্ট করতো। তবে এবার হাতির আক্রমণ সবচেয়ে বেশি। আমরা সরকারের কাছে সহযোগীতা চাই।

কৃষক আইয়ূব আলী বলেন, আমাদের ফসলি জমির ক্ষতির কথা উপর মহল পর্যন্ত হয়তো পৌছায় না। গেলো বছর ধান আবাদ করেছিলাম ১০ কাঠা জমিতে। হাতি খেয়ে শেষ করে দিয়েছে। সে সময় বন বিভাগের এক কর্মকর্তা এসে বলেছিলেন ক্ষতিপূরণ দিবেন। পরে তাকে আর উনাকে চোখেও দেখিনি। এ বছর লাউ আর ঝিঙা করেছিলাম। বিক্রির সময় হতেই হাতি এসে খেয়ে শেষ করে দিয়েছে। সংসার কিভাবে চলবে জানি না। আমরা আতঙ্কে আছি, কবে বাড়িতে এসে হাতির দল হানা দেয়। এভাবে চলতে থাকলে বাড়ি ঘর ফেলে পালিয়ে যাওয়া ছাড়া আর কোন পথ আমাদের জন্য খোলা নেই।

স্থানীয় ভূবনকুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এম সুরুজ মিয়া বলেন, আমি ত্রিশ বছর ধরে এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। হাতির তান্ডব শুরু হয়েছে ২০১২ সাল থেকে। ২০১৮ সাল পর্যন্ত বোরো ও আমন মৌসুমে বছরে ২ বার বন্যহাতির পাল এসে ১০ থেকে ১৫ দিন এসব এলাকায় অবস্থান করে রোপনকৃত ফসলের ক্ষতি করে আবার চলে যেতো। কিন্তু ২০১৮ সালের পর থেকে হাতির তান্ডব প্রকট আকার ধারণ করেছে। এখন কোন মৌসুম মানছে না। যখন তখন হাতির পাল আমাদের সীমান্তবর্তী ফসলি ক্ষেত ও বাড়িঘরে আক্রমণ করছে।

তিনি আরও বলেন, আমার ইউনিয়নের ৭ কিলোমিটার সীমান্তের ৫শ গজের মধ্যে গ্রামগুলোতে সাধারণ মানুষ হাতি আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটায়। সীমান্তের ৫শ গজের মধ্যে গরীব ও নিন্মমধ্যবিত্ত মানুষের বসবাস সবচেয়ে বেশি। তারা এখানে সবজি ও ধান আবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে। হাতি যখন তাদের শেষ সম্বলটুকু নষ্ট করতে আসে, তখনই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কৃষকরা হাতি তাড়ানোর জন্য ছুটে যায়। এখানে দায়িত্বরত বন বিভাগের বিট কর্মকর্তা ৪০ জন ভলান্টিয়ারের নাম নিয়েছিল। কিন্তু আজ পর্যন্ত তাদের কোন প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়নি। বিট কর্মকর্তা বলে গিয়েছিলেন, ভলান্টিয়ারদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে, পোশাক দেওয়া হবে ও উপকরণ দেওয়া হবে। কিন্তু কিছুই তারা দেননি। সরকারিভাবে ক্ষতিপূরণের জন্য আবেদন করতে অনেক কাগজপত্র, উপজেলা বিট কর্মকর্তার কার্যালয়ে দৌড়াতে দৌড়াতে মানুষ অতীষ্ট হয়ে গেছে। আমরা চাই, এ প্রক্রিয়া যেন আরো সহজ করা হয় এবং হাতি থেকে ফসল ও ঘরবাড়ি রক্ষায় সরকারীভাবে যেন কার্যকরী ভূমিকা নেওয়া হয়।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে গোপালপুর বন বিভাগের দায়িত্বে থাকা বিট কর্মকর্তা মো. মাজহারুল হক বলেন, আমি চলতি বছরের ৩১ মে থেকে গোপালপুর বিট কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্বে আছি। আমি আসার পড়ে এখানে ক্ষতিগ্রস্থদের ওেয কয়টি আবেদন পেয়েছি তা সংরক্ষণ করেছি। প্রতিদিনই এখানে ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে। আর কিছু আবেদন পেলে আমরা ময়মনসিংহে সুপারিশ করে পাঠাবো।

বন্যহাতির আক্রমণ থেকে ফসল রক্ষায় বন বিভাগের পক্ষ থেকে কোন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, হাতির আক্রমণ থেকে জান-মাল ও ফসল রক্ষার জন্য কিছু কৌশল অবলম্বনের জন্য বলা আছে। প্রতিটি এলাকায় স্থানীয়দের নিয়ে বন বিভাগের পক্ষ থেকে ‘ইআরটি’ নামে একটি দল গঠন করা আছে। তাদের সাথে আমরা হাতি থেকে ফসল ও ঘরবাড়ি রক্ষায় কাজ করছি। আমি নালিতাবাড়ী ও হালুয়াঘাটের দায়িত্বে আছি। আমাদের জনবল অত্যন্ত কম। বিশেষ করে, আমার অফিস থেকে কড়ইতলী বা এই এলাকা দূরে হওয়ায় ইচ্ছে করলেই আসা যায়না। আমি চেষ্টা করছি এটির একটি স্থায়ী সমাধান করার।

হালুয়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সোহেল রানা বলেন, খাদ্যের অভাবে হয়তো হাতি কৃষকের ফসলি জমি নষ্ট করে। হাতিকে কোন অবস্থাতেই ক্ষতি বা মারা যাবে না। যদি কোন কৃষকের ফসলের ক্ষতি হয় তাহলে আমাদের একটি কমিটি আছে। এ কমিটির মাধ্যমে আমরা তদন্ত করে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ব্যবস্থা করবো।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!