1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:০০ অপরাহ্ন

রাত হলেই গর্জে ওঠে ড্রেজার, খনিজ সম্পদ লোপাট হলেও দেখার কেউ নেই

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ২ অক্টোবর, ২০২২

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : রাত দশটা পেরুতেই গর্জে ওঠে শ্যালুচালিত ৪টি ড্রেজার। বিকট শব্দে আশপাশ ভেঙেচুড়ে আর গভীর গর্ত খুঁড়ে চলে মূল্যবান খনিজ সম্পদ ভূ-গর্ভস্থ বালু উত্তোলন। ড্রেজারের বিকট শব্দে আশপাশের অন্তত তিন কিলোমিটার এলাকার মানুষের ঘুম হয় হারাম, কালো ধোঁয়ায় নষ্ট হয় পরিবেশ, বিশাল বিশাল গর্তে ধ্বংস হচ্ছে ফসলি জমি। প্রকাশ্যে এমন ধ্বংসযজ্ঞ চলে এলেও মাথা ব্যথা নেই কর্তৃপক্ষের। এমন ধ্বংসলীলা চলছে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার রামচন্দ্রকুড়া ইউনিয়নের মন্ডলিয়াপাড়া গ্রামে।

এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, মন্ডলিয়াপাড়া গ্রামের পশ্চিমে ভোগাই নদীর বাঁক সংলগ্ন এলাকায় গড়ে তোলা হয়েছে বালু উত্তোলন কেন্দ্র। ফসলি জমি চুক্তিতে ক্রয় করে কয়েক একর জায়গাজুড়ে খুঁড়া হয়েছে গভীর গর্ত। বিশালাকার এ গর্তের গভীরতা অন্তত চল্লিশ ফুট। উপরের ৫-৭ ফুট মাটির স্তর খুঁড়ে ফেলে দিয়ে তৈরি এসব গর্তে বসানো হয়েছে শ্যালুচালিত ৪টি ড্রেজার। উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন এসব শ্যালুচালিত ড্রেজার চালু করা হয় রাত দশটার পর। বিকট শব্দে প্রকম্পিত করে রাত থেকে সকাল অবদি দাপিয়ে চলে ড্রেজারগুলো। ভূ-গর্ভ থেকে তোলা হয় মূল্যবান খনিজ সম্পদ নুড়ি আর মোটা বালু। এসব নেটিং করে আবার পাওয়া যায় ছোট ছোট পাথর। এ তিন ধরণের খনিজ সম্পদ দিনে এবং সন্ধ্যাবেলায় প্রকাশ্যে নাকুগাঁও মহাসড়কের হাতিপাগার-নয়াবিল ভাঙা এলাকায় লোড করা হয় দশ চাকার ট্রাকে। বিক্রি হয় উচ্চমূল্যে।

অন্যদিকে নেটিং শেষে উচ্ছিষ্ট হিসেবে রয়ে যাওয়া বিট বালু কিছু বিক্রি হয়, বাকী অংশ পাশের ভোগাই নদীর গর্ভে ফেলে নষ্ট করা হয় নাব্যতা। ড্রেজারের বিকট শব্দ রোগী, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ছাড়াও আশপাশের অন্তত তিন কিলোমিটার এলাকার হাজারো মানুষের ভোগান্তির কারণ হয়ে দাড়ায়। কালো ধোঁয়া আর ডিজেল-মবিলের অবশিষ্টাংসে নষ্ট হচ্ছে প্রকৃতি। এসব বিষয়ে আশপাশের মানুষের অভিযোগের শেষ না থাকলেও কর্ণপাত করে না খনিজ সম্পদ লুটেরা ওয়াহাব, নয়ন, মনির ও রহিমেরা। অনেকটা অদৃশ্য শক্তির বলেই দিব্বি চালিয়ে যাচ্ছে খনিজ সম্পদ লুটপাট। বিষয়টি প্রশাসনের দৃষ্টিতে আনা হলেও কার্যকরী কোন উদ্যোগ দেখা যায় না। ফলে হতাশ এলাকাবাসী।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকাবাসী জানান, দীর্ঘদিন ধরে নদীর তীর ঘেঁষে ফসলি জমি গর্ত করে চলছে ভূ-গর্ভস্থ খনিজ সম্পদ উত্তোলন। কিন্তু প্রশাসনের কোন কঠোর পদক্ষেপ চোখে পড়েনি। ফলে দিন দিন খনিজ সম্পদ লুটকারীরা বেপরোয়া হয়ে উঠছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হেলেনা পারভীন জানান, বিষয়টি উপজেলা প্রশাসন অবগত রয়েছে। শিগগিরই অভিযান পরিচালনা করা হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!