1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৩:৩০ পূর্বাহ্ন

কলাপাড়ার অধিকাংশ রাস্তায় পাইপ ফেলে বালু ব্যবসা: দুর্ভোগে পথচারীরা

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ১৯ মে, ২০২৩

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : কলাপাড়ায় অসংখ্য সড়কই অভিভাবকবিহীন। ৩০ থেকে ৬০ মিটার পরপর ড্রেজার ব্যবসায়ীরা অধিকাংশ সড়কের উপর বালুর পাইপ ফেলে দু’পাশে বালুর বস্তা দিয়ে চলছে হরদম বালুর ব্যবসা। এসব ব্যবসায়ীর ভাবটা যেনো এরকম যে, দয়া করে যেন যাতায়তের চলাচলের সুযোগ দিচ্ছেন তারা। ব্যক্তি মালিকানাধীন নিচু জায়গা ভরাটে বালু বিক্রি করে এসব ড্রেজার ব্যবসায়ীরা লাভবান হলেও চরম দূর্ভোগে আছে পথচারীসহ চালকরা।

এ চিত্র দেখা যাচ্ছে পটুয়াখালীর কলাপাড়া প্রথম শ্রেণির পৌর শহরের যত্রতত্র। এভাবে দীর্ঘদিন ধরেই সড়ক আটকে বালু ব্যবসায়ীদের এ দৌরাত্ম চললেও পৌর প্রশাসন রহস্যজনক কারনে রয়েছে নিশ্চুপ। এ নিয়ে তাদের দায়সারা গোছের বক্তব্য কেউ তো অভিযোগ করেনি। পৌরসভার অনুমতি ছাড়া সড়কের উপর পাইপ ফেলে সড়ক আটকে তারা এটা পারে না।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পৌর শহরের ৩নং ওয়ার্ডের রহমতপুর এলাকা, সমাজকল্যাণ-রহমতপুর-বাসস্ট্যান্ড চৌরাস্তা সড়কে এ অবস্থা চলছে সর্বদা। একটি প্রভাবশালী মহল মাসের পর মাস ধরে স্থাপনা তৈরিতে তাদের ব্যক্তি মালিকানাধীন নিচু জায়গা ভরাট করছে। আর ড্রেজার ব্যবসায়ীরা শহর সংলগ্ন আন্ধারমানিক ও দোন নদীতে বালু বোঝাই জাহাজ রেখে এসব সড়কে পাইপ ফেলে পাইপের মাধ্যমে বালু ফেলছে ১-২ কিলোমিটার দূরত্বে। এক মালিকের জায়গা ভরাট হলে সড়ক থেকে পাইপ না সড়িয়ে অপর মালিকের জায়গা ভরাটে যোগাযোগ করছে তারা। ১৫ দিন, ১ মাস বালু সরবরাহ বন্ধ থাকলেও লেবার খরচের সাশ্রয়ে সড়ক থেকে অপসারণ করা হচ্ছে না বড় বড় সাইজের এ পাইপগুলো। যানবাহন চলাচল ও পথচারীদের দুর্ভোগ এরা কোন আমলেই নিচ্ছেন না। ফলে এসব পাইপে ধাক্কা লেগে প্রতিনিয়ত দূর্ঘটনার কবলে পড়ছে বাইসাইকেল, মোটরসাইকেল, রিকশা, অটোরিকশা, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস চালকরা। প্রায়শই পথচারীরা হোঁচট খেয়ে আহত হচ্ছে। সবচেয়ে বেশী দুর্ভোগে পড়ছে প্রসূতি নারী, বৃদ্ধ ও শিশুরা।

পৌর শহরের অটোরিকশা চালক সুলতান জানান, বালুর পাইপের কারনে রহমতপুর এলাকায় ঠিকমত গাড়ি চলাচল করতে পারে না। আহত হচ্ছে যাত্রীরা। এরমধ্যে এক সন্তান সম্ভবা মহিলা হাসপাতালে যাওয়ার পথে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পাইপের উপর দিয়ে গাড়ি ওঠা-নামায় তার পেটের বাচ্চা উল্টে গিয়ে ব্যথায় মহিলা প্রচুর কান্নাকাটি করে। পরে তার জরুরী সিজার করতে হয়েছে।

বালু ব্যবসায়ী তৈয়বুর রহমান বলেন, যেখানে পাইপ ফেলা আছে সেখানে আরও এক জাহাজ বালু লাগবে। সপ্তাহ দুয়েকের মধ্যে জাহাজ এলে বালু ফেলে পাইপ সরানো হবে।

কলাপাড়া পৌরসভার নির্বাহী কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, এখনও পর্যন্ত এ বিষয়ে কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কলাপাড়া পৌর মেয়র বিপুল চন্দ্র হাওলাদার বলেন, পৌরসভার অনুমতি ছাড়া সড়ক আটকে বালু ব্যবসায়ীরা এটা করতে পারে না। অনেকসময় সড়ক থেকে বালুর পাইপ অপসারণ করলে প্রভাবশালীরা এসে তদ্বির শুরু করে।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, বালুর পাইপ ফেলে সড়কে স্বাভাবিক চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির বিষয়টি এখনও আমার চোখে পড়েনি। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ও আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!