1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:১০ অপরাহ্ন

সিরাজগঞ্জে ট্রাক ও আ.লীগ কার্যালয়ে আগুন

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২৩

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জে ২৮ অক্টোবর থেকে ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৪১ দিনে ৬টি পণ্যবাহী ট্রাক ও দুটি আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) সিরাজগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুর মান্নান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জেলা ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়, গত ৩১ অক্টোবর জেলার রায়গঞ্জের চান্দাইকোনায় দাঁড়িয়ে থাকা গম বোঝাই একটি ট্রাক, ৫ নভেম্বর শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিসের পাশে একটি পণ্যবাহী ট্রাক, ২০ নভেম্বর কামারখন্দ উপজেলার কোনাবাড়ী এলাকায় একটি গম বোঝার্ই ট্রাক, ২৯ নভেম্বর নলকা এলাকায় সবজি বোঝাই একটি পিকআপ. ৩ ডিসেম্বর উল্লাপাড়ার নবগ্রাম এলাকায় করতোয়া কুরিয়ার সার্ভিসের পার্সেলবাহী একটি কাভার্ডভ্যান এবং গত ৬ ডিসেম্বর রাতে শাহজাদপুরের টেটিয়ারকান্দা এলাকায় মুরগিবাহী গাড়িতে আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া গত ২৮ অক্টোবর রাতে চৌহালীর এনায়েতপুর থানা আওয়ামী লীগ কার্যালয়, গত ৫ নভেম্বর ভোররাতে শাহজাদপুর উপজেলার হাবিবুল্লাহনগর ইউনিয়ের বাদলবাড়ীতে আওয়ামী লীগ কার্যালয় ভাঙচুর ও আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

৬টি পণ্যবাহী ট্রাক ও দুটি আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে আগুনের ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে বেশি ক্ষতি হয়েছে মুরগির গাড়ি, গম বোঝাই ও কুরিয়ার সার্ভিসের পরিবহনে। ক্ষতির পরিমাণ এখনো জানা যায়নি।

মুরগির গাড়িতে আগুন দেওয়ার বিষয়ে গাড়িচালক মোখলেসুর রহমান বলেন, গত ৬ ডিসেম্বর রাতে গাজীপুর থেকে মুরগির বাচ্চাবাহী পিকআপটি নিয়ে পাবনার দুর্গাদহ গ্যাস ফিলিং স্টেশন এলাকায় পৌঁছলে আমাকে মারপিট করে  আগুন ধরিয়ে দেয় অবরোধকারীরা। এতে পিকআপে থাকা সাত হাজার ৫০টি মুরগির বাচ্চা পুড়ে মারা গেছে। পরে আমি বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেছি।

ফায়ার সার্ভিস এ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুর মান্নান বলেন, গত ২৮ অক্টোবরের পর থেকে হরতাল-অবরোধ কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি-সমমনা রাজনৈতিক দলগুলো। গত ৪১ দিনে জেলায় ৬টি পণ্যবাহি গাড়ি ও দুটি আওয়ামী লীগ অফিসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ট্রাকে থাকা বিভিন্ন পণ্য। এ আগুন নির্বাপন করতে জেলার ৯টি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের জনবল কাজ করেছে।

সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মন্ডল জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতার কারণে রাস্তাঘাটে সাধারণ মানুষের উপস্থিতি বেড়েছে। প্রায় সবকিছু স্বাভাবিক হচ্ছে। যারা চোরাগোপ্তা হামলা চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই হামলার সঙ্গে জড়িতদের অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আগামিতেও আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে আমরা প্রস্তুত রয়েছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!