1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৩:১৩ পূর্বাহ্ন

বিশ্ববাজারে সয়াবিন তেলের দাম কমলেও দেশের বাজারে বৃদ্ধি

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২৪

অর্থ ও বাণিজ্য ডেস্ক : বিশ্ববাজারে গত টানা পাঁচ মাস দাম কমেছে সয়াবিন তেলের। প্রতি টন অপরিশোধিত সয়াবিন তেলের দাম বিশ্ববাজারে গত নভেম্বরে ছিল ১ হাজার ১১৮ ডলার। সবশেষ গত মার্চ মাসে সে দাম কমে হয়েছে ৯১০ ডলার। অর্থাৎ গত পাঁচ মাসে বিশ্ববাজারে টনপ্রতি সয়াবিন তেলের দাম কমেছে ২০৮ ডলার। অথচ দেশের বাজারে ঘটছে ঠিক তার উল্টো চিত্র। ৫ শতাংশ ভ্যাট ছাড়ের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা বলে ভোজ্য তেল শোধনকারী মিল মালিকরা এক লাফে লিটারে ১০ টাকা দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন সয়াবিন তেলের। যা কার্যকর করা হয় গতকাল মঙ্গলবার থেকে।

যদিও মিল মালিকদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দাম বৃদ্ধির বিষয়টি সোমবার চিঠি দিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে। তবে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু সাংবাদিকদের কাছে বলেন, সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধির বিষয়টি তিনি কিছুই জানেন না।

এদিকে বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যখন ৫ শতাংশ ভ্যাট কমানো হয়েছিল তখন লিটারে সয়াবিন তেলের দাম কমানো হয়েছিল ১০ টাকা, এখন ভ্যাট ছাড় সুবিধা প্রত্যাহার করার কারণেই দাম বাড়ানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোস্তফা হায়দার চৌধুরী বলেন, ‘সরকার ভ্যাট ছাড় সুবিধা দিয়েছিল, আমরাও ভোক্তাকে সুুবিধা দিয়েছিলাম দাম কমিয়ে। এখন যেহেতু সরকার ভ্যাট ছাড়ের সুবিধা আর বাড়ায়নি, ১৫ এপ্রিল শেষ হয়ে গেছে ছাড়ের সময়সীমা। তাই আমরা ১৬ এপ্রিল থেকেই লিটারে সয়াবিন তেলের দাম ১০ টাকা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং এ সিদ্ধান্ত সরকারকে ইতিমধ্যেই জানানো হয়েছে। আমরা আসলে অপেক্ষা করছিলাম ভ্যাট ছাড়ের সময়সীমা সরকার বাড়ায় কি না, সেটি যেহেতু করা হয়নি, তাই আমরা বাধ্য হয়েই দাম বাড়িয়েছি।’

এদিকে ভোজ্য তেলের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে বুধবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান মোস্তফা হায়দার চৌধুরী। তিনি জানান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে দাম বৃদ্ধি সংক্রান্ত যে চিঠি দেওয়া হয়েছে, সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনার জন্য আমরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে যাব। সেখানে আমরা বৈঠক করে আমাদের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের বিষয়ে ব্যাখ্যা করব।

অ্যাসোসিয়েশনের চিঠিতে যা বলা হয়েছে : গত সোমবার বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের চিঠিতে আবারও সয়াবিন তেলের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়। লিটারপ্রতি ১০ টাকা বাড়িয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১৭৩ টাকা। এটি গতকাল মঙ্গলবার থেকে কার্যকর হয়। এর আগে খুচরা পর্যায়ে প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ছিল ১৬৩ টাকা। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবকে লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘আপনার সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, ভোজ্য তেলের কাঁচামাল আমদানি, উৎপাদন পর্যায়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ তারিখে জারিকৃত এসআরওদ্বয়ের মেয়াদ ১৫ এপ্রিল, ২০২৪ তারিখে শেষ হচ্ছে বিধায় আগামী ১৬ এপ্রিল, ২০২৪ তারিখ থেকে বাজারে ভোজ্য তেল (পরিশোধিত পাম অয়েল ও পরিশোধিত সয়াবিন অয়েল) সরবরাহে ভ্যাট অব্যাহতি পূর্ববর্তী মূল্যে পণ্য সরবরাহ হবে।’

এতে আরও বলা হয়েছে, ‘উল্লিখিত বিষয়ের আলোকে আগামী ১৬ এপ্রিল, ২০২৪ তারিখ থেকে ভোজ্য তেলের মূল্য নিম্নলিখিতভাবে কার্যকর হবে। বোতলজাত ১ লিটার সয়াবিন তেলের দাম প্রস্তাব করা হয়েছে ১৭৩ টাকা, ৫ লিটার ৮৪৫ টাকা এবং খোলা ১ লিটার পাম অয়েলের দাম ১৩২ টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে।’

এদিকে ঈদের ছুটির আমেজ যখন এখনও কাটেনি, ঠিক সেই সময় অনেকটা হুট করেই সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১০ টাকা বাড়ানোর সিদ্ধান্তকে চরম হঠকারিতা বলে উল্লেখ করেছেন বাজার বিশ্লেষকরা। এ বিষয়ে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, ‘বিশ্ববাজারে যেখানে গত পাঁচ মাস ধরে সয়াবিন তেলের দাম কমেছে, সেখানে দেশের বাজারে মাত্র ৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহারের অজুহাত দিয়ে একবারে লিটারে ১০ টাকা দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এটি ব্যবসায়ীদের হঠকারিতা ছাড়া আর কিছুই না। আমি সরকারের কাছে আবেদন রাখব-তারা যে প্রস্তাব দিয়েছে সেটি যেন ফেরত দেওয়া হয়। ভোজ্য তেলের দাম যেমন রয়েছে তেমনটিই যেন রাখা হয়। কারণ সব ধরনের পণ্যমূল্য বৃদ্ধির ফলে দেশের মানুষ এমনিতেই অনেক কষ্টে আছে। এর মধ্যে আবার যদি সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১০ টাকা বৃদ্ধি পায়, তা হলে সেটি ভোক্তার কষ্টের মাত্রা আরও বাড়িয়ে দেবে।’

ভোজ্য তেলের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়েছে বাংলাদেশ সাধারণ নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে।  গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানানো হয়। তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়, ট্যারিফ কমিশনের সিদ্ধান্ত বা বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে ঘোষণার আগেই প্রতি লিটারে ১০ টাকা বৃদ্ধি করেছে ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনারি অ্যাসোসিয়েশন। এটি শুধু অযৌক্তিক নয়, এটি এক ধরনের সরকারকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজেদের মনগড়া মূল্য নির্ধারণ। আর আগের মূল্যে না ফেরার যে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য তা একপ্রকার মূল্য বৃদ্ধিকে স্বীকৃতি দেওয়া। এ দেশে জনগণের মতামতের কোনো মূল্য নেই। ঈদ শেষে যখন মানুষ কর্মস্থলে ফিরছে ঠিক এ সময় দ্বিতীয় কর্মদিবসেই প্রতি লিটারে ১০ টাকা মূল্য বৃদ্ধির সংবাদ নাগরিকদের হতাশ করেছে। এর ফলে সাধারণ একটি পরিবারে খরচ বাড়তে পারে ১০০-২০০ টাকা। আমরা সাধারণ নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে এ ধরনের হঠকারী সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ এবং নিন্দা জানাই।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!