1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন

বিকৃত রুচি আর সাক্ষ্য-প্রমাণ যখন আত্মস্বীকৃত

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৬ জুন, ২০২০

– মনিরুল ইসলাম মনির –
সম্মানিত পাঠকমহল জানেন, দীর্ঘ আঠারো বছরে ধরে অনেক ঝড়-ঝঞ্জা পেরিয়ে সাহসিকতা ও সম্মানের সাথে সাংবাদিকতা পেশায় নিয়োজিত রয়েছি। এ যাবত কালে আমার প্রকাশিত কোন সংবাদকে মিথ্যা-বানোয়াট-উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বা তথ্যবিহীন প্রমাণের সুযোগ কারো হয়নি। এরই ধারাবাহিকতায় ৫ জুন প্রথম প্রহরে বাংলার কাগজ এর অনলাইন ভার্সন বাংলার কাগজ টুয়েন্টিফোর ডটকম-এ একটি স্বাক্ষর জালিয়াতির সংবাদ প্রকাশিত হয়। যেখানে পুরো সংবাদজুড়ে জালিয়াতির চিত্র তথ্য-প্রমাণসহ উপস্থাপন করা হয়েছে। শেষদিকে জালিয়াতি কা-ের সাথে প্রধান শিক্ষকের ভাষ্য অনুযায়ী সম্পৃক্ততা পাওয়ায় শহরের রাকিব কম্পিউটারের নাম জড়িয়ে যায়। নিঃসন্দেহে ইনটেনশনালী বা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে রাকিব কম্পিউটারকে জড়ালে প্রথম শিরোনাম থেকে সংবাদ সূচনা বা পর্যালোচনায় ওই প্রতিষ্ঠানের নাম জড়ানোর যথেষ্ট সুযোগ ছিল। কিন্তু তা না করে তদন্তের শেষ পর্যায়ে যখন ওই প্রতিষ্ঠানটির নাম উঠে আসে, প্রধান শিক্ষক নিজে অবলীলায় স্বীকারোক্তি দেওয়ার কারণে। কাজেই এ থেকে স্পষ্ট যে, গোপাল চন্দ্র সরকারের স্বাক্ষর জালিয়াতির ঘটনার জেরে প্রকাশিত সংবাদে রাকিব কম্পিউটারকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে জড়ানো হয়নি।
এরপরও যে কথাটি বলে রাখা ভালো, রাকিব কম্পিউটার থেকে এ সংবাদের প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে নিজের অজান্তেই জালিয়াতির সাথে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, তাকে স্বাক্ষর স্ক্যান করতে বলার পরও সে স্ক্যান করেনি। পরে চতূরতার সাথে প্রধান শিক্ষক স্বাক্ষর অন্য জায়গা থেকে কাটিং করে আঠা দিয়ে লাগিয়ে স্ক্যান করিয়ে তার মাধ্যমে পাঠানো হয়েছে, যা রাকিব কম্পিউটার কর্তৃপক্ষ খেয়াল করেনি। এটা সকলেই জানেন যে, আঠা দিয়ে লাগানো আলাদা কাগজ স্ক্যান করার সময় কাগজ চোখে ধরা না পড়লেও কম্পিউটার স্ক্রিণে স্ক্যান কপি ঠিকই স্পষ্ট দেখা যায় এবং তা পরবর্তীতে ফটোশপে এডিট করে কাজে লাগাতে হয়। এমতাবস্থায় বিষয়টি লক্ষ্য না করার কোন প্রশ্নই আসে না। দ্বিতীয়ত, প্রতিষ্ঠানটির কথা অনুযায়ী লক্ষ্য না করে থাকলেও তার মাধ্যমেই যে স্ক্যান করে পাঠানো হয়েছে, এটা তার বক্তব্যেই স্পষ্ট হয়েছে। তাছাড়া প্রতিষ্ঠানটি নিজেই স্বীকার করেছে যে তার প্রতিষ্ঠান থেকেই পাঠানো হয়েছে, তবে তিনি স্বাক্ষর জাল খেয়াল করেননি।

অন্যদিকে ওই প্রতিষ্ঠানই প্রধান শিক্ষকের শোকজের দাখিলকৃত জবাবের কপি যুক্ত করেছে। যে কপিতে স্পষ্টভবে প্রধান শিক্ষক বলেছেন যে, ‘কে বা কাহারা সভাপতির স্বাক্ষর স্ক্যানিং করে উল্লেখিত ফরমে বসিয়ে এমপিও’র আবেদন প্রেরণ করা হয়েছে।’ প্রধান শিক্ষকের এ বক্তব্য থেকেও স্পষ্ট যে, তিনি এ কাজ না করে থাকলে রাকিব কম্পিউটার কর্তৃপক্ষ করেছে। কাজেই গোপাল চন্দ্র সরকারের স্বাক্ষর জালিয়াতির সাথে ওই প্রতিষ্ঠানের সম্পৃক্ততা তারা নিজেরাই পরোক্ষভাবে স্বীকার করে নিয়েছে।

এরপর আসি রিপোর্টার্স ক্লাব ও সুরুজ্জামান সম্পর্কে। সুরুজ্জামান পেশার বাইরেও ব্যক্তিগতভাবে আমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু এবং দীর্ঘদিনের সহচর- এটা পারিবারিকভাবেই। তথাপি সে আমার কোন দূর্বলতা নয়, নিতান্তই ব্যক্তিগত কারণে রিপোর্টার্স ক্লাবে থেকেই প্রেসক্লাবে যোগ দেয়। কারণ রিপোর্টার্স ক্লাব হলো অঙ্গসংগঠনের পর্যায়ে আর প্রেসক্লাব হলো প্রধান সংগঠনের পর্যায়ে। তাছাড়া সে যখন যোগদান করে তখনও মোমেন আর রাকিব রিপোর্টার্স ক্লাব এমনকি (আমাদের) নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাবে দায়িত্বরত ছিল। পরবর্তীতে রিপোর্টার্স ক্লাবে কোনপ্রকার পদত্যাগ না দিয়েই তারা ব্যক্তিগত স্বার্থে প্রেসক্লাবে যোগ দেয়। ফলে তাদের বহিস্কার করে রিপোর্টার্স ক্লাব পুনরায় নতুনভাবে গঠন করা হয়। তবে রাকিব ও মোমেন নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাবে শুধুমাত্র তাদের পদ থেকে অব্যাহতি নেয়। কিন্তু সদস্য পদ বহাল থেকে যায়। ফলে ক্লাবের নীতিমালা লঙ্ঘনের দায়ে নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব থেকেও তাদের বহিস্কার করা হয়। যা পেশাগত সম্মানের স্বার্থে আমরা পাবলিক করিনি। তবে আমাদের রেজুলেশনে উল্লেখ রয়েছে।
আরও একটি বিষয় উল্লেখ্য যে, তাদের এহেন বিতর্কিত কর্মকান্ডে আমার বিশ্বাসমতে সুরুজ্জামান কোনভাবেই জড়িত নন। তারা সুরুজ্জামানের নাম সুরুজ্জামানের অগোচরে/অমতে ব্যবহার করেছে মাত্র। যে কেউ এ বিষয়ে খোঁজ নিতে পারেন। সুরুজ্জামান নিতান্তই ব্যক্তিগত পছন্দে সানী ইসলামের সাথে দুইজন মিলে প্রেসক্লাবে সদস্য হয়েছেন এবং তা মোমেন ও রাকিবের আগে। কাজেই এখানে সুরুজ্জামানের নাম জড়িয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্য সম্পূর্ণ মনগড়া।
অন্যদিকে আমার ব্যক্তিগত চরিত্র নিয়ে তারা কথা বলেছে। এ বিষয়ে আমার কোন ব্যাখ্যা নেই। খোঁজ নিলে চরিত্র কার কতটুকু পবিত্র তা বেড়িয়ে পড়বে অনায়াসেই। আমার সাংবাদিকতার সংস্পর্শে এ যাবত অসংখ্য তরুণ-তরুণী সংবাদকর্মী যুক্ত হলেও আল্লাহর রহমতে কারও কোথাও ফুটা খুঁজে পাওয়া যাবে না। সুনামের সাথে সবাইকে নিয়ে কাজ করেছি, এখনও করে যাচ্ছি। ব্যক্তিগত চর্চা আমার রুচিতে বাঁধে। তাই এ বিষয়ে চর্চা করতে চাই না। এটা তারাই করে বেড়াক। পাবলিক ও প্রশাসনিক গ্রহণযোগ্যতা কার বেশি এটিও সবাই ভালো জানেন। গ্রহণযোগ্যতা তো পরের কথা, চিনেন কয়জনে? কাজেই এ বিষয়ে আমার কোন মাথাব্যথা নেই। ইতিমধ্যেই তাদের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় একজন পরিচিত পতিতা দিয়ে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। আমার সাথে ওই পতিতার কোন যোগাযোগ তো নেই, তার বাড়ি-ঘর ঠিকানা পর্যন্ত জানা নেই। যারা ওই মেয়েকে দেখেছেন তারাই আমাকে বলেছেন দেখলে বমি আসে। কাজেই এমন রুচিহীন কাজ আমার দ্বারা করা তো দূরের কথা, করানো ও প্রচার দেওয়াও সম্ভব নয়। কেউ যদি এসব নাটক সাজিয়ে নিজেদের হিরো ভেবে পাপের বোঝা ভারি করতে চায় তারা করুক। শুধু বলে রাখব, ষড়যন্ত্র করে বেশিদূর এগুনো যায় না। এক সময় নিজের ফাঁদে নিজেরই শিকার হতে হয়। আমি কোন ষড়যন্ত্র করতে চাই না। যতটুকু বাস্তবে পাব ততটুকু দিয়েই পেশাগত দায়িত্ব পালন করে যাব। এর বাইরে গিয়ে কারও ঋণের বোঝা বইতে রাজী নই।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!