1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৬ অগাস্ট ২০২০, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ীতে বয়লারের পানিতে ফসলি জমি নষ্টের অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ১১ জুন, ২০২০
  • ১০৯ বার পড়া হয়েছে

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে জয়লক্ষ্মী রাইচ মিলের বয়লারে ব্যবহৃত পানিতে ফসলি জমি নষ্টের অভিযোগ তোলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর প্রতিকার চেয়ে আবেদন করেছেন জাহাঙ্গীর আলম নামে এক ব্যক্তি। অভিযোগে জানানো হয়, শহরের গড়কান্দা মহল্লার মেসার্স জয়লক্ষ্মী রাইচ মিলের বয়লারের ব্যবহৃত পানি মহল্লার পানি নিস্কাষণের ড্রেন হয়ে ফসলি জমিতে প্রবেশ করছে। এর ফলে মিলের আশপাশে থাকা ফসলি জমির উর্বরা শক্তি কমে যাচ্ছে। তবে মহল্লার ড্রেন আটকে জলাবদ্ধতার পাল্টা অভিযোগ তোলেছেন জয়লক্ষ্মী মিল কর্তৃপক্ষ।
সরেজমিনে গিয়ে দেখায় যায়, জয়লক্ষ্মী রাইচ মিলের বাংলা বয়লারে ব্যবহৃত পানি বয়লার সংলগ্ন মহল্লার পানি নিস্কাষণের ড্রেন হয়ে মিলের মালিকানাধীন একটি পুকুরে গিয়ে মিশেছে। তবে পরবর্তীতে ওই পুকুর থেকে কেটে দেওয়া দুইটি নালা দিয়ে দুই পাশের ফসলি জমিতে মহল্লার পয়ঃনিস্কাষণসহ যাবতীয় পানি ও বয়লারের ব্যবহৃত পানি মিশছে আশপাশের ফসলি জমিতে। মহল্লার পানি নিস্কাষণের নালাটি বহু বছর আগে ভরাট হয়ে অস্তিত্ব হারানোর পর বেদখল হয়ে যাওয়ায় মহল্লার বর্জ্য পানি নিস্কাষণের বিকল্প কোন পথ না থাকায় এ সমস্যা দীর্ঘায়িত হচ্ছে। অন্যদিকে জয়লক্ষ্মী রাইচ মিলের বয়লারের ব্যবহৃত পানির জন্য নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পুকুর নির্মাণ করা হলেও তা পর্যাপ্ত না হওয়ায় এবং ইটিপি প্ল্যান্ট (এফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট) না থাকায় দূর্ভোগ বাড়ছে আশপাশে। তবে বয়লারে ব্যবহৃত পানির এ সমস্যার অভিযোগ শুধু জয়লক্ষ্মীতেই নয়, আশপাশের বেশকিছু রাইচ মিলের একই অবস্থা।

এ বিষয়ে অভিযোগকারী জাহাঙ্গীর আলম জানান, জয়লক্ষ্মীর বয়লারে ব্যবহৃত পানিতে তার তিন একর ফসলি জমির উর্বরা শক্তি নষ্ট হতে চলেছে। আশপাশের জমিও ওই পানিতে নষ্ট হচ্ছে বলে তিনি জানান। মহল্লার ড্রেনের পানি আটকে দেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ড্রেন থেকে বয়লারের পানি সরবরাহের পথ বন্ধ করে দিলে তিনি ড্রেন উন্মুক্ত করে দেবেন। এছাড়াও তিনি জয়লক্ষ্মী মিল কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সরকারী পরিত্যক্ত কাচা রাস্তার একাংশ দখলের অভিযোগও করেন।
তবে জয়লক্ষ্মী রাইচ মিলের মালিক অসীম দত্ত হাবলু জানান, ইটিপি স্থাপন না করলেও তিনি তার বয়লারে ব্যবহৃত পানি ব্যবস্থাপনার জন্য নিজস্ব পুকুর করেছেন। উপরন্তু মহল্লার পানি বের হওয়ার জন্য তিনি ব্যক্তিগত জায়গা জনস্বার্থে দিয়েছেন বলেও জানান। এসময় তিনি উল্টো মহল্লার ড্রেনে বাঁধ দিয়ে পানি আটকে জলাবদ্ধতার অভিযোগ তোলেন অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে।
এ বিষয়ে শেরপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোঃ রাসেল নোমান জানান, বয়লারের পানিতে সাধারণত কোন ক্যামিক্যাল ব্যবহার করা হয় না। এমতাবস্থায় বয়লারের ব্যবহৃত পানি ঠান্ডা হওয়ার পর ফসলি জমিতে প্রবেশ করলে ক্ষতির আশংকা কম থাকে। এক্ষেত্রে জয়লক্ষ্মী রাইচ মিলের বয়লারের পানি ফসলি জমিতে প্রবেশের বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে। তাছাড়া ওই মিলের পরিবেশ ছাড়পত্র আছে কি না তাও খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে। এসময় তিনি বলেন, মহল্লার নর্দমায় বাসাবাড়ির পরিত্যজ্য পানিও ফসলী জমির জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, উভয়পক্ষ থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে উভয়পক্ষকে নিয়ে বসে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করব।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com