1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৮:১৩ অপরাহ্ন

কলাপাড়ায় হাজারো মানুষের দুর্ভোগ আয়রন সেতু এখন মৃত্যু ফাঁদ

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০
  • ৫৫ বার পড়া হয়েছে

রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী): কলাপাড়ায় পযর্টন কেন্দ্র কুয়াকাটার পার্শ্ববর্তী লতাচাপলি ইউনিয়নের কুয়াকাটা খালের ওপর নির্মিত আয়রন সেতুটি এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। দুর্ভোগে পড়েছে ৭ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষসহ ২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, জরুরি চিকিৎসা সেবা ও ক্ষেতের উৎপাদিত ফসল নিয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছে ওই এলাকার সাধারণ জনগণ। যে কোন সময় ঘটতে পারে বড়ধরণের দুর্ঘটনা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কুয়াকাটা খালের ওপরে নির্মিত আয়রণ সেতুটি তৈরি করেছেন মূলত খাজুড়া আবাসনের ৮০টি পরিবার এবং ফাশিপাড়া, নয়াপাড়া, মোথাউপাড়া, মেলাপাড়া, শরীফপুর ও বাহাসকান্দা গ্রামের প্রায় হাজার হাজার লোকের যাতায়তের অন্যতম মাধ্যম হিসেবে এ সেতুটি এখন ব্যবহৃত হচ্ছে। প্রতিদিন আয়রন সেতুটি দিয়ে ওই গ্রামের এক হাজারো লোক মহিপুর ও কুয়াকাটাসহ উপজেলা সদরে যাতায়ত করে থাকে। প্রায় ৫ বছর আগে সেতুটি খারাপ অবস্থায় পরিণত হয়, যা ধীরে ধীরে এখন পুরোপুরি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। খালে লোনা পানি আসা-যাওয়ায় লোহার ভিমে মরিচা পড়ার কারনে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সেতুটি দুর্বল হয়ে পড়েছে বলে জানা যায়। আশ্রয় কেন্দ্রের পাশেই একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি মাদরাসা রয়েছে। আয়রন সেতুটি দিয়ে প্রতিদিন বিদ্যালয় ও মাদরাসার শতশত ছাত্র-ছাত্রী যাতায়ত করে ঝুঁকি নিয়ে। ছেলে-মেয়েদের এ দুর্ভোগ নিয়ে অভিভাবকদের চিন্তার শেষ নেই।
অভিভাবকদের মতে, বড় মানুষরাই যেখানে মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করে, সেখানে বাচ্চারা কিভাবে এ সেতুটি দিয়ে যাতায়ত করবে? তাদের মতে, খুব শিঘ্রই আয়রণ সেতুটি সংষ্কার না হলে যে কোন সময়ে এখানে বড়ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।
খাজুরা আবাসনের সভাপতি আছিয়া বেগম ও সাধারণ সম্পাদক সুধির চন্দ্র মিস্ত্রী জানান, আয়রণ সেতুটি দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার লোক যাতায়ত করে। বর্তমানে সেতুটি যে অবস্থা হয়েছে তাতে যাতায়াত করাই এখন মুশকিল হয়ে পড়েছে। সেতুটি দ্রুত সংষ্কার না হলে বড়ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা করছেন।
লতাচাপলী ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আনছার উদ্দিন মোল্লা জানান, কুয়াকাটা খালের ওপর আয়রণ সেতুটিসহ আমার ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি সেতু অত্যান্ত খারাপ অবস্থায় রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে এ বিষয়ে অবহিত করা হয়েছে।
এসময় এ বছরের শেষ নাগাদ নতুন ব্রীজের বরাদ্দ আসতে পারে বলে তিনি আশ্বাস দেন এবং ব্রীজের নতুন বরাদ্দ আসার আগ পর্যন্ত মানুষের চলাচলের জন্য বর্তমান সেতুর অদূরে একটি মজবুত সাঁকো করে দিবেন বলেও তিনি জানান।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com