1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৪৪ পূর্বাহ্ন

করোনা রোগীদের জন্য হাসপাতাল প্রস্তুত করছে যুক্তরাষ্ট্র

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : হোস্টন হাসপাতালের একাংশকে করোনাভাইরাস স্পেশাল ইউনিটে রূপ দেওয়া হয়েছিল। এই হাসপাতালেরই এক চিকিৎসক জানিয়েছেন, আগামী ১৪ দিনের মধ্যে এই ইউনিট রোগীর ধারণক্ষমতা অতিক্রম করতে যাচ্ছে।

ইউনাইটেড মেমোরিয়াল মেডিকেল সেন্টারের মেডিকেল অফিসার ডা. জোসেফ ভ্যারন বলেন, ‘গত তিন সপ্তাহে আমি অনেক রোগী ভর্তি দেখেছি যাদের অসুস্থতা ও সংখ্যা গত ১০ সপ্তাহের তুলনায় বেশি।’

যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য হাসপাতালের চিত্রটা ঠিক একই রকম। অন্তত ১২টি রাজ্যে দৈনন্দিন হাসপাতালে ভর্তি হওয়া কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা বাড়ছে বলে জানিয়েছেন ইউএস সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের পরিচালক।

সিএনএন জানিয়েছে, রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি আবারও হাসপাতালগুলোতে ভিড় বাড়াবে, কর্মী, বেড ও ভেন্টিলেটরসহ জটিল সম্পদগুলোর সংকট সৃষ্টি করবে। ইতোমধ্যে কিছু হাসপাতালে ভিড় এতোটাই বেড়েছে যে রোগীদের অন্য কোথাও স্থানান্তর করতে হয়েছে কর্তৃপক্ষকে। সংক্রমণ বাড়ায় কিছু হাসপাতাল আবার আগেভাগেই প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছে।

গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক কার্যক্রম পুনরায় চালুর পর থেকে করোনায় সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। আক্রান্ত অনেক রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করা জরুরি হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন কিছু চিকিৎসক।

মায়ামির জ্যাকসন মেমোরিয়াল হাসপাতালের আইসিইউ পরিচালক ডা. ডেভিড ডি লা জারদা বলেন, ‘আমি সৈকতের কাছাকাছি বাস করি এবং আপনি সেখানে প্রতিদিন সেখানে এমন অবস্থা দেখবেন যেন পার্টি হচ্ছে।’

কিছু অঙ্গরাজ্যের স্থানীয় কর্মকর্তা ও জনস্বাস্থ্য প্রশাসকরা জানিয়েছেন, করোনার দ্বিতীয় দফা ঢেউয়ে হাসপাতালগুলোতে ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত রোগী রয়েছে।

সান অ্যান্টোনিওর বেক্সার কাউন্টির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, চলতি সপ্তাহে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। ধারণক্ষমতার ২০ শতাংশ বেশি রোগী হাসপাতালগুলোতে রাখা হয়েছে।

সান অ্যান্টোনিও নগর কর্তৃপক্ষের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, জুনের প্রথম দিকে আইসিইউতে করোনার ৩৯ রোগী ছিল এবং হাসপাতালে ভেন্টিলেশনে ছিলেন ২০ জন। ৩০ জুনের মধ্যে আইসিইউতে রোগীর সংখ্যা ২৮৮ এবং ভেন্টিলেশনে রয়েছেন ১৫৮ জন।

পহেলা জুলাই টেক্সাসে হাসপাতালে থাকা রোগীর সংখ্যা ৬ হাজার ৯০৪ জন বলে জানানো হয়েছে। এই রাজ্যে এক সপ্তাহে করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়েছে আড়াই হাজারের বেশি। অথচ গত মে মাসে রাজ্যে ১ হাজার ৮৮৮ জন করোনা রোগী হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন, যা ছিল ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর সর্বোচ্চ।

লস অ্যাঞ্জেলস  কাউন্টির স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের পরিচালক ডা.ক্রিশ্চিনা গ্যালি জানিয়েছেন, চলতি সপ্তাহে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। শিগগিরই হয়তো হাসপাতালে ভর্তি হওয়া প্রয়োজন এমন রোগীদের জন্য কোনো বেড পাওয়া যাবে না।

তিনি জানান, জেলায় চার সপ্তাহ চালানোর মতো ভেন্টিলেটর রয়েছে। রোগীর অবস্থাদৃষ্টে ধারণা করা হচ্ছে, এখানে মৃতের সংখ্যা বাড়বে।

মায়ামির জ্যাকসন হেলথ সিস্টেম হাসপাতালে করোনা রোগীদের সামাল দিতে জরুরি নয় এমন সব ধরনের সার্জারি স্থগিত রাখা হয়েছে। একই ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে টেক্সাসে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!