1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০, ১০:২২ পূর্বাহ্ন

যোগানিয়ায় চাল আত্মসাতের ঘটনায় মামলা, জড়িত জনপ্রতিনিধিরা ধরাছোয়ার বাইরে

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০
  • ৪৬ বার পড়া হয়েছে

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : নালিতাবাড়ীর যোগানিয়া ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধি কর্তৃক স্পেশাল ভিজিএফ এর চাল আত্মসাতের ঘটনায় জড়িত জনপ্রতিনিধিদের বাইরে রেখে মামলা দায়ের করা হয়েছে আত্মসাতকৃত চাল ক্রেতাদের বিরুদ্ধে।
জানা গেছে, গতকাল বুধবার (২৯ জুলাই) ঈদুল আযহা উপলক্ষে স্পেশাল ভিজিএফ এর চাল দুস্থদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণকালে কাপাসিয়া এলাকায় স্থানীয় লোকজন পাচারকৃত দশ বস্তা চাল আটক করে। একই সময়ে ওই চাল ক্রেতা ছাদেক আলী, চাঁন মিয়া ও মোতালেবকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দেয়। জিজ্ঞাসাবাদকালে জানা যায় সংরক্ষিত আসনের মহিলা ইউপি সদস্য লাভলী বেগমের স্বামী আবু বক্কর সিদ্দিক বাক্কার বাইরে ভিজিএফ এর স্লিপ কালোবাজারে বিক্রি করে দেয়।
এছাড়াও বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে এলাকাবাসী কর্তৃক চালের বস্তা আটকের ঘটনায় পর্যায়ক্রমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে পাঁচটার দিকে স্থানীয় চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) আমীর হোসেনসহ অন্যান্য সদস্যরা দ্রুত চাল বিতরণ বন্ধ করে সাড়ে ২৯ বস্তা চাল স্টক রেখে সটকে পড়েন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অন্যান্য পরিষদে সকাল থেকে বেলা আড়াইটা অথবা বিকেল তিনটার মধ্যে যেখানে চাল বিতরণ শেষ হয় সেক্ষেত্রে পাঁচটা পর্যন্ত সাড়ে ২৯ বস্তা স্টক জনপ্রতিনিধিদের দূরভীসন্ধি বৈ কিছুই নয়। তথ্যমতে, ট্যাগ অফিসার হিসেবে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম চাল বিতরণে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তিনি অনুপস্থিত থাকায় জনপ্রতিনিধিরা এ সুযোগ নেন। জনপ্রতিনিধিরা আগে থেকেই বরাদ্দকৃত ১৪৪৭টি স্লিপের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক স্লিপ নিজেদের কাছে গোপনে রেখে তা কালোবাজারে বিক্রি করে দেন। পরবর্তীতে কালোবাজারে বিক্রিত স্লিপ অনুযায়ী চাল বাইরে পাচারকালে জনতার হাতে আটক হয়। সময়মতো আটক করতে না পারলে স্টকে থাকা বস্তাসমূহের মধ্যে অধিকাংশই পাচার হয়ে যেতো বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। অনুসন্ধানে আরও জানা গেছে, স্লিপ নিয়ে চাল উত্তোলনের জন্য টাকার বিনিময়ে মোতালেবকে চুক্তি করা হয় চাল পাচারের জন্য। সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) আমীর হোসেন, সদস্য আব্দুল হালিম, মস্তুফা কামাল, আব্দুর রশিদ ও জমশেদসহ অন্যান্যরা সিন্ডিকেট করে প্রতি স্লিপ ১৩০-১৪০ টাকা দরে বিক্রি করেছেন বলে তথ্য রয়েছে।
এদিকে বিষয়টি গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিকেলে চাল জব্দ করে রাতেই ছাদেক আলী, চাঁন মিয়া ও মোতালেবের বিরুদ্ধে নালিতাবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান। তবে পাচারকৃত চাল কালোবাজারে কেনার অপরাধে উল্লেখিতরা আসামী হলেও স্লিপ বিক্রেতা জনপ্রতিনিধি মামলায় অন্তর্ভূক্ত না হওয়ায় বিষয়টি প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। পাশাপাশি চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে চাল পাচারের ঘটনায় চেয়ারম্যান কোনভাবেই দায় এড়াতে পারেন না বলেও অভিযোগ স্থানীয়দের। এছাড়াও জনতার হাতে অসংখ্য স্লিপসহ আটক ছাদেক আলী ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আমীর হোসেনের ভায়রা বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। অভিযোগের তীর ট্যাগ অফিসারের দিকেও।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান জানিয়েছেন, প্রাথমিক তদন্তে যাদের নাম পাওয়া গেছে তাদের আসামী করা হয়েছে। তদন্তে বাকীটা বের হয়ে আসবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com