1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০৪:২০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

সংস্কার করা হয়নি বোরাঘাট নদীর বাঁধ, শংকায় কৃষক

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার : পাহাড়ি ঢলে বিধ্বস্ত ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটের বোরাঘাট নদীর বাঁধ দ্রুত সংস্কার না হওয়ায় শঙ্কায় পড়েছেন কৃষকরা। এমতাবস্থায় বিধ্বস্ত হওয়া বাঁধের ৫টি অংশ দ্রুত সংস্কারের দাবী এলাকাবাসীর।
গত ৫ সেপ্টেম্বর আকস্মিক পাহাড়ি ঢল ও অতিবৃষ্টিতে বোরাঘাট নদীর বাঁধের ৫টি অংশ ভেঙে যায়। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হয় বাড়িঘর ও ফসলি জমি। ১৮ দিন পেড়িয়ে গেলেও বাঁধের অংশগুলো সংস্কার না করায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা হতাশা প্রকাশ করেছেন।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, গাজিরভিটা ইউনিয়নের কালিয়ানিকান্দার পোনাকুড়ি গ্রামে ফসলি জমির ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ সবচেয়ে বেশি। বাঁধ ভেঙে পানির ¯্রােতের সাথে পর্যাপ্ত বালু রোপা-আমন ধানের জমিতে প্রবেশ করে। এতে ৫০ থেকে ৬০ একর জমির রোপা-আমনের ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়। বালু প্রবেশ করার ফলে ওইসব ফসলি জমির উর্বরতা নষ্ট হয়ে গেছে। তাই জমিগুলোতে ধান চাষ করা সম্ভব নয়। এ ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বাদাম চাষের বিষয়ে কৃষকদের পরামর্শ দিচ্ছে কৃষি অফিস।
কালিয়ানিকান্দা গ্রামের কৃষক ইন্তাজ আলী বলেন, আমি কিছুদিন আগে ৪ একর জমিতে আমন ধান রোপন করেছিলাম। কিন্তু বোরাঘাট নদীর বাঁধ ভেঙে আমার সকল জমিতে পানির সাথে বালু প্রবেশ করে জমি ফসল নষ্ট হয়ে গেছে।
পোনাকুড়ি গ্রামের কৃষক হেলাল বলেন, আমার আড়াই একর জমির ফসল বালিতে নষ্ট হয়েছে। আমার এই জমিতে আর ধান রোপন সম্ভব নয়। আমার মতো আরো অনেক কৃষকের জমি বাঁধের পানি ও বালু প্রবেশ করে নষ্ট হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে বাঁধ সংস্কার না করলে আবারও যদি পাহাড়ি ঢল আসে তাহলে ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ আরও বৃদ্ধি পাবে।
গাজিরভিটা ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন জানান, কালিয়ানিকান্দা ও পোনাকুড়ি গ্রাম ছাড়াও পাঁচটি অংশে বাঁধ ভেঙেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বিষয়টি বলেছি। তিনি আমাকে উপজেলা পরিষদের কাবিখা থেকে ৭ টন ও ১টন জিআর দিবেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু এটি সংস্কার করতে কমপক্ষে ২০ টন কাবিখার প্রয়োজন।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মাসুদুর রহমান জানান, ক্ষতিগ্রস্থ জমি পরিদর্শন করেছি। ফসলি জমিগুলোতে বালি প্রবেশ করে রোপন করা ধান নষ্ট হয়ে গেছে। এ ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আমরা কৃষকদের বাদাম চাষের পরামর্শ দিয়েছি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, উপজেলা পরিষদ থেকে ৭টন কাবিখা ও ১ টন জিআর এর ব্যবস্থা করে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে বাঁধ সংস্কারের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!