1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
  3. mehedihasanshakib06@gmail.com : mehedi sakib : mehedi sakib
শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৭:৩৫ অপরাহ্ন

শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দালাল চক্রের অত্যাচারে রোগীরা অতিষ্ঠ 

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০
যশোর : শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনের ওষুধের দোকানের দালাল চক্রের কারণে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে রোগী ও তাদের স্বজনেরা। অতিরিক্ত ওষুধের দাম মেটাতে তারা দিশেহারা হয়ে পড়ছে। দালালরা স্থানীয় হওয়ায় রোগীরা তাদের কাছে অসহায় হয়ে পড়ছে।
একাধিক সূত্র জানায়, শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে গড়ে উঠেছে ৯টি ওষুধের দোকান। যার অধিকাংশের ড্রাগ লাইসেন্স নেই। নেই কোন ফার্মাসিস্ট। আবার অধিকাংশ দোকানি লেখাপাড়ায় ৫ম শ্রেনী পার করেনি। যারা ওষুধের নাম ঠিকমত পড়তেই পারে না।
সূত্র জানায়, মুর্খ এসব ওষুধ ব্যবসায়ী নিজেদের মধ্যে সিরিয়ালের সিস্টেম করে নিয়েছে। দিনে একজন দোকানী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে আসা সমগ্র রোগীর ব্যবস্থাপত্র জোর করে ছিনিয়ে নিয়ে ওষুধ সরবরাহ করছে এবং তাদের জিম্মি করে ইচ্ছেমত দাম নিচ্ছে। তবে এ সব নিয়ে প্রায় প্রতিদিনই রোগীর স্বজনদের সাথে বাধছে ঝগড়া থেকে হাতাহাতি ঘটনা ঘটছে।
শার্শার গোড়পাড়া গ্রামের আজিজুর রহমান জানান, তিনি গত ২২ সেপ্টেম্বর শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। চিকিৎসক ব্যবস্থাপত্র দেওয়া মাত্রই আলাল ফার্মেসীর দালাল আসাদুল তাদের হাত থেকে সেটি ছিনিয়ে নেয় এবং প্রতিটি ওষুধ গ্রুপ পাল্টিয়ে অন্য ওষুধ সরবরাহ করেন। পরে ডিউটিরত নার্সের কথা মত ওষুধ পাল্টাতে গেলে আমার স্বজনদের লাঞ্চিত করে আলাল ও আসাদুল। একই ঘটনা ঘটে গত ২৩ সেপ্টেম্বর।
শার্শার শ্যামলাগাছী গ্রামের শিপন নামের এক রোগী শ্বাষকষ্ট নিয়ে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। এদিন সিরিয়াল ছিল হুমাইরা ফার্মেসীর দালাল স্বপনের। ওষুধের দাম ৭শ টাকা হলেও তাদের কাছ থেকে নেয়া হয় ১২শ টাকা। বিষয়টি নিয়ে রোগীর স্বজনদের সাথে দোকানীর কথা কাটাকাটি  হলেও এখনো টাকাটি ফেরত পায়নি তারা। উপরন্ত তাদেরকে হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে জানা যায়।
এ ব্যাপারে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনের বিসমিল্লাহ ফার্মেসীর মালিক হাসানুজ্জামান বলেন, এখানে অধিকাংশ ফার্মেসী মালিক লেখাপড়া জানে না। ডাক্তারের ব্যবস্থ্যাপত্র পড়ার মত ক্ষমতা তাদের নেই। তারপরেও তারা দেদার্ছে মানুষ ঠকিয়ে চলেছে। আবার অনেকের নেই ড্রাগ লাইসেন্স। নেই ফার্মাাসিস্টের অভিজ্ঞতা।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক কর্মকর্তা জানান, বহির্বিভাগে রোগী আসা মাত্রই ফার্মেসীগুলোর দালালরা হামলিয়ে পড়ে। রোগীর স্বজনদের কাছ থেকে ব্যবস্থ্যাপত্র কেড়ে নিয়ে তারা অধিক মূল্যে ওষুধ সরবরাহ করে। অন্য ফার্মেসী থেকে ওষুধ আনতে গেলে হতে হয় লাঞ্চিত।
এ ব্যাপারে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল‍্যাণ কর্মকর্তা ডাক্তার ইউসুফ জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!