1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
  3. mehedihasanshakib06@gmail.com : mehedi sakib : mehedi sakib
শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৭:২৪ পূর্বাহ্ন

মহিপুর রেঞ্জের বন উজাড় করছে বনদস্যুরা

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২০

রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : কলাপাড়ায় এবার বনদস্যুরা মহিপুর রেঞ্জের গঙ্গামতি বিটের বন উজাড় করছে দেদারছে। বনবিভাগের কিছু দুস্কৃতকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী ও একটি প্রভাবশালী কু-চক্রি মহল টাকার লোভে নিজেদের আখের গোছাতে মরিয়া হয়ে সুযোগ পেলেই রাতের আঁধারে বনের গাছ কেটে উজাড় করছে প্রতিনিয়তই।
বন্যা কবলিত কুয়াকাটাসহ উপকূলীয় এলাকার পরিবেশ বান্ধব শোভা বর্ধনকারী মহিপুরের অদুরে গঙ্গামতির বন বিভাগের বনাঞ্চল বনদস্যুদের কারণে এখন হুমকীর মুখে। গত ১২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার গভীর রাতেও ওই চক্রটি গঙ্গামতি বিটের বনাঞ্চল থেকে রাতের আঁধারে প্রায় অর্ধশত ঝাউ গাছ কেটে নিয়েছে।
সরেজমিনে গেলে চরগঙ্গামতি এলাকার ইসরাফিল ও নূর মোহাম্মাদ জানান, বৃহস্পতিবার রাতে তারা মাছ ধরার জন্য গেলে বনের মধ্যে গাছ কাটার শব্দ শুনে ঘটনাস্থলে যান। এসময় কতিপয় লোককে গাছ কাটতে দেখতে পান তারা। পরে গাছ কাটা সম্পর্কে জানতে চাইলে বনদস্যুরা ইসরাফিল ও নূর মোহাম্মাদ এর উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে দেশীয় অস্ত্র-দা, কাঁচি, ছেনা দিয়ে কোপাতে শুরু করে। বনদস্যুদের হামলার শিকার হয়ে কোনমতে দৌড়ে বাড়ি এসে প্রাণে বেঁচে যান তারা। বিষয়টি তাৎক্ষণিক বন বিভাগসহ স্থানীয়দের অবগত করা হয়। কর্তৃপক্ষ সেখানে পৌছানোর আগেই বনদস্যুরা পালিয়ে যায়।
গঙ্গামতি বিট কর্মকর্তা শহিদ উদ্দিন বলেন, গত ১২ নভেম্বর রাতের আঁধারে সংঘবদ্ধ একটি চক্র বনের মধ্য থেকে ঝাউ গাছ কেটে নিচ্ছে- এমন সংবাদ পেয়ে রাত ৩টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে বন উজাড়কারী কাউকে পাওয়া যায়নি। সেখানে গাছ কেটে নেয়ার ৩৮টি গাছের মোথা (গোড়া) পাওয়া গেছে। এরমধ্যে ৮টি কাটা গাছ পড়ে থাকা অবস্থায় পাওয়া গেছে। বাকী গাছগুলো বনদস্যুরা নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ১৪ জানুয়ারী রাতের আঁধারে ৩০টি গাছ কেটে নিলে বন বিভাগ পরিকল্পিতভাবে বনায়ন উজাড়ের অভিযোগে ১৭ জানুয়ারী তৎকালীন ওই বিটের কর্মকর্তা পারভেজ বন আইনে কলাপাড়া থানায় একটি মামলা করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে দ্বিতীয় দফায় ওই চক্র পূনরায় ২৭ জানুয়ারী একই পন্থায় ৩১টি গাজ কর্তন করেন। এখনও কুয়াকাটা সৈকতের গঙ্গামতি এলাকার সংরক্ষিত বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়ি বাঁধের বাইরে সৈকত লাগোয়া বনাঞ্চলের দিকে তাকালে বন উজাড়ের করুন পরিণতি দেখা যায়।
এ বিষয় ধূলাসার ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল আকন বলেন, এ অঞ্চলের বন আমাদের পরিবেশ রক্ষাসহ প্রলয়ংকারী সিডর ও আইলার মত ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় থেকে আমাদের রক্ষা করে থাকে। তাই এ বন যারা উজাড় করছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।
পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা)’র বরিশাল বিভাগীয় সমন্বয়কারী লিংকন বায়েন আক্ষেপ করে বলেন, এমনভাবে প্রাকৃতিক বনাঞ্চল উজাড় করলে এর মাশুল সকলের দিতে হবে। তিনি বলেন, অভিযোগ পেলে বেলা তদন্ত সাপেক্ষে আইনী ব্যবস্থা নেবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!