1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ০৮:১২ পূর্বাহ্ন

কলাপাড়ায় মানসিক ভারসাম্যহীদের জন্য যুবকের ভালোবাসা

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৪ মে, ২০২১

রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : কলাপাড়ার নাচনাপাড়া এলাকার বাসিন্দা মিন্টু। একজন ভূমিহীন অসহায় মানুষ। সাপ্লাই এন্ড সোসাইটির জমিতে মাটি ভাড়া দিয়ে একটা টিনসেট ঘর তুলে বসবাস করেন। বৃদ্ধ বাবা আজিজুল হক প্রায় শয্যাসায়ী। মা হালিমা খাতুনও বৃদ্ধা খানিক ভাল তো খানিক মন্দ। ছোট বেলা থেকে অভাব-অনটনে কাটে জীবন। যে বয়সে তার স্কুলে কাটানোর কথা সেই সময়টা কাটে মানুষের বাড়িতে গরু-মহিষের রাখাল হিসেবে।
সোমবার (৩ মে) দুপুরের দিকে কলাপাড়া ফেরিঘাটে এক মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলাকে ভাত খাইয়ে দিতে দেখা যায় মিন্টুকে। এ সময় তার সাথে ছিল জগন্নাথ আখড়াবাড়ি এলাকার তন্ময় কুন্ডু। নিজেদের দুঃখ-কষ্ট উপলব্ধি করে এ কাজে নেমেছেন তারা। ২০২০ সালের লকডাউন চলাকালে মানসিক ভারসাম্যহীনদের দু’বেলা খাবারের ব্যাবস্থা চালু করেন তারা। তারই ধারাবাহিকতায় এই সময়ে মানসিক ভারসাম্যহীনদের খাবারের ব্যাবস্থা চালু করেন তারা।
মো: মোজাম্মেল হক মিন্টু গণমাধ্যমকে জানান, পাগল-প্রতিবন্ধীরা বিধাতার সৃষ্টি রক্ত-মাংসে গড়া মানুষ। ওদেরও আছে দু’মুঠো খেয়েপড়ে বাঁচার অধিকার। লকডাউনে ওদের দিকে তাকানোর সময়ই কারো নেই। তবে ওরা কি খেয়ে বাঁচবে? এই বলে কেঁদে ফেলেন তিনি। ছোট বেলার কষ্টের কথাগুলো মনে পরে তার। যখন দেখেন কেউ রাস্তায় পড়ে থাকে অনাহারে তখন মোজাম্মেলের খুব কষ্ট হয়। তখনই ঠিক করেন তিনি যে বেতন পান তার এক ভাগ ব্যয় করবেন রাস্তায় যারা মানসিক প্রতিবন্ধী তাদের জন্য।
তিনি বলেন, অনেক আগে থেকেই আমি অসহায়দের প্রতিদিন এক বেলা খাবার দেই। তারপরও আমার মনে হয় মানুষিক রোগীদের জন্য এটা কম হয়ে যাচ্ছে। তাই ওদেরকে আমি গোসল করাই, চুল সেভ করে দেই, নখ কাটানো শুরু করি। মানুষের বাসার পুরনো কাপড়-চোপড় চেয়ে এনে ওদের পরিয়ে দেই। আর একবেলা খাবার দেই।
তিনি আরও বলেন, সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি যেনো এই কাজটি চালিয়ে যেতে পারি। অনেকে অনেক কথা বলে যা আমাকে চুপ করে হজম করতে হয়।
এদিকে মহামারী করোনা পরিস্থিতি বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ১ এপ্রিল থেকে বন্ধ রয়েছে কুয়াকাটা পর্যটনকেন্দ্র। এতে হোটেল-মোটেলসহ পর্যটন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এ সময় সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছে সৈকতের আশপাশে অবস্থান করা মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষ এবং কুকুর। এ উপলব্ধি থেকে এসব অসহায়দের পাশে দাড়িয়েছেন “কুয়াকাটা জন্মভূমি” নামের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। প্রতিদিন মানসিক ভারসাম্যহীন এবং কুকুরকে দু’বেলা খাবার দিচ্ছেন তারা।
কুয়াকাটা জন্মভূমি’র সভাপতি কেএম বাচ্চু সাংবাদিকদের বলেন, নিজস্ব এবং সংগৃহীত তহবিল থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন ২০-২৫ জনকে প্রতিদিন দু’বেলা খাবার দিয়ে যাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, অভুক্ত এই মানুষ এবং কুকুরগুলোর বেঁচে থাকার অধিকার রয়েছে। গত লকডাউন থেকে এই কার্যক্রম করছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।
ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েশন অব কুয়াকাটা (টোয়াক) সভাপতি রুম¥ান ইমতিয়াজ তুষার এ প্রতিবেদককে বলেন, কুয়াকাটা জন্মভূমি ক্লাবের এ কার্যক্রম অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার। তিনি আরও বলেন, সমাজের বিত্তবানদের এই কাজে এগিয়ে আসা প্রয়োজন।
কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসানাত মো: শহীদুল হক গণমাধ্যমকে জানান, তারা দু’জন মানবতার সেবায় নিয়োজিত। তাদের এই ভালো কাজে ইতিমধ্যেই উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খাদ্যসামগ্রীর ব্যাবস্থা করে দিয়েছি। ভবিষ্যতে এ ধরণের কাজে যারা এগিয়ে আসবে তাদের পাশে থাকবো ইনশাআল্লাহ।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!