1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

নকলায় সংযোগ অচল, ৭২টি টেলিফোন বিল সচল

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর, ২০২১

শফিউল আলম লাভলু: বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) এর সেবা না পেয়েও শেরপুরের নকলায় গ্রাহকদের প্রতি মাসেই গুনতে হচ্ছে টেলিফোন বিল। আড়াই বছরের বেশি সময় ধরে সেবা না পাওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন ব্যবহারকারীরা। দীর্ঘদিন ধরে বিটিসিএলের লাইনে কাজ না করায় অধিকাংশ তার নষ্ট হয়ে গেছে। জনবল সংকটের কারণে বিচ্ছিন্ন হওয়ায় পুনরায় সংযোগ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। অচল লাইনে বিল সচল থাকায় গ্রাহকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

নকলা বিটিসিএল অফিস সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলায় সরকারি অফিস ও ব্যক্তি মালিকানা মিলে প্রায় ৭২টি টেলিফোনের সংযোগ রয়েছে। সবগুলোই সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও অচল। প্রায় আড়াই বছর যাবৎ টেলিফোন অফিসেই কোন লাইন নেই। বিটিসিএল নকলা অফিসের কন্ট্রোল বন্ধ রয়েছে বলেও জানা যায়। সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকলেও নিয়মিত প্রতি মাসে সর্বনিম্ন ১৭৩ টাকা বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে অনেকেরই। আবার অনেকেরই বাকী রয়েছে অনেক টাকার বিল।

এদিকে যাদের টেলিফোনে সংযোগ রয়েছে কিন্তু সেবা পাচ্ছে না। তারা সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে সংশ্লিষ্ট মহলকে একাধিকবার বলা সত্ত্বেও কর্তৃপক্ষ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেনি। অথচ মাসের পর মাস বিল আসছে। ফলে গ্রাহকরা সেবা না পেয়েও বাধ্য হয়ে বিল পরিশোধ করছেন। এছাড়া অধিকাংশ গ্রাহক এখন আর বিটিসিএল যোগাযোগ করেন না। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নকলা অফিসে একজন অফিস স্টাফ রয়েছে। ভবনে টেলিফোন সংযোগে ব্যবহৃত তার ও ড্রাম এলোমেলোভাবে ফেলে রাখা হয়েছে। ভবনের অবস্থা খুবই বেহাল অবস্থা এবং জরাজীর্ণ। মাসের ৩০ দিনের মধ্যে ২০ দিনই বন্ধ থাকে অফিস। কোন লোকজনই পাওয়া যায় না নকলা বিটিসিএল অফিসে।

বিটিসিএলের নকলা অফিসরে লাইনম্যান আব্দুল রহিম বলেন, আড়াই বছর যাবৎ নকলা অফিসের লাইন নস্ট। আমাদের অফিসের টেলিফেনের লাইনই অচল আর বাকীগুলোর কথা কি বলব। আগে বিলের কাগজ দিতে গেলে গ্রাহকরা বলল লাইন দেন বিল দিব। তানা হলে আর বিল নিতে আসবেন না। কোন কোন গ্রাহকের কাছে বিল নিয়ে গেলে মারধরও করতে চায়। আমি শেরপুর অফিসে জানিয়েছি কিন্তু কোন সমাধান মিলছে না।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুর রশিদ ও সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন বলেন, আমাদের অফিসে টেলিফোনের লাইন অচল কিন্তু বিল সচল রয়েছে। প্রতি মাসের সর্বনিম্ন বিল বছরে দিতে হচ্ছে। সরকারি বিল কি আর করার, লাইন না থাকলেও আমাদের বাধ্য হয়ে দিতে হচ্ছে। টেলিফোন অফিসে বারবার বলার পরেও আমরা এর কোন সমাধান পাচ্ছি না।

নকলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুশফিকুর রহমান বলেন, নকলা থানা ও কোয়াটারের টেলিফোনের কোন সংযোগ নেই। আমি যোগদানের পর থেকে টেলিফোনে এক মিনিট কথাও বলতে পারি নি। তবুও বিল আসে প্রতি মাসে। টেলিফোনের সেবা নেই কিন্তু বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে।

উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) কাউছার আহাম্মেদ বলেন, আমি নকলায় যোগদানের পরেই দেখি আমার অফিসের টেলিফোনের লাইন অচল। বিষয়টি নকলা ও শেরপুর বিটিসিএল যোগাযোগ অফিসের বারবার যোগাযোগ করেও এর সমাধান পাইনি। সেবা সচ্ছল করে দেওয়া জন্য বারবার বলা হলেও কোনো কাজ হচ্ছে না।

এসব অনিয়ম অব্যবস্থাপনার বিষয়ে শেরপুর বিটিসিএলের জুনিয়র এ্যাসিস্টেন্ট ম্যানেজার বেলাল উদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, টেলিফোন লাইনটি গেছে আঞ্চলিক মহাসড়কের মাটির নিচ দিয়ে। মহাসড়কের উন্নতির কাজ করায় অনেক জায়গাতে সংযোগ তার ছিড়ে গেছে। এজন্যই লাইন অচল হয়েছে। তবে কোন গ্রাহক যদি লিখিত আবেদন দিয়ে লাইন বন্ধ করে তাহলে তার আর বিল হবে না। লাইন বন্ধ না করার কারনে সর্বনিম্ন বিল আসতেছে। মহাসড়কের কাজ শুরু হইছে এক বৎসর যাবৎ কিন্তু লাইন অচল আড়াই বছর যাবৎ এমন প্রশ্ন করলে কোন সদ উত্তর পাওয়া যায়নি।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ মো. বোরহান উদ্দিন বলেন, পরিষদের টেলিফোন সংযোগ নিয়ে বড় একটা সমস্যায় আছি। বিভিন্ন দপ্তরসহ ঢাকা থেকে অনেই ফোন করে কিন্ত পায় না। টেলিফোন নাম্বারটা হল অনেক আগের এবং পুরাতন। মন্ত্রনালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে এই নাম্বারটা জানেন। আমার টেবিলে শো-পিসের মতন রয়েছে টেলিফোন সেট। এর কোন কার্যকরিতা নেই। প্রতিমাসে বিল আসে কিন্তু এক মিনিটও কথা বলতে পারি না। কর্তৃপক্ষকে অফিসিয়াল ভাবে জানানো হইছে কিন্তু এর কোন প্রতিকার পাইনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমি বিষয়টি জানতাম না। অল্প কয়েকদিন যাবৎ নকলায় যোগদান করেছি। আমার অফিসের লাইনও অচল। আমাদের উর্ধতন কর্তৃপক্ষও অনেক সময় টেলিফোনে ফোন দেয়। কিন্তু অচল থাকার কারনে পায় না। এটার আমাদের জন্যও একটি বড় সমস্যা। আমি বিটিসিএল এর কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে দেখি কেন এমন হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!