1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
নালিতাবাড়ীতে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করায় যুবক গ্রেফতার নীলফামারীতে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশন এর উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ ডোমারে ৭০ পিচ টাপেন্টাডল ট্যাবলেটসহ ২ যুবক গ্রেফতার নীলফামারীতে “এক্সেল রোড কন্ট্রোল স্টেশন” স্থাপনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  বান্দরবানে সেনাবাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে কেএনএফ সন্ত্রাসী নিহত রুমায় কেএনএফ আতঙ্কে বাড়ি ছাড়ছেন গ্রামবাসী বান্দরবানে বিস্তীর্ণ মাঠ জুড়ে সরিষার আবাদ নিপাহ ভাইরাসে মারা গেছেন ৫ জন, আক্রান্ত ৮: স্বাস্থ্যমন্ত্রী সরকারকে বিদ্যুৎ, গ্যাস ও তেলের দাম বাড়ানোর ক্ষমতা দিয়ে বিল পাস শর্ত সাপেক্ষে হিন্দি সিনেমা আমদানির পক্ষে: নিপুণ

কুয়াকাটায় দেশী-বিদেশী পর্যটকদের প্রিয় খাবার ফিস ফ্রাই

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২২

রাসেল কবীর মুরাদ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : সাগর কন্যা খ্যাত কুয়াকাটায় পর্যটকদের প্রতি রাতের সেরা আকর্ষণ ফিস ফ্রাই মার্কেট। দেশ-বিদেশ থেকে আগত পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে থাকে এ মার্কেট। পর্যটকরা ঘোরাঘুরি করে দিনশেষে সন্ধ্যা নামলেই সৈকতে নামেন প্রশান্তির খোঁজে। কুয়াকাটা সৈকতের জিরো পয়েন্ট থেকে পূর্ব-পশ্চিম দিকে দেখা যায় শত শত দোকান। দেখে মনে হয়, এ যেন বিভিন্ন প্রজাতির সামুদ্রিক মাছের সমন্বয়ে বিশাল এক মাছের বাজার। এছাড়াও কুয়াকাটার সিকদার রিসোর্ট, গ্রেভার ইন, সি-ক্রাউন, ইলিশ পার্কসহ কয়েকটি আবাসিক হোটেলে ফিস ফ্রাই পাওয়া যায়।

মঙ্গলবার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি দোকানে সাজানো-গোছানো রয়েছে টোনা মাছ, কোড়াল, পোঁয়া, লাইট্টা, বগনি, মাইট্যা, তাইড়্যা, ভোল, রূপসা, লাক্কা, রূপচাঁদাসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। এছাড়াও বিভিন্ন প্রজাতির জেলিফিশ, শাপলা পাতা, অক্টোপাস, চিংড়ি, কাঁকড়া এবং আরো নাম না জানা বৈচিত্র্যময় সামুদ্রিক প্রাণী।
পর্যটকরা রাতের সৈকতে বসে কাঁকড়া এবং বিভিন্ন ধরনের ফিসফ্রাই এবং বারবিকিউর স্বাদ নিতে দোকানগুলোতে ভীড় জমাচ্ছেন। প্রিয় এবং পছন্দের মাছটি কিনে দিলে দোকানিরা চাহিদা অনুযায়ী ফ্রাই অথবা কড়াইয়ে করে বারবিকিউ করে সামনে এনে দেন। প্রয়োজন অনুযায়ী সস, সালাদ, ড্রিংক এমনকি গরম পরোটা দিয়ে আরাম করে বসে ভোজন-বিলাস করে থাকেন দেশী-বিদেশী পর্যটকরা।

খুলনা থেকে ঘুরতে আসা পর্যটক সিমা-জুম্মন দম্পতি জানান, কুয়াকাটায় যখনই ঘুরতে আসি তখনই ফ্রাই না খেলে মনে হয় কি যেনো কিছু একটা মিস করছি। তাই সারাদিন ঘুরেফিরে সন্ধ্যার পর প্রথমেই মাছ খাওয়ার পর্বটি সেড়ে নেই। এখানে সামুদ্রিক তাজা মাছ পাওয়া যায়। পরিবারের সদস্যদের যার যা পছন্দ সবই পাচ্ছি, সবাই ফিসফ্রাই খেয়ে অনেক আনন্দ উপভোগ করেছি।

ফ্রাই মার্কেটের ভিস বিক্রেতা সাজাহান মুন্সী বলেন, এ বাজারের প্রতিটি চিংড়ি ৫০ থেকে ৫০০, কাঁকড়া ৫০ থেকে ১৫০ টাকা, রূপসা ১০০ থেকে ৫০০, রূপচাঁদা ১০০ থেকে ৫০০ টাকা, স্যালমন ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা, কোরাল ৫০০ থেকে ২ হাজার টাকা, লাক্কা ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা, লইট্টা ৩০ থেকে ৫০ টাকা, ইলিশ ১০০ থেকে ৫০০ টাকা, টুনা ২০০ থেকে ১ হাজার টাকা, অক্টোপাস ২০০ থেকে ৫০০ টাকা, স্কুইট ৫০ থেকে ৫০০ টাকা, বাসপাতা ১০০ থেকে ২০০ টাকা, শাপলাপাতা ৫০ থেকে ১০০ টাকা, সামুদ্রিক রুই ২০০ থেকে ৫০০ টাকা, খটটা ৩০০ থেকে ১ হাজার টাতা পর্যন্ত বিক্রি হয়। তবে মৌসুম ভিত্তিক আরও বিভিন্ন মাছের দেখা মিলে। সেই সাথে দামেরও কিছুটা উনিশ-বিশ হয়।

মার্কেটের নামের আরেক দোকানি ইউসুফ প্যাদা জানান, বিশেষ করে দক্ষিণাঞ্চলের পদ্মা সেতু ও পায়রা সেতু খুলে দেওয়ায় এই শীত মৌসুমে পর্যটকদের ভীড় ক্রমশই বাড়ছে। তাই এ মৌসুমে আমরা আরো বেশকিছু মাছের সংগ্রহ বাড়িয়েছি। এখন অনেক পর্যটক আসে সন্ধ্যা নামার পরই। সামুদ্রিক মাছের দাম আগের তুলনায় একটু বেশী। তাই দাম একটু বেশি নিতে হচ্ছে। আমরা এখন বেশ খুশি অনেক পর্যটক পাওয়ায়। আমরা চেষ্টা করছি তাদের পছন্দের সামুদ্রিক মাছগুলোকে খাওয়ানোর।

ট্যুর অপারেটরস এসোসিয়েশন অব কুয়াকাটা (টোয়াক)-এর সদস্য আবুল হোসেন রাজু বলেন, কুয়াকাটায় ঘুরতে আসা পর্যটকদের সময় কাটানো ও সামুদ্রিক মাছের বিভিন্ন স্বাদ গ্রহণের অন্যতম জায়গা হলো এখন ফ্রাই মার্কেট। কুয়াকাটায় প্রায় ১০০ দোকান রয়েছে। যেখানে পর্যটকরা প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সময় কাটান। সামুদ্রিক তাজা মাছ পেয়ে পর্যটকরা ব্যাপক খুশি।

কুয়াকাটা ইলিশ পার্কের পরিচালক রুমান ইমতিয়াজ তুষার জানান, মৌসুমের শুরুতেই অনেক পর্যটকের আগমন দেখে আমারা খুশি। আমাদের এখানে সবসময়ই পর্যটকদের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন রকমের ফিস ফ্রাই পাওয়া যায়।

কুয়াকাটা পৌর মেয়র আনোয়ার হোসেন হাওলাদার জানায়, কুয়াকাটায় ঘুরতে আসা দেশী-বিদেশী পর্যটকদের অন্যতম ও শ্রেষ্ঠ আকর্ষণ রাতের ফিস ফ্রাই। পর্যটকদের নিরাপত্তা এবং খাবারের দাম-মান অক্ষুন্ন রাখতে ও সার্বিক দায়িত্ব পালনে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করে থাকি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!