1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
নালিতাবাড়ীতে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করায় যুবক গ্রেফতার নীলফামারীতে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশন এর উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ ডোমারে ৭০ পিচ টাপেন্টাডল ট্যাবলেটসহ ২ যুবক গ্রেফতার নীলফামারীতে “এক্সেল রোড কন্ট্রোল স্টেশন” স্থাপনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  বান্দরবানে সেনাবাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে কেএনএফ সন্ত্রাসী নিহত রুমায় কেএনএফ আতঙ্কে বাড়ি ছাড়ছেন গ্রামবাসী বান্দরবানে বিস্তীর্ণ মাঠ জুড়ে সরিষার আবাদ নিপাহ ভাইরাসে মারা গেছেন ৫ জন, আক্রান্ত ৮: স্বাস্থ্যমন্ত্রী সরকারকে বিদ্যুৎ, গ্যাস ও তেলের দাম বাড়ানোর ক্ষমতা দিয়ে বিল পাস শর্ত সাপেক্ষে হিন্দি সিনেমা আমদানির পক্ষে: নিপুণ

কুয়াকাটা সৈকতে যত্রতত্র পলিথিন-প্লাস্টিকে পরিবেশ দূষণ

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২৩

রাসেল কবির মুরাদ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : কুয়াকাটা সৈকতের জিরো পয়েন্টের পূর্ব-পশ্চিমে এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে প্লাস্টিকের বোতল, পলিথিন ও ডাবের খোসা। এসব ময়লা-আবর্জনায় পর্যটকদের চোখে মেুখে লক্ষ্য করা গেছে বিরক্তির ছাপ। প্রতিনিয়ত সৈকত পরিচ্ছন্ন না করা এবং কিছু অসচেতন পর্যটকদের ফলেই সৈকতের এমন অবস্থা হয়েছে বলে দাবি পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের।

গত মঙ্গলবার সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ইট-পাথরের পরিবেশ থেকে নিজেদের একটু প্রশান্তি দিতে সমুদ্র ও পাহার বেষ্টিত পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে সুন্দর প্রকৃতি ও পরিবেশের খোঁজে ভ্রমণ করেন পর্যটকরা। তেমনই একটি পর্যটন কেন্দ্র সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের লীলাভূমি কুয়াকাটা সৈকত। এখানে এসে পর্যটন স্পটগুলো দেখে মুগ্ধ হয়েছে তারা। তবে এই সমুদ্র সৈকতের যত্রতত্র ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে পলিথিন আর প্লাস্টিক। এতে শুধু সমুদ্র সৈকতের পরিবেশই নষ্ট হচ্ছে না সাথে সাথে সমুদ্র সৈকত এলাকার জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে পড়েছে।

খুলনা থেকে আসা পর্যটক রিয়া-বাদশা দম্পত্তি বলেন, কুয়াকাটা এতো সুন্দর একটি জায়গা সবকিছুই বেশ ভালো লেগেছে। তবে কুয়াকাটা সৈকতে অনেক প্লাস্টিক বর্জ্য যেগুলো আমরা অনেকটা বিরক্ত হয়েছি। অবশ্যই এগুলো পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন না রাখলে আমরা স্বাচ্ছন্দ্যভাবে ভ্রমণ করতে পারব না।

বগুড়া থেকে আসা পর্যটক ইমরান সরকার জানান, আমরা বন্ধুরা মিলে কুয়াকাটায় এসেছি। এখানের পরিবেশটা অনেক সুন্দর। তবে সৈকতে পড়ে থাকা ময়লা আবর্জনা পরিবেশটা বিনষ্ট করছে। মূলত আমরা যারা ভ্রমনে আসি অনেকসময় তারাই সৈকতটাকে অপরিস্কার করে ফেলি। সবাই একটু সচেতন হলে সৈকতে এই দূরাবস্থা থাকতো না। তবে আমরা বন্ধুরা মিলে কিছু পলিথিন ও প্লাস্টিক কুড়িয়ে ডাস্টবিনে ফেলেছি। তাই সবাইকে এই সৈকত এলাকায় পলিথিন ও প্লাস্টিক না ফেলার অনুরোধ জানাচ্ছি।

কুয়াকাটা ট্যুর অপারেটরস এসোসিয়েশনের সভাপতি রুমান ইমতিয়াজ তুষার জানান, সৈকতকে পরিস্কার রাখার জন্য আমরা ১০-১২টি পেশার ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন সময় বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের মাধ্যমে ট্রেনিং করিয়েছি। এছাড়াও টোয়াকের উদ্যোগে প্রায় দুইশত ময়লা রাখার ডাস্টবিন বিভিন্ন পয়েন্টে দেয়া হয়েছে। তবে সরকার যদি আরো একটু খেয়াল দিতো তাহলে সৈকত সব সময় পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা সম্ভব হতো।

কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশ জোনের সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল খালেক জানান, সৈকতে যেন ময়লা না ফেলা হয় সে জন্য আমরা বারবার মাইকিং করে সতর্ক করছি। প্রতি সপ্তাহে একবার আমাদের উদ্যোগে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালাই।

তিনি বলেন, পৌরসভা কর্তৃপক্ষ যদি সবসময় লোক নিয়োজিত রাখে তাহলে সবসময়ই সৈকত পরিচ্ছন্ন রাখা সম্ভব।

কুয়াকাটা পৌর মেয়র আনোয়ার হাওলাদার বলেন, কুয়াকাটা সৈকতকে পরিস্কার রাখার জন্য পৌরসভা ও আমি ব্যক্তিগত ও সার্বিকভাবে কাজ করছি। আমাদের কয়েকটি টিম সকাল-বিকেল ময়লা পরিস্কার করছে। তবে কিছু অসচেতন পর্যটক ও ব্যবসায়ীদের কারনে এই সমস্যাটা মাঝে মাঝে হয়।

কুয়াকাটা বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য সচিব ও কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শংকর চন্দ্র বৈদ্য জানান, কুয়াকাটা সৈকতে যত্রতত্র ময়লাগুলোকে পরিস্কার এবং সার্বিক উন্নয়ন নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হয়েছে আমরা শীঘ্রই ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!