1. admin@banglarkagoj.net : admin :
শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০৯:৫৬ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১৬ মার্চ, ২০২০
  • ১০ বার পড়া হয়েছে

– তামান্না মাহমুদ মনীষা –

সূচনা: সিন্ধুনদ উপত্যকায় সে সভ্যতা বিলীন হলো তার পরবর্তী হরপ্পা মহেঞ্জোদারো আর পাহাড়পুর সভ্যতার মধ্যেই লুকিয়ে আছে বাঙালির প্রাচীন সব ঐতিহ্যিক উপাদান। কিন্তু বড় দুর্ভাগা বাঙালি জাতির এত প্রাচীন ঐতিহ্য থাকা সত্ত্বেও সুদীর্ঘ শত-সহস্র বছর পরাধীনতার শৃঙ্খলে আটকা পড়েছিল জীবন। নদী মেঘলা সবুজ জন্মভূমি থেকে এহেন মুহুর্তে উঠে এলেন এক মহান কীর্তিমান পুরুষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বাংলাদেশের কথা বলতে গিয়ে অনিবার্যভাবে এসে যায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের কথা। প্রায় বারশ’ বছর পর বাঙালি জাতির পুর্নজন্ম হয়েছে এবং হাজার বছর পর বাংলাদেশ এমন নেতা পেয়েছে যিনি রক্তে বর্ণে-রঙে, ভাষায় এবং জাতির বিচারে প্রকৃতই একজন খাঁটি বাঙালি। এদেশের মাটি ও ইতিহাস থেকে তাঁর সৃষ্টি এবং তিনি বাঙালি জাতির স্রষ্টা।
জন্ম ও শিক্ষা জীবন: বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম শেখ লুৎফর রহমান ও মাতার নাম মোসাম্মৎ সায়রা বেগম। ছয় ভাই বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়। বাবা-মা ডাকতেন খোকা বলে। খোকার শৈশবকাল কাটত টুঙ্গিপাড়ার শান্ত ¯িœগ্ধ পল্লী প্রান্তরে।
সাত বছর বয়সে টুঙ্গিপাড়ার গিমাডাঙ্গো প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শেখ মুজিবুর রহমানের শিক্ষা জীবন শুরু হয়। নয় বছর সয়সে গোপালগঞ্জ পাবলিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হন। পরে তিনি স্থানীয় মিশনারী বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। বার বছর বয়সে চোখের কঠিন অসুখে আক্রান্ত হন। ফলে চার বছর শিক্ষা জীবন ব্যাহত হয়। ১৯৪২ সালে তিনি এন্ট্রান্স পাশ করেন। তারপর কলকাতা ইসলামিয়া কলেজে মানবিক বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৪৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে ভর্তি হন। কিন্তু রাজনৈতিক কারণে তার আর আইন পড়া হয়নি। ১৮ বছর বয়সে তিনি বেগম ফজিলাতুন্নেসার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তার দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা এবং তিন পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শেখ রাসেল।
রাজনৈতিক জীবন: ১৯৩৯ সালে অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শেরেবাংলা একে ফজলুল হক এবং হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী গোপালগঞ্জ মিশনারী বিদ্যালয় পরিদর্শনে এলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্কুলের ছাদের পানিপড়া রোধ ও ছাত্রাবাসের দাবী তাদের সামনে তুলে ধরেন। ১৯৪০ সালে বঙ্গবন্ধু নিখিল ভারত মুসলিম ছাত্র ফেডারেশনে যোগ দেন এবং এক বছরের মধ্যে বেঙ্গল মুসলিম ছাত্র ফেডারেশনের কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। এ বছরই তিনি গোপালগঞ্জ ডিফেন্স কমিটির সেক্রেটারী নির্বাচিত হন। ১৯৪৩ সালে সক্রিয় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ইসলামিয়া কলেজে অধ্যয়নকালে তিনি বিভিন্ন ছাত্র আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। ১৯৪৮ সালে তিনি মুসলিম ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। এ বছরই ঢাকা বিশ্বিবিদ্যালয়ে ছাত্র ধর্মঘট ডাকার কারণে তাকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়। পাকিস্তানের গভর্ণর জেনারেল কায়েদ-ই-আজম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ১৯৪৮ সালে উর্দুকে একমাত্র রাষ্ট্রভাষা করার ঘোষণা দিলে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ছাত্রসমাজ তীব্র প্রতিবাদের ঝড় তোলে। ফলে তাকে দু’বছর জেলে থাকতে হয়। জেলখানায় থেকেই ভাষা আন্দোলনের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেন ও ভাষা আন্দোলনকারীদের উৎসাহ দেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫৪ সালে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের টিকিটে গোপালগঞ্জ আসনে নির্বাচিত হন এবং একই বছর প্রাদেশিক সরকারের মন্ত্রী নিযুক্ত হন। পরবর্তীকালে পাকিস্তান সরকার পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক সরকার বাতিল করে। বঙ্গবন্ধু গ্রেপ্তার হন। ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানে আইয়ুব খান সামরিক আইন জারি করে। ফলে পূর্ব বাংলায় রাজনৈতিক আসন্তোষ বেড়ে যায়। দীর্ঘ এগার বছর সামরিক শাসন চলে। ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধু ‘ছয়দফা’ কর্মসূচি পেশ করেন। ১৯৬৯ সালে মিথ্যা আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার মাধ্যমে পাকিস্তান সরকার শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে বিচারের নামে প্রহসন করতে থাকে। তখন সারা বাংলায় ছাত্র জনতার তীব্র গণ অভুত্থানের কারণে সরকার তাকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় এবং সে বছরই তাকে বঙ্গবন্ধু উপাধিতে ভূষিত করা হয়। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ নিরংকুশ সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জন করে। পাকিস্তান সরকারের সিংহাসন কেঁপে উঠে। আবার তারা যড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়।
যে ভাষণে বাংলাদেশ (ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ): ‘সবদিন নয়, কালপৃষ্ঠে কোনোদিন বরমাল্য পরে অসারতা ইতিহাসে-পুরাণে’। তাকে বলি শুভদিন, স্মৃতি উজ্জল দিন ‘মাঝে মাঝে তব দেখা পাই’ বিরল ভুবনে। সেই বিরল রাগিনীর দিন, বসন্তের দিন, নক্ষত্রখচিত দিনে বাঙালির সব পথ এসে মিশেছিল রেসকোর্স ময়দানে। সেদিন সব কোকিল এসে জড়ো হয়েছিল ময়দানের আকাশে, আকাশও নেমে এসছিল সন্নিকটে, সমস্ত গোলাপ, চামেলী, বেলী তাকিয়ে ছিল মঞ্চের দিকে, প্রান্তরের সমস্ত ঘাস বাহু মেলে অস্থির ছিল সম্ভাষণে, বাতাসের আঁচল বরণের ভঙ্গিতে ছিল প্রস্তুত। সব কিছু অনুকূলে ছিল মানুষ, প্রকৃতি ও পরিবেশও। বিটোফেনের চন্দ্রালোকিত গীতির মূর্ছনার মতো সেই ক্ষণকে টাইটানিক উল্লাসে ভাসিয়ে দিয়ে শেখ মজিব এসে দাঁড়ালেন মঞ্চেরে মাঝখানে। বেজে উঠল খোলা-করতাল-দামামা বর্জ্রনির্ঘোষে। সেদিনের ১৯ মিনিটের বিকেলটা ছিল শুধু তাঁর। কোন দৃশ্য ছিল না তাঁর দৃশ্য ছাড়া। সেদিন তিনিই ছিলেন বাংলার দিনমনি-অংশুমালী। এই দিনেই জন্ম হবে মুক্ত পাখির মতো চার অক্ষরের অবিনাশী শব্দ ‘স্বাধীনতা’র। বঙ্গবন্ধু মাত্র আট সেকেন্ডের ঘোষণায় শুরু হয় বাংলাদেশের স্বাধিনতা সংগ্রাম- ‘এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। মাত্র ১৯ মিনিটের একটা ভাষণে ৭ কোটি বাঙালির মনের মণিকোঠায় ছবি হয়ে গেলেন শেখ মুজিব। গড়ে উঠল দুর্বার ঐক্য, গড়ে উঠল সংগ্রামী চেতনা, তৈরি হলো জীবন উৎসর্গের প্রেরণা। সেই থেকে বাঙালির সব পথ স্বাধীনতার দিকে প্রবাহিত। দীক্ষিত বাঙালি পাড়ি জমালো স্বাধীনতা সংগ্রামের পথে। এখানেই ভাষণের সার্থকতা সংগ্রামের পথে। এখানেই ভাষণের সার্থকতা, সাত্ত্বিকাতা।
পাকিস্তানী চক্রান্ত: ৭ই মার্চের ভাষণের পর বাঙালি জাতি শেখ মুজিবের আদেশ, তাঁর আঙ্গুলি নির্দেশ, তাঁর বত্রিশ নম্বর বাড়ির আদেশকে রাষ্ট্রীয় আদেশ বলে মনে করে পালন করতে লাগল। ইয়াহিয়া খান ঢাকায় এলেন বঙ্গবন্ধুর সাথে আলোচনা করার জন্য। একের পর এক বৈঠক করতে লাগলেন। একই সঙ্গে আলোচনার জন্য ভূট্রোও এলেন। আলোচনার আড়ালে পাকিস্তানী সৈন্য আসতে শুরু করল। ২৪ মার্চ পর্যন্ত ত্রিপক্ষীয় আলোচনা চলতে থাকল। ২৫ মার্চ আলোচনা ব্যর্থ হবার পর সন্ধ্যায় তিনি ঢাকা ত্যাগ করলেন। ইয়াহিয়া খান স্বশরীরে ঢাকায় থেকে বুঝে গেছেন এই শহরের সবটুকুর নিয়ন্ত্রন এখন বাঙালিদের হাতে। তিনি নগর ত্যাগ করার পরই তার অনুগত সেনা বাহিনী পথে নেমে এল। রাত ১০টায় ‘অপারেশন সার্চ লাইট’ নামে ঝাঁপিয়ে পড়ল বাঙালি নিধনে। ওরা আক্রমণ করল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, পিলখানা ইস্ট পাকিস্তান রাইফেল (ইপিআর) সদর দফতর ও রাজারবাগ পুলিশ লাইন। বিশ্ববাসী অবাক বিস্ময়ে দেখল নিরস্ত্র জনগণের উপর সেনাবাহিনীর বর্বরতা।
স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা: পাক সেনার বর্বরতম আক্রমণের মুখে দলেন নেতা ও ঘনিষ্ঠজনেরা তাকে পালিয়ে যাবার নির্দেশ দিলেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু তখন জয় করে ফেলেছেন মৃত্যুকে। যে স্বপ্ন নিয়ে দেশের আনাচে-কানাচে ঘুরে বেড়িয়েছেন, মানুষকে উজ্জীবিত করেছেন সে কাজতো তাকেই করতে হবে। তাই নেতা হিসেবে ২৫ মার্চ রাত ১২টার পর স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিলেন তিনি।
“এটাই হয়তো আমার শেষ বার্তা।
আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন।
বাংলাদেশের মানুষ যে যেখানে আছেন,
আপনাদের যা কিছু আছে তাই দিয়ে সেনাবাহিনীর দখলদারীত্ব মোকাবিলা করার জন্য আমি আহ্বান জানাচ্ছি। পাকিস্তানী দখলদার বাহিনীর শেষ সৈন্যটিকে বাংলাদেশের মাটি থেকে উৎখাত করা এবং চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আপনাদের সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে”। (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর)
পাকিস্তানী সেনাবাহিনী মধ্যরাতে তাকে আটক করে ঢাকা সেনানিবাসে নিয়ে আসে। ধীর স্থির মুজিব যুদ্ধের আহ্বান জানিয়ে বাঙালিকে বাঁচানোর জন্য বাঘের খাঁচায় প্রবেশ করে। অনেকে বলার চেষ্টা করেন, তিনি পালিয়ে যেতে পারতেন। পুরো ব্যাপারটাই ভ্রান্তিকর। তাকে পালিয়ে ভারতে আশ্রয় নিতে হতো, সেক্ষেত্রে তাকে ভারতের চর হিসেবে উপস্থাপন কর সহজ হতো। নিজের জীবনকে বাজি রেখেছেন কিন্তু পাকিস্তানিদের কথায় কান দেননি। যুদ্ধের মাঠে বন্ধি নেতার উপস্থিতি এক বিশেষ প্রাণোদনা আর আবেগের সৃষ্টি করেছিল লাখো যোদ্ধাদের হৃদয়ে। পরবতৃী কালে এক সাক্ষাৎকারে মুজিব বলেছেন- বন্দী অবস্থায় মনে হতো আমাকে ওরর মেরে ফেলবে। কিন্তু আমি জানি আমার কবরের উপর দিয়েই সৃষ্টি হবে বাঙালির একটি স্বাধীন বাংলাদেশ।
অমর বিজয়গাঁথা: বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে ১৯৭১ -এর মার্চ থেকে ডিসেম্বর এই দীর্ঘ নয় মাস পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরীহ বাঙালির উপর চালিয়েছে অকথ্য, অসহনীয়, নির্মম অত্যাচার, করেছে লুটপাট আর লাখ লাখ ঘর-বাড়ি জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিয়েছে। অমানবিকভাবে হত্যা করেছে ত্রিশ লাখ নিরীহ নারী-পুরুষকে। সম্ভ্রমহানি করেছে অসংখ্য নারীর। তবুও স্বাধীনতার অগ্নিমশাল ধারণ করে বুকে, বীর বাঙালি অস্ত্র হাতে নিয়ে বিরামহীন লড়াই করেছে হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে। শত্রুমুক্ত করে স্বাধীন করেছে আমাদের বাংলাদেশ। তাই লাখো শহীদের রক্তে রঞ্জিত এদেশের প্রতিটি ধূলিকণা। কবির ভাষায়Ñ
“দেশের জন্য লাখো মানুষ জীবন দিল হেসে
দীর্ঘ ন’মাস যুদ্ধ হলো বিজয় এলো শেষে।
মুক্তি সেনার স্বপ্ন সাধ সফল হলো পরে
বিজয় এলো একাত্তারের ষোলই ডিসেম্বরে”।
বিশ্ব জনমতের চাপে স্বৈরাচার পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দিতে বাধ্য হল। ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি তিনি বাংলার মাটিতে পা রাখেন। সে বছরই তিনি প্রধানমন্ত্রীত্ব গ্রহণ করেন।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও তাঁর স্বীকৃতি: প্রাচীন যুগ হতে বাঙালি স্বাধীন আবাসভূমি গড়ার স্বপ্ন পূরণ হলো শ্রেষ্ঠ বাঙালি শেখ মুজিবের সংগ্রামী অধ্যায়ে। এর জন্য তিতুমীর, হাজী শরিয়তুল্লাহ, ক্ষুদিরাম, মাস্টার দা সূর্যসেন, প্রীতিলতা ওয়াদেদ্দার প্রমুখ সংগ্রামী বীর বাঙালি বিদেশি শাসকদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে গেছেন। সর্বশেষে পাকিস্তানের ২৪ বছরের শাসন-শোষণের ফলে বাঙালি জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটি সশ্রস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। বঙ্গবন্ধুই ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণা, তাঁরই নামে চলেছে মুক্তিযুদ্ধ। তাইতো আন্তর্জাতিক পর্যায়েও তাকে বিশ্ব শান্তি পরিষদ কর্তৃক ‘জুলিওকুরি’ শান্তি পুরষ্কার প্রদান করা হয়। বিবিসি বাংলা’র জরিপে শ্রোতাদের ভোটে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি তিনি। প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক রাজনীতির সঙ্গে সম্পর্কিত সকলেই একমত পোষণ করবেন যে, বঙ্গবন্ধু তাঁর জীবনের প্রতিটি ধাপেই বাঙালির সার্বাত্মক মুক্তির জয়গান গেয়েছেন। তিনি তো সব সময় বলতেন, এমনকি দু’বার মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড়িয়েও তিনি বলেছেন, “ফাঁসির মঞ্চে যাবার সময় আমি বলব, আমি বাঙালি, বাংলা আমার দেশ, বাংলা আমার ভাষা”।
বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ: বাঙালি জাতির চূড়ান্ত মুক্তির সংগ্রামে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর অপরিসীম ত্যাগ-তিতিক্ষা, সাহসিকাতা ও দূরদর্শিতার মাধ্যমে সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের যে উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা সকল বাঙালির হৃদয়ে অমলিন হয়ে রবে। সীমাহীন অন্ধকারের মধ্যে তিনি দেখিয়েছন আলোর উজ্জল দীপশখা। তাইতো বাঙালি জাতি তাকে ‘বঙ্গবন্ধু’ তথা বাংলার বন্ধু এবং সর্বশেষে ‘জাতির জনক’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। বিবিসির এক জরিপে বঙ্গবন্ধুকে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি হিসেবে চিহ্নিত করেছে। দেশের স্বার্থের কাছে, জনগণের স্বার্থের কাছে নিজের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়েছেন। এ কারণেই বোধ করি কবি মনীষী অন্নদাশংকর রায় বাংলাদেশের আর এক নাম রেখেছেন গঁলরনষধহফ. বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে বাংলাকে পুনর্গঠনের কাজ হাতে নেন। পাঁচ হাজার বছরের পুরনো জাতির জন্য তাঁর দ্বিতীয় উপহার বা শ্রেষ্ঠ অবদান সংক্ষিপ্ত সময়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে একটি অনন্য সাধারণ সাংবিধান দেওয়া; যা লেখা হয়েছে ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্তে। আমাদের দুর্ভাগ্যের বিষয় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কতিপয় দুষ্কৃতিকারী ও কুচক্রী সেনা সদস্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ ১৬ জনকে হত্যা করে।
উপসংহার: হেমিলনের বংশীবাদকের মতো বঙ্গবন্ধু সমগ্র জাতিকে একসূত্রে গ্রথিত করেছেন। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাঙালির বিস্ময়। তিনি অব্যয়, অক্ষয়। তিনি হলেন রাজনীতি কবি। বঙ্গবন্ধু আজীবন স্বপ্ন দেখেছেন ক্ষুধা দারিদ্রমুক্ত অসম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ার। সে স্বপ্ন এখনও বাস্তবায়িত হয়নি। তাইতো তাঁর স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে হলে, শোষণমুক্ত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে হলে প্রকৃত দেশপ্রেম নিয়ে সচেতনতার সাথে সবার এগিয়ে আসতে হবে। সেটাই হবে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা ও সম্মান প্রদর্শনের শ্রেষ্ঠ উপায়। তিনি থাকবেন আকাশে বাতাসে, ফুলে-ফসলে-মাঠে, বাংলার মাটির গন্ধে, হৃদয় জুড়ে।

লেখিকা: ড্যাফডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ‘সিএসই’র ৬ষ্ঠ সেমিস্টারের শিক্ষার্থী।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews