1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০৩:১৬ অপরাহ্ন

করোনার এই দুঃসময়ে সময়ে বিত্তবানদের এগিয়ে আসা উচিত

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২০
  • ৯৭ বার পড়া হয়েছে
– ওসমান গনি –
মহামারি করোনাভাইরাসের কারনে আজ বাংলাদেশসহ সারাবিশ্ব এক অস্থির সময়ের মধ্যে দিন অতিবাহিত করছে। করোনাভাইরাসের কারনে আমাদের দেশে সবচেয়ে বেশী সমস্যার মধ্যে পড়ছে দেশের নিম্ম আয়ের মানুষগুলো। এই দুঃসময়ে কোন দেশ যে কোন দেশ কে অর্থনৈতিক ভাবে সাহায্য করবে এটাও এখন সম্ভব না। কারন এ মহামারি একই সময়ে পৃথিবীর প্রায় দুশোটির অধিক দেশে ছড়িয়ে পড়ছে। এমন ধরনের মহামারি একই সময়ে আর আক্রান্ত হয়েছে কিনা আমার জানা নেই। তবে আমার মনে এটা সারা পৃথিবীর ইতিহাসে প্রথম।
আজ বিশ্বের ধনী দেশগুলোর প্রধানরা তাদের দেশ কে নিয়ত্রন করতে হিমশিম খেয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় সবচেয়ে কষ্টে আছে নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষগুলো। যারা কর্মহীন, ভাসমান ও ছিন্নমূল। তাই দুর্যোগের এই সময়ে মানুষের ক্ষুধার জ্বালা মেটানোর কাজটাই সবচে কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমাদের সামনে। সরকারীভাবে দেশের নিম্ম আয়ের অর্থাৎ খেটে খাওয়া মানুষগুলোর জন্য ত্রান সরবরাহ করা হয়েছে। যাতে করে করোনাকালে দেশের ও সমাজের অসহায় হতদরিদ্র মানুষগুলো খেয়ে পড়ে কোনভাবে বেচে থাকতে পারে। কিন্তু গরীবের এ ত্রাণগুলো বেশীর ভাগই গরীবরা পায়নি। দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখা যায়, গরীবের এসব ত্রাণ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা বেশীর ভাগই তারা গুদামজাত করছেন। এতে করে নিম্ম আয়ের মানুষগুলো খাদ্যের অভাবে কষ্ট করে দিন অতিবাহিত করছেন। আবার অনেকই ক্ষুধার জ্বালা সহ্য করতে না পেরে বা সংসারে সন্তানদের খাবার দিতে না পেরে আত্মহত্যা করছেন। যেটা কোন নাগরিকের রাষ্ট্রের কাছে কাম্য নয়।
 এতে করে যে শুধু গরীব মরছে তা নয়, রাষ্ট্র শাসকের দুর্ণাম হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে রাষ্ট্র শাসককে আরো কঠিন হতে হবে। সাথে সাথে এই দুর্যোগ মুহুর্তে দেশের ধণী ও বিত্তশালী লোকদের কে অসহায় ও হতদরিদ্র মানুষের পাশে এগিয়ে আসতে হবে। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশ। দেশে ধণী বা বিত্তবান লোকের অভাব নেই। চলমান সরকারের আমলে দেশের অনেকেই সরকারী সুযোগ সুবিধা ভোগ করে রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ হয়ে গেছে। আজ সরকারের ও দেশের এই দুর্যোগ সময়ে তারা কোথায়?  তারা কি চায় দেশের মানুষ না খেয়ে মরুক। আর বিশ্ব দরবারে উন্নয়নশীল বাংলাদেশের মান ভূলুন্ঠিত হউক। দেশটা আবার বিশ্বের কাছে ভিখারি দেশ হিসাবে পরিচিত হউক। এটা এ দেশের মানুষ কামনা করে না। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে দুর্বার গতিতে, সাথে সাথে বেড়ে যাচ্ছে দেশের ধণী বা বিত্তবান লোকের সংখ্যা।  বিবিসি বাংলা`র ১১সেপ্টেম্বর /১৮ ইং তারিখের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী,
অতি ধনী বলে তাদেরকেই বিবেচনা করা হয়, যাদের সম্পদের পরিমাণ তিন কোটি ডলার বা তার চেয়ে বেশি। অর্থাৎ বাংলাদেশি টাকায় যাদের সম্পদ আড়াইশো কোটি টাকার বেশি, তারাই ‘অতি ধনী’ বলে গণ্য হবেন। লন্ডন ভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান ‘ওয়েলথ এক্স’ অতি ধনীদের ওপর সর্বশেষ রিপোর্টটি প্রকাশ করে।
এতে দেখা যাচ্ছে বিশ্বে অতি ধনী মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রে। সেদেশে ‘অতি ধনী’ মানুষের সংখ্যা প্রায় ৮০ হাজার।
দ্বিতীয় স্থানে আছে জাপান। তাদের অতি ধনী সংখ্যার মানুষের সংখ্যা প্রায় ১৮ হাজার। আর প্রায় ১৭ হাজার অতি ধনী মানুষ নিয়ে চীন আছে তৃতীয় স্থানে।
তালিকায় প্রথম দশটি দেশের তালিকায় আরও আছে জার্মানি, কানাডা, ফ্রান্স, হংকং, যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড এবং ইটালি।
কিন্তু অতি ধনী মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে দ্রুতহারে বাড়ছে যেসব দেশে, সেই তালিকায় আছে বাংলাদেশ সবার উপরে। ওয়েলথ এক্স এর তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে ১৭ দশমিক তিন শতাংশ হারে এদের সংখ্যা বাড়ছে।
ওয়েলথ এক্স বলছে, যদি বিশ্ব পরিসরে দেখা হয়, অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে, নতুন ধনী তৈরির ক্ষেত্রে চীন এখন আর শীর্ষে নয়। সেখানে বাংলাদেশ সবার চেয়ে এগিয়ে। ২০১২ সাল হতে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রতি বছর ১৭ শতাংশ হারে অতি ধনীর সংখ্যা বেড়েছে। ভিয়েতনাম, কেনিয়া এবং ভারতও খুব বেশি পিছিয়ে নেই।
জাতির এই মহামারি করোনাভাইরাসের দুর্যোগ সময়ে ধনী বা বিত্তবান লোকেরা দেশের সমাজের কর্মহীন মানুষের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেশের সরকারের চলমান ত্রাণ কাজ কে সহযোগীতা করা একান্ত কর্তব্য। দেশে ও দেশের মানুষকে দুঃসময়ে রক্ষা করা বিত্তবান লোকদের দায়িত্ব ও কর্তব্য। দেশের ধণী ও বিত্তবান লোকের সংখ্যা হিসাবে দেশের লোক না খেয়ে মরার কথা না।
লেখকঃ সাংবাদিক ও কলামিস্ট
মোবা- ০১৮১৮-৯৩৬৯০৯। কুমিল্লা।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews