1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৬ অগাস্ট ২০২০, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন

ব্যবস্থাপনা ছাড়াই বান্দরবানে লকডাউন: ভোগান্তিতে জনসাধারণ

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১৪ জুন, ২০২০
  • ৬২ বার পড়া হয়েছে
????????????????????????????????????

বান্দরবান : গত ৩১ মে সাধারণ ছুটি শেষে ১৫ জুন পর্যন্ত সীমিত আকারে সবকিছু খুলে দেয়া হলেও গত ৯ জুন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় হঠাৎ করে বান্দরবান জেলা প্রশাসন সদর ও রুমা উপজেলাকে রেড জোন ঘোষনা করে কোন রকম ব্যবস্থাপনা ছাড়াই ১০ জুন থেকে লকডাউন করে দেন এ দুই উপজেলাকে। ৩ দিন ধরে চলা কঠোর এ লকডাউনে বন্ধ সদর উপজেলার সকলপ্রকার দোকানপাট এবং যান চলাচল। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ জনগণ। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা।
জানা গেছে, গত ৯ জুন বান্দরবান সদর উপজেলা ও রুমা উপজেলাকে রেড জোন ঘোষনা করে ১০ জুন থেকে এ দুই উপজেলাকে লকডাউন করা হবে জানিয়ে ফেসবুকে জেলা প্রশাসক স্বাক্ষরিত একটি গণবিজ্ঞপ্তি প্রচার করে জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো: শামীম হোসেন। ওই গণ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনা ভাইরাসের অব্যাহত সংক্রমন প্রতিরোধের লক্ষ্যে বান্দরবান সদর উপজেলা ও রুমা উপজেলাকে রেড জোন ঘোষনা করা হয়েছে। ১০ জুন দুপুর ১২টা থেকে রেড জোন কার্যকরের লক্ষ্যে এ দুই উপজেলাকে লকডাউন করা হবে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত লকডাউন কার্যকর থাকবে। লকডাউন চলাকালীন রেড জোনে কেউ প্রবেশ করতে পারবে না এবং রেড জোন থেকে কেউ বাইরে বের হতে পারবে না। রেড জোন ঘোষিত এলাকায় কোন ধরণের যানবাহন চলাচল করতে পারবে না। তবে জেলা প্রশাসন, পুলিশ, সেনাবাহিনী, চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, মানবিক সহায়তা ত্রাণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন এবং জরুরী ওষুধ চিকিৎসা উপকরণ ও কৃষি উপকরণ পণ্যবাহী যান চলাচল করতে পারবে। প্রতি রবিবার ও বৃহস্পতিবার ব্যাংকিং কার্যক্রম চালু রাখার লক্ষ্যে সকাল ১০টা হতে দুপুর ২টা পর্যন্ত ব্যাংক সমূহ খোলা রাখা যাবে। ১০ জুন দুপুর ১২টার আগে সকলকে প্রয়োজনীয় কেনাকাটা সম্পন্ন করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।
এতে আরো বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত কারো কোন কিছু প্রয়োজন হলে পৌরসভা এলাকায় মেয়র ও কাউন্সিলরগণ ইউনিয়ন পর্যায়ে চেয়ারম্যান মেম্বারগণ স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠন করে লকডাউন কার্যকর করবেন। এর পাশাপাশি চিকিৎসা সেবার বিষয়ে সহযোগিতা করবেন এবং প্রয়োজনে জরুরী ওষুধ ও অন্যান্য দ্রব্যাদি অসুস্থ মানুষের কাছে পৌছে দিবেন। লকডাউন চলাকালীন জনসাধারণকে ঘর থেকে বের না হতে বলা হল। এর ব্যত্যয় হলে কঠোর আইননানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ বিজ্ঞপ্তি জারির পর ১০ জুন দুপুর ১২টা থেকে বন্ধ করে দেয়া হয় বান্দরবান সদর ও রুমা উপজেলার সকল নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান, ফলমূল, মাছ-মাংসের বাজার, কাঁচাবাজার ও সবধরণের যানবাহন। রাস্তায় নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। কঠোর অবস্থানে দেখা যায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে।
কিন্তু বিজ্ঞপ্তিতে কত দিন লকডাউন চলবে, সাপ্তাহিক হাট-বাজার কখন বসবে, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য কিভাবে সংগ্রহ করবে, লকাডাউনকৃত এলাকায় সাধারণ ছুটি আছে কিনা সে বিষয়ে সুস্পষ্ট কোন নির্দেশনা না থাকায় কঠোরভাবে পালিত লকডাউনে ভোগান্তিতে পড়ে প্রশাসনের সমালোচনা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বান্দরবানের স্থানীয় বাসিন্দারা।
বনরুপা পাড়ার বাসিন্দা এ্যাড. আবু জাফর বলেন, চেয়ারম্যান, কাউন্সলিরদের মাধ্যমে সবকিছু আনতে বলেছে। বাজারে কোন দোকান খোলা না থাকলে চেয়ারম্যান মেম্বাররা আনবে কোথা থেকে, ওষুধের ফার্মেসি খোলা রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে, কিন্তু বাইরে গেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন হেনস্থা করছে। বাসায় অসুস্থ রোগীকে হাসপাতালে নেয়ার জন্য কোথাও কল করে একটি এ্যাম্বুলেন্স পাওয়া যাচ্ছে না।
কাশেম পাড়ার এক মহিলা বলেন, আমি ওষুধের জন্য বাজারে যাচ্ছিলাম, থানার সামনে গেলে পুলিশ আমাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তাদেরকে ওষুধের পেসক্রিপশন দেখানোর পরও তারা আমাকে দুই ঘন্টা আটকে রেখে তারপর ছাড়ে। সার অফিসের এক কর্মকর্তা সারের গুদামে যাওয়ার সময় পুলিশ তাকে ধরে থানায় নিয়ে যায়। এসময় আইডি কার্ড দেখালেও তাকে অনেকক্ষণ থানায় আটকে রাখা হয়। পরে একটি ফোন এলে তাকে ছেড়ে দেয় বলে জানায়।
মেম্বার পাড়ার বাসিন্দা হাসান মুন্না বলেন, কোনধরণের বিকল্প ব্যবস্থা না রেখে এভাবে রেড জোন ঘোষণা টোটালি সব বন্ধ করে দেওয়ায় মানুষের ভোগান্তি বেড়েছে। সমস্যা হচ্ছে, যখন ঢিলেঢালা থাকে তখন প্রশাসনের তৎপরতা কম দেখা যায়। আবার কড়া হলে এত বেশি কড়া হয়ে যায় যে অনেক ক্ষেত্রেই ভোগান্তির সৃষ্টি হয়। বিষয়গুলো বাস্তবসম্মতভাবে এগোনো দরকার। যেহেতু কেউ জানে না এ করোনা কোথায় গিয়ে থামবে। এভাবে টোটালি অফ থাকলে বাজার ব্যবস্থার ওপর চরম নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। সৃষ্টি হতে পারে খাদ্য সংকট। বিষয়টা মাথায় রেখে সিদ্ধান্ত নিলে সকলের জন্য ভালো হয়।
চেয়ারম্যান পাড়ার বাসিন্দা আলাউদ্দীন আলিফ বলেন, লকডাউন দিয়েছে ভালো কথা। কিন্তু কতদিনের জন্য দিয়েছে সেটা বলেনি। নিত্যপণ্য কিভাবে কিনব সবজি কিভাবে কিনব সেসব বিষয়েও বলেনি। হাটবাজার বসবে কিনা সেটাও জানি না। এভাবে হলে কয়েকদিন পর বিপদে পড়ে যাব খাবার দাবার নিয়ে। এভাবে লকডাউনকৃত বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা তুলে ধরেন বিভিন্ন সমস্যার কথা। ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের ফোন করলে তারা বাজারে গিয়ে নিয়ে আসার কথা জানায়। কিন্তু বাজারে শুনেছি সব দোকান বন্ধ। তাহলে জিনিস কিনবো কোথা থেকে।
এদিকে লকডাউন কার্যকরে প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতি ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠনের কথা বলা হলেও বান্দরবান পৌরসভার কোন ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠন করা হয়নি। বান্দরবান পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ আলী বলেন, লকডাউনে করনীয় সম্পর্কে আমাদেরকে লিখিত কোন নির্দেশনা দেয়া হয়নি। তারপরও অনেকে ফোন দিয়েছে, তাদেরকে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ব্যবস্থা করে দিয়েছি। গ্যাস এর জন্য ফোন দিয়েছে ব্যবস্থা করে দিয়েছি। ওষুধ প্রয়োজন হলে পেসক্রিপশন নিয়ে ফার্মেসি থেকে আনতে বলেছি। এ বিষয়ে বান্দরবান পৌরসভার মেয়র ইসলাম বেবী বলেন, জনগণকে ভাল রাখার জন্য এ লকডাউন প্রথমে একটু কষ্ট হচ্ছে সবার। তবে আমরা আস্তে আস্তে সব ব্যবস্থা করছি। পাড়ায় পাড়ায় গিয়ে ভ্যানে করে সবজি বিক্রির ব্যবস্থা করছি। সব ওয়ার্ডে এখনও হয়নি। কয়েকটি ওয়ার্ডে শুরু করে দিয়েছি, সব ওয়ার্ডেই করব। আমার সব কাউন্সিলরকে বলে দিয়েছি, যাতে কারো কোন সমস্যা হলে সাহায্য করে। আর ভোগান্তির বিষয়ে মেয়র বলেন জরুরী প্রয়োজনে বের হতে পারবে। কিন্তু দেখা যায় অনেকে অপ্রয়োজনে বের হয়ে ঘুরাঘুরি করে। তাদের কারনে অনেকে দরকারে বের হলেও ভোগান্তির শিকার হয়। তবে আমরা আবার বসব বসে কিভাবে আরেকটু সহজ করে জনগণকে সেবা দিয়ে লকডাউন পরিচালনা করা যায় সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব। কারন জনগণকে নিরাপদ রাখার জন্যই এ লকডাউন। এদিকে নিয়ম অনুযায়ী জেলার সিভিল সার্জন রেড জোন ঘোষনা করার কথা থাকলেও বান্দরবান সদর ও রুমা উপজেলাকে রেড জোন ঘোষনার বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান বান্দরবান সিভিল সার্জন।
এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডা. অং সুই প্রু মার্মার কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক। রেড জোন ঘোষনা ও লকডাউন ঘোষনা করার আগে আমার সাথে কোন বৈঠক করেনি, কোন পরামর্শ নেয়নি। এমনকি প্রশাসন যে রেড জোন ঘোষনা করে লকডাউন করেছে তার কোন অনুলিপিও দেয়নি। কেন দেয়নি সেটা তারা বলতে পারবে। আমরা আমাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। করোনা আক্রান্তদের সেবা করছি। জেলা প্রশাসক নিজেও আক্রান্ত হয়েছেন। ওনাকেও চিকৎসাসেবা দিচ্ছি।
এদিকে রেড জোন ও লকডাউনের প্রশাসনের গণবিজ্ঞপ্তিতে দেখা গেছে, রেড জোন ও লকডাউনের বিষয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা সিভিল সার্জনকে কোন অনুলিপি দেয়া হয়নি।
এ বিষয়ে জানতে অতিরিক্ত জেলাপ্রশাসক শামীম হোসেন এর ব্যক্তিগত মুঠোফেনে যোগাযোগ এর চেষ্টা করা হলে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। বান্দরবানের সুশীল সমাজের দাবী, কোন রকম সমন্বয় না করে এভাবে হঠাৎ করে লকডাউন দিয়ে সবকিছু বন্ধ করে দেয়ায় ভোগান্তির সৃষ্টি হয়েছে। প্রশাসনের উচিত ছিল সবার সাথে সমন্বয় করে লকডাউনের সময় কিভাবে জনগনকে প্রয়োজনীয় সেবা প্রদান করবে সেটা ঠিক করে তারপর লকডাউন করা।
– এন এ জাকির

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com