1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন

মাধবদীর মেঘনায় ভেসে আসা গলিত লাশই কি নিখোঁজ শিশু ছোয়াদের?

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ৩১ জুলাই, ২০২০
  • ৩৮ বার পড়া হয়েছে

নরসিংদী : নরসিংদীর মাধবদীতে মেঘনায় ভেসে আসা অজ্ঞাতনামা শিশুর গলিত মরদেহটিই কি তবে নালিতাবাড়ী শহর থেকে গত ২৩ জুলাই বৃহস্পতিবার নিখোঁজ পাঁচ বছর বয়সী শিশু ছোয়াদের? এমন প্রশ্নে উত্তর মিলবে ডিএনএ পরীক্ষার ফলাফল আসার পর।
সূত্র জানায়, মাধবদী উপজেলার গঙ্গারচর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি মেঘনা নদী থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) অজ্ঞাতনামা পঁচা-গলা এক শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে। পরে বিকেলে নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয় মরদেহটি। এসময় মর্গে কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যের নজর পড়ে বাংলার কাগজ এর অনলাইন ভার্সন থেকে ফেসবুক পেজে শেয়ারকৃত নিখোঁজ শিশু ছোয়াদের সংবাদে। অজ্ঞাতনামা শিশুর মরদেহটি ছোয়াদের কি না তা জানতে সংবাদে উল্লেখিত মোবাইল নাম্বারে ছোয়াদের স্বজনকে ফোন করে সংবাদ দেন তিনি। এরপর ছোয়াদের স্বজনেরা মরদেহের ছবি সংগ্রহ করে ও থানা পুলিশের সহযোগিতা নেয়। পরদিন (আজ) শুক্রবার ভোরে রওয়ানা হয় নরসিংদীর উদ্দেশ্যে। দুপুরে সদর হাসপাতাল মর্গে পৌছে মরদেহ শনাক্ত করতে ব্যর্থ হয় নিখোঁজ ছোয়াদের পিতা-মাতাসহ স্বজনেরা। তবে মরদেহটি ছোয়াদের কি না তা জানতে ডিএনএ পরীক্ষার ব্যবস্থা করে পুলিশ।
ছোয়াদের পরিবার জানায়, মরদেহ এতোটাই পঁচে গেছে যে দেখে শনাক্ত করার কোন উপায় নেই। দূর্গন্ধে কাছেও যাওয়া যাচ্ছে না। মরদেহটির গায়ে জামা-কাপড় এমনকি কোন শনাক্তকরণ চিহ্নও নেই।
নরসিংদী সদর হাপাতাল মর্গের ইনচার্জ ইনচার্জ রতন চন্দ্র দাস বাংলার কাগজকে জানান, শিশুটি ছেলে এবং বয়স আনুমানিক ৫-৭ বছর হবে। পঁচা-গলা লাশটি শনাক্ত করার কোন উপায় নেই জানিয়ে তিনি আরও বলেন, আমরা লাশ শনাক্তের জন্য ডিএনএ সংগ্রহ করে পুলিশকে দিয়েছি। ধারণা করা হচ্ছে, অন্তত সপ্তাহখানেক আগে শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। তবে কিভাবে মৃত্যু হয়েছে তা জানা যাবে ময়না তদন্ত রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর।
উল্লেখ্য, গত ২৩ জুলাই বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে নালিতাবাড়ী পৌর শহরে আমবাগান মহল্লায় ভাড়া বাসায় বসবাসকারী লিটনের পাঁচ বছর বয়সী সন্তান ছোয়াদ চেয়ারম্যান সড়ক চৌরাস্তা মোড় থেকে নিখোঁজ হয়। নিখোঁজের সময় ছোয়াদের পড়নে হলুদ রঙের শার্ট ও কালো রঙের প্যান্ট ছিল। নিখোঁজের পর পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি থানায় অবহিত করা হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও প্রচারণা চালানো হয় বিভিন্ন মাধ্যমে। একপর্যায়ে নিখোঁজ ছোয়াদের পিতা লিটন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলার পর প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ গত ২৬ জুলাই রোববার ভোরে বিক্রমপুর থেকে লিটনের বিয়াই ফিরোজ (৩৫) ও সমন্ধী বউ হালিমা বেগম (৩০) কে গ্রেফতার জেলহাজতে পাঠায়।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com