1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
  3. mehedihasanshakib06@gmail.com : mehedi sakib : mehedi sakib
শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১১:১৪ অপরাহ্ন

কলাপাড়ায় ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকাভুক্তি ও দুর্নীতিবাজদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : কলাপাড়ায় লালুয়া ইউনিয়নে ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের পাঁচ শতাধিক ঘড়বাড়ি পায়রাবন্দর কর্তৃপক্ষ ভূমি অধিগ্রহণ করেন। কিন্ত ক্ষতিগ্রস্থ ২৭টি পরিবারের ঘরবাড়ি তালিকাভূক্ত না করায় শনিবার মানববন্ধন করেছেন। লালুয়া ইউনিয়নের চরচান্দুপাড়ার বুড়োজালিয়া জেলে পল্লী এলাকায় ভূক্তভোগী জনগণ এ মানববন্ধন করেন।
২৭টি পরিবারের বসতঘরে পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষ প্রদত্ত এস.বি নাম্বার থাকা সত্ত্বেও পটুয়াখালী এল.ও অফিসের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবৈধ সুযোগসুবিধা দিতে না পারায় তাদের বসতঘর তালিকার আওতায় নেয়া হচ্ছে না বলে ভূক্তভোগীরা মানববন্ধনে দাবি করেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লালুয়া ইউনিয়নের ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের পাঁচশতাধিক ঘড়বাড়ি পায়রাবন্দর কর্তৃপক্ষ নিয়ে নেয়। ২০১৪ সালে বন্দর কর্তৃপক্ষ প্রতিটি ঘর যাচাই-বাচাই করে তালিকাভূক্তিকরণের জন্য এস.বি নাম্বার দেয়। এস.বি নাম্বার অনুযায়ী অন্যান্য ঘর তালিকাভূক্ত করা হলেও স্থানীয় ২৭টি পরিবারের ঘর তালিকার আওতায় নেয়া হয়নি। ওই ২৭টি ঘরের প্রতিটিতে পায়রাবন্দর কর্তৃক এস.বি নাম্বার থাকা সত্ত্বেও অবৈধ অর্থ দিতে না পারায় তাদের ঘরগুলো তালিকায় অর্ন্তভূক্তি করা হয়নি বলে ভূক্তভোগীরা মানববন্ধনে অভিযোগ তুলেন।
তারা বলেন, প্রতিটি ঘর ক্ষতিগ্রস্থ হিসাবে তালিকাভূক্তি করার জন্য পটুয়াখালী এল.ও অফিসের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবৈধ অর্থ দিয়ে ঘর তালিকাভূক্ত করতে হয় বলে বক্তারা জানান।
ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্য মো: মহসীন দালাল ও সোহেল প্যাদা বলেন, আমাদের প্রতিটি ঘরে এস.বি নাম¦ার রয়েছে। ২০১৪ সালে পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষ আমাদের প্রতিটি ঘর ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার হিসাবে তালিকাভূক্ত করে এস.বি নাম্বার দেয়। কিন্তু আমরা এল.ও অফিসের কর্মকর্তাদের ঘুষের অর্থ দিয়ে খুশি করতে না পারায় আমাদের ঘরগুলো তালিকার বাহিরে রেখে দেয়। বহিরাগতদের মধ্যে বালিয়াতলী ইউনিয়নের বৈদ্যপাড়া গ্রামের মমিন তালুকদারের পুত্র আবদুল অহেদ তালুকদার যার ভোটার নাম্বার ৭৮১১৪০০০০১৫৪ ক্রমিক নং ০২২। মুন্সিপাড়া গ্রামের কদম আলী বিশ্বাসের পুত্র লাবু বিশ্বাসসহ ২০পরিবার নাম অন্তর্ভূক্ত করেছেন। আমরা এর সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে আমাদের ঘরগুলো তালিকাভূক্তির আওতায় নেয়ার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামান করছি।
লালুয়া ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন তালুকদার ও ইউপি সদস্য মো: জাফর আলী হাওলাদার অভিযোগ করে বলেন, পটুয়াখালী এল.ও অফিসের অসাধূ কর্মকর্তাদের যোগসাজশে অবৈধ অর্থের বিনিময়ে নতুন ঘর তালিকাভূক্ত হলেও ৩০ বছর পূর্বের ঘর তালিকাভূক্তি হয়নি। এমনকি পায়রাবন্দর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রতিটি ঘরের এস.বি নাম্বার থাকা সত্ত্বেও ২৭টি পরিবার তালিকার বাহিরে রয়ে যায়।
– রাসেল কবির মুরাদ

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!