1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ০৯:৫০ অপরাহ্ন

শেরপুরে ১৮৫ হেক্টর জমিতে চিটাধান, বোরো চাষীদের মাথায় হাত

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ৭ এপ্রিল, ২০২১

মনিরুল ইসলাম মনির : লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বোরো আবাদের পরিমাণ বেশি হলেও উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে শঙ্কায় শেরপুরের কৃষি বিভাগ ও বোরো চাষীরা। গেল ৪ এপ্রিলের ঝড়ো হাওয়ায় ইতিমধ্যেই থোর আসা ধান চিটায় পরিণত হয়েছে। নষ্ট হয়ে গেছে জেলার ১৮৫ হেক্টর জমির বোরো আবাদ।
স্থানীয় কৃষি বিভাগ ও বোরো চাষীরা জানায়, গেল ৪ এপ্রিল রবিবার জেলাজুড়ে একই সময়ে ঝড় ও শিলাবৃষ্টি হয়। এসময় ঝড়ো হাওয়ার সাথে গরম বাতাশ প্রবাহিত হয়। প্রবাহিত গরম বাতাশ ও শিলাবৃষ্টির ফলে জেলার বিভিন্ন বোরো মাঠে উঠতি বোরো ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। বিশেষ করে যেসব জমির বোরো ধানের গাছে থোর আসতে শুরু করেছে সেসব ক্ষেত মরে যাচ্ছে। পুরো ক্ষেতে এখন ফ্যাঁকাসে রঙের চিটা দেখা যায়। ফলে ওইসব জমির বোরো চাষীরা হতাশায় মাথায় হাত দিয়ে বসেছেন। এর মধ্যে চোখে সরষে ফুল দেখছেন ব্রিধান-২৬, ব্রিধান-২৮ ও তেজ গোল্ড জাতের বোরো ধান চাষীরা।
জেলার নালিতাবাড়ী উপজেলার ছালুয়াতলা গ্রামের বোরোচাষী আসাদুজ্জামান মাস্টার জানান, এ বছর তিনি শুধুমাত্র সংসারের খোড়াকির জন্য দেড় একর (১৫০ শতক) জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছিলেন। ইতিমধ্যেই প্রায় ২০ হাজার টাকার উপরে তিনি খরচ করে ফেলেছেন। কিন্তু গেল রবিবারের ঝড়ো হাওয়ার সাথে গরম বাতাশে তার ২৩ কাঠা (১১৫ শতক) জমির থোর আসা ধান পুরোপুরি চিটা হয়ে গেছে।
একই গ্রামের অপর বোরো চাষী আবুল কালাম জানান, তিনি পেশায় একজন কৃষিশ্রমিক। অনেক কষ্ট করে সংসারের খোড়াকির জন্য ১০ কাঠা (৫০ শতক) জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছেন। কিন্তু তার আশায় গুড়েবালি দিয়ে ৫ কাঠা (২৫শতক) জমির ধান ইতিমধ্যেই চিটায় ভরে গেছে।
একই দুর্যোগের কথা জানিয়ে ক্ষুদ্র বোরো চাষী রমজান আলী জানান, তার রোপিত ১৭ কাঠা (৮৫ শতক) জমির বোরোধান চিটা হয়ে গেছে। বোরো ধানে চিটা হওয়ার এমন বর্নণা বোরো চাষী ছাল মামুদসহ জেলার অনেক বোরো চাষীর। ফলে একদিকে বোরো আবাদ করতে গিয়ে ব্যয়িত অর্থ অন্যদিকে সংসারের খোড়াকি নিয়ে দুঃচিন্তায় জেলার অসংখ্য বোরো চাষী।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর কবীর জানান, যেসব জমিতে কেবল থোর আসতে শুরু করেছে এবং গরম হাওয়ার প্রভাব পুরোপুরি পড়েনি সেসব জমির চাষীদের পরিমাণ মতো পটাশ ও থিওভিট প্রয়োগের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এতেকরে কিছুটা সংকট কাটিয়ে উঠা সম্ভব হবে।
জেলা কৃষি বিভাগের উপপরিচালক ড. মোহিত কুমার দে জানান, চলতি বোরো মৌসুমে জেলায় বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৯০ হাজার ৫শ হেক্টর জমি। এ লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করে বোরো আবাদ হয়েছে ৯০ হাজার ৬৫৫ হেক্টর জমিতে। এরমধ্যে গরম বাতাশের প্রভাবে নষ্ট হয়ে গেছে ১৮৫ হেক্টর বোরো জমি। এতেকরে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তথাপিও কিছুটা ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আমাদের কর্মকর্তাগণ মাঠপর্যায়ে সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!