1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন

শ্রীবরদী ও ঝিনাইগাতি সীমান্তে বেড়েছে চোরাচালান, আসছে গরু, প্রসাধনী ও মাদক

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২৩

মোহাম্মদ দুদু মল্লিক, সিনিয়র রিপোর্টার : শেরপুরের ভারত সীমান্তবর্তী উপজেলা শ্রীবরদী ও ঝিনাইগাতী সীমান্তে সক্রিয় হয়ে ওঠেছে চোরাচালানকারীরা। ভারত থেকে গারো পাহাড়ের খারামোরা, তাওয়াকোচা ও হারিয়াকোনা এলাকার সীমান্ত দিয়ে বেড়েছে গরু, কসমেটিকস ও মাদকদ্রব্য পাচার। এতে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সরেজমিনে স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে ওঠে আসে এমন তথ্য।

জানা যায়, শ্রীবরদী ও ঝিনাইগাতী উপজেলার সীমান্তঘেঁষা গ্রামগুলোর পাশে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের পোড়াকাশিয়া এলাকা। এখানে সীমানা পিলারের জিরো পয়েন্টে ভারতের কাঁটাতারের বেড়ার নিচে বিভিন্ন স্থানে রয়েছে গোলাকৃতির কালভার্টের ফাঁক। যেখানে কাঁটাতারের বেড়া শেষ সেখানে খোলা অংশ। কোথাও নদী বা নদীর ওপর ব্রিজ। এসব কালভার্ট, খাল আর ব্রিজের ফাঁকা স্থান ব্যবহার করে চোরাকারবারীরা। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ’র চোখ ফাঁকি দিয়ে পোড়াকাশিয়া থেকে আনা হচ্ছে গরু ও মাদকদ্রব্য। চোরাই পথে আসা এসব গরু বেচাকেনা হচ্ছে স্থানীয় সীমান্ত এলাকা খারামোরা, তাওয়াকোচা ও হারিয়াকোনা গ্রামে।

ওইসব গ্রামের বাসিন্দারা জানান, প্রায় ৩-৪ মাস যাবত বিএসএফ’র চোখ ফাঁকি দিয়ে চোরাই পথে আসছে গরু, মাদকদ্রব্য ও ভারতীয় কসমেটিকস। সপ্তাহের শনিবার ও মঙ্গলবার দিবাগত ভোর রাতে বেশিরভাগ আসে গরু। এ জন্য ওইসব গ্রামে প্রতি শনিবার ও মঙ্গলবার সন্ধ্যা হতে জড়ো হতে থাকে পাইকাররা। বেচাকেনা হয় সীমান্তঘেঁষা ওইসব গ্রামে। এরপর পাহাড়ি পথ বেয়ে নিয়ে আসা হয় কর্ণঝোড়া, বালিজুরি, ভায়াডাঙ্গাসহ বিভিন্ন বাজারে। গরুর সঙ্গে আসছে মাদকদ্রব্য ও কসমেটিকস। এসব বিক্রি হয় সিক্রেটে। তবে মাদক ব্যবসায়ীদের আনাগোনা প্রকাশ্যেই।

এদিকে, খারামোরা গ্রামের তৈয়ব আলী, কালো গাজী, বালিজুরি গ্রামের বিষু আলী, আব্দুল হক, বাচ্চা গেল্লা, আব্দুর রহিম, অফিস পাড়ার নূর নবী, কর্ণঝোড়ার কমল ও বিপ্লব হলো এখানকার চোরাচালানের সঙ্গে সরাসরি জড়িত বলে তথ্য পাওয়া গেছে। ইতিপূর্বে বিপ্লব ভারতের কাঁটাতারের বেড়া কাটতে গিয়ে বিএসএফ’র হাতে ধরা পড়ে দীর্ঘদিন জেলহাজতে ছিল। দেশেও একাধিকবার পুলিশ ও ডিবির জালে ধরা পড়ে।

এর আগে অনেক মাদকদ্রব্য ও কসমেটিকস ধরা পড়েছে পুলিশ ও র‌্যাবের হাতে। কিন্তু বিজিবি’র কাছে ধরা না পড়ার কারণ কি? এমন প্রশ্ন এলাকাবাসীর।

শুধু বিপ্লবই নয়, এদের মধ্যে অনেকেই মাদক ও গরুসহ একাধিকবার পুলিশের হাতে আটক হয়েছিল। জেলও খেটেছে। এ ব্যাপারে তাদের সঙ্গে ফোনে বা সরাসরি যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

আরেক সূত্রে জানা যায়, সীমান্তের চোরাচালান নিয়ন্ত্রণ করছে খারামোরা বর্ডার নিয়ন্ত্রণে ডিবি’র নাম করে তাওয়াকোচা এলাকার বিজিবি’র লাইনম্যান বালিজুরি অফিস পাড়ার ফরিদ ওরফে টেন্ডুল ফরিদ, পুলিশের লাইনম্যান হাতিবর গ্রামের বাদশা ও বালিজুরি বাজারের ওয়াহেদ আলী, কর্ণজোড়া গ্রামের হারুন মহাজনের ছেলে ফরহাদ, বড় গরু ব্যবসায়ী বিল ভরটে গ্রামের চিনি মেম্বারের ছেলে আশরাফুল, আফছার আলী ও হারিয়াকোনা বর্ডারের হায়দর আলী।

একদিকে প্রশাসনকে টাকা দিতে হবে বলে এই লোকগুলো হাতিয়ে নিচ্ছে অবৈধভাবে টাকা। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সীমান্তে প্রবেশ করলেই মোবাইল ফোনে সতর্ক করে দেয় অবৈধ চোরাকারবারীদের। ফলে নির্ভয়েই ব্যবসা করছেন চোরাচালানকারীরা। বিনিময়ে এ দু’চার জন মিলে তাদের কাছ থেকে গরু প্রতি নেয় দুই’শত থেকে তিনশত টাকা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গরু চোরাচালানকারী জানায়, হুন্ডির মাধ্যমে ভারতে টাকা পাঠানো হয়। সেখান থেকে নিয়ে আসা হয় গরু, মাদকদ্রব্য ও প্রসাধনী সামগ্রী কসমেটিকস।

এ বিষয়ে বুধবার (২০ ডিসেম্বর) নকশী বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার জুলফিকার আলির সাথে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তিনি অসুস্থ বলে দেখা করেননি বলে বিজিবি’র এক সদস্য জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী জানান, বিজিবি কোম্পানি কমান্ডার জুলফিকার আলী এসব বিষয়ে অনেক কিছুই জানেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!