1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ০১:২৩ পূর্বাহ্ন

ঝিনাইগাতিতে সরকারি রাস্তার নির্মাণকাজে অবৈধ বালু উত্তোলনের অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ১ মে, ২০২১

ঝিনাইগাতি (শেরপুর): শেরপুরের একটি সরকারি রাস্তা নির্মাণ কাজে হাইকোর্টের স্থিতাবস্থার তোয়াক্কা না করে নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। ঝিনাইগাতী উপজেলার ঘাগড়া প্রধানপাড়া সুইচগেট থেকে হদিপাড়া রাস্তার কাজে এ অনিয়ম বন্ধে আবেদন করেছেন ভুক্তভোগী।
এলজিইডির দেওয়া তথ্যমতে, এক বছর মেয়োদে ঝিনাইগাতী উপজেলার ঘাগড়া প্রধানপাড়া সুইচগেট থেকে হদিপাড়া রাস্তায় নির্মাণ কাজের দায়িত্ব পায় রাজধানী ঢাকার ওয়েস্টার কনস্ট্রাকশন এন্ড শিপিং কোম্পানী লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষে স্থানীয় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএমএ ওয়ারেজ নাঈম কাজটি তদারকি করছেন বলেও জানিয়েছেন এক কর্মকর্তা। কাগজে-কলমে সকল তথ্য ওই প্রতিষ্ঠানের নামে থাকলেও কাজটি স্থানীয়ভাবে উপজেলা চেয়ারম্যানের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
এদিকে এ রাস্তার কাজে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অভিযোগ করেছেন পাগলার মুখ বালু মহালের ইজারাদার আতিউল্ল্যাহ আতিক। তিনি বলেন, এ রাস্তার কাজটি আমার লীজ নেয়া পাগালার মুখ বালু মহালের পাশে। এ মহালে লীজ নেয়া প্রতিষ্ঠান ব্যতিত বালু উত্তোলনে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এ রাস্তার কাজ শুরুর পর থেকেই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন পেশী শক্তির বলে বালু উত্তোলন করছেন। তিনি আরও বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান নাঈমের যোগসাজশে নাসির চেয়ারম্যান এখান থেকে বালু তোলছেন। এ নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান নাঈমকে নিষেধ করতে গেলে উল্টো আমাকে ভয়ভীতি আর হুমকি দিয়েছেন।
উচ্চ আদালতের রিট পিটিশন ৪৬৯৯/২০১৮ এর তথ্যমতে, পাগলার মুখ বালু মহালের ইজারাদার আতিক এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আতিউল্ল্যাহ আতিক ২০১৭ সাল থেকে এ বালুমহাল ভোগ করছেন। তার দায়ের করা রিট অনুযায়ী মামলার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ২০১৮ সালে ওই বালু মহালে ইজারার দখল ও অবস্থানের উপর স্থিতাবস্থা ঘোষণা দেয় আদালত।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, এ রাস্তার কাজ করছেন উপজেলা চেয়ারম্যান নাঈম। আর রাস্তার বালু দিচ্ছেন নাসির চেয়ারম্যান। স্থানীয় ব্যবসায়ী লাল মিয়া বলেন, এ রাস্তার কাজে বালুর দাম ধরা আছে। নাসির চেয়ারম্যান ক্ষমতা দেখিয়ে নদী থেকে বালু তুলছেন।
এ প্রসঙ্গে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন বলেন, রাস্তার কাজে বালু সরবরাহ করছে অন্যজন। আমি এর সাথে জড়িত না। এটি উপজেলা চেয়ারম্যান নাঈমের কাজ। উনিই ভালো বলতে পারবেন।
ঝিনাইগাতী উপজেলা প্রকৌশলী মোজাম্মেল হোসেন বলেন, রাস্তার কাজ কাগজে-কলমে ওয়েস্টার কোম্পানীর। আমরা সব বিল ও অফিসিয়াল যোগাযোগ তাদের সাথেই করি। তবে কাজটি লোকালি উপজেলা চেয়ারম্যান নাঈম সাহেব তদারকি করছেন। উনি কার কাছ থেকে কিভাবে বালু নিচ্ছেন এসব তো আমরা দেখি না। তবে অবৈধভাবে বালু তোললে ঠিক হবে না। এই বালুর জন্য তো সরকারের টাকা বরাদ্দ আছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ বলেন, বালু মহালটি নিয়ে উচ্চ আদালতে একটি মামলা চলমান আছে। সেখানে ব্যক্তিগতভাবে আমাদের যাওয়ার সুযোগ নেই। স্থিতাবস্থা চলাকালে অন্য কেউ বালু তোললে তা অবশ্যই অবৈধ হবে।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএমএ ওয়ারেজ নাঈম জানান, কাজটি আমার উপজেলার। এ জন্য আমি কাজ দেখভালো করছি। ব্রিজ নির্মাণের জন্য পানির গতিপথ করতেই একটু বালু তোলা হচ্ছে, এটি বেআইনি নয়।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!