1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:৪৯ পূর্বাহ্ন

ভোটার হালনাগাদ না করেই নির্বাচনের প্রস্তুতি: আটকে গেল ট্রাইবাল নির্বাচন

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১

শেরপুর : ভোটার তালিকা হালনাগাদ না করে এবং কয়েক হাজার ভোটার তালিকার বাইরে রেখে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের সংগঠন ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন (টিডব্লিওএ) এর নালিতাবাড়ী শাখার নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ায় আইনী জটিলতায় আবারও আটকে গেল নির্বাচন। বুধবার (২০ অক্টোবর) উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক স্বাক্ষরিত এক পত্রে নির্বাচনটি স্থগিতের ঘোষণা দেওয়া হয়।

সূত্র জানায়, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর অধিকার আদায়সহ নানা লক্ষ্য সামনে রেখে ১৯৭৭ সালে ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন (টিডব্লিওএ) গঠন করেন প্রয়াত সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট প্রমোদ মানকিন। সংগঠনটির নালিতাবাড়ী শাখা প্রতিষ্ঠার পর টানা ত্রিশ বছরের অধিক সময় চেয়ারম্যান এর দায়িত্ব পালন করেন মি. কোপেন্দ্র নকরেক। ২০১৩ সালের নির্বাচনে এ শাখার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন মি. লুইস নেংমিনজা। ২০১৬ সালে মেয়াদ শেষ হওয়ার সাধারণ সভা আহবান করে পুনরায় ওই কমিটি বহাল রাখা হয়।

এদিকে কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় পুনরায় নির্বাচনের লক্ষ্যে ২০১৯ সালে একটি ভোটার তালিকা প্রস্তুত করে সমাজসেবা কর্মকর্তার কার্যালয়। ওই তালিকায় ভোটার দেখানো হয় ২ হাজার ৭৯৯ জন। অথচ ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনেই এর ভোটার সংখ্যা ছিল ৫ হাজার ২শ। ফলে ভোটার তালিকা বিতর্ক তোলে টিডব্লিওএ’র সাধারণ সম্পাদক লরেন্স দ্রং হাইকোর্টে একটি রীট পিটিশন দাখিল করেন। রীটের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ২০১৯ সালের নির্বাচনে নিষেধাজ্ঞা জারী করেন। এরপর রীটকারীদের পক্ষে কোন তদারকি না করায় এ সুযোগ নেয় প্রতিপক্ষ। একতরফাভাবে রীট মোকাবেলা করায় ওই রীট খারিজ করে দেয় হাইকোর্ট।

সম্প্রতি খারিজ করা ওই রীটের কপি গোপনে এনে প্রতিপক্ষ সমাজসেবা কার্যালয়ে দাখিল করলে সমাজসেবা কার্যালয় থেকে ২০ অক্টোবর নির্বাচনের দিন ধার্য করে তফসীল ঘোষণা করে। তফসীলের পর বিষয়টি প্রকাশ হয়ে পড়লে বর্তমান কমিটির নেতৃবৃন্দ রীট খারিজের কপি আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখায় যোগাযোগ করে সংগ্রহ করতে ব্যর্থ হন। পরে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার কার্যালয়ের দ্বারস্থ হয়ে এখানেও ব্যর্থ হন কপি সংগ্রহ করতে।

একপর্যায়ে শেরপুর জেলা জজ আদালতে ভোটার তালিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলাসহ বেশকিছু অসঙ্গতি উল্লেখ করে নির্বাচন বন্ধের আবেদন জানানো হয়। আবেদনের প্রেক্ষিতে গতকাল ১৯ অক্টোবর মঙ্গলবার আদালত বিষয়টি শুনানীর জন্য আগামী ১৮ নভেম্বর তারিখ ধার্য করে নোটিশ জারী করেন। এমতাবস্থায় বিষয়টি বিচারাধীন হয়ে পড়ায় উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক স্বাক্ষরিত বুধবার এক বিজ্ঞপ্তিতে নির্বাচন স্থগিতের ঘোষণা দেওয়া হয়।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ডালুকোনা গ্রামের বের্জিনা মারাক মারা গেছেন গেল বছরের ১৪ এপ্রিল। তার্সিসুস রাংসা মারা গেছেন ২০১৯ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর। অথচ তারা ভোটার তালিকায় এখনও বর্তমান। অন্যদিকে বর্তমানে প্রায় তিন থেকে চার হাজার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নাম ভোটার তালিকায় নেই।

টিডব্লিওএ’র বর্তমান কমিটির চেয়ারম্যান লুইস নেংমিনজা জানান, আমাকেসহ এ কমিটির কাউকেই ভোটার তালিকায় রাখা হয়নি। যেখানে ২০১৩ সালের ভোটার সংখ্যা ৫ হাজার ২শ। সেখানে ২০১৯ সালে কি করে ভোটার সংখ্যা ২ হাজার ৭৯৯ হয়? এখনও তো ভোটার সংখ্যা সাত হাজারের উপরে হওয়ার কথা।

সাধারণ সম্পাদক লরেন্স দ্রং জানান, একতরফা ভোটার তালিকা করে ওই তালিকা অনুযায়ী এক তরফা নির্বাচনের আয়োজন করা হয়েছে।

বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সুদীপ জানান, আমার নাম তো ভোটার তালিকায় নেই। এমনকি আমার স্ত্রী, মেয়ে, মেয়ের জামাতা কারও নাম ওই তালিকায় রাখা হয়নি। এটি একটি এক তরফা ভোটার তালিকা।

অন্যদিকে প্রতিপক্ষ দাবী করেছে, বর্তমান কমিটির নেতৃবৃন্দ নির্বাচন ঠেকাতে ইচ্ছে করেই ভোটার হননি। তবে কমিটির বাইরেও কয়েক হাজার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী কেন বাদ পড়লেন এমন প্রশ্ন করে এর কোন সদুত্তর পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!