1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন

ইরানের শক্তি চীন-রাশিয়া

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২৪

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সিরিয়ার দামেস্কে ইরানি কনস্যুলেটে হামলা চালিয়ে তেহরানের ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তাকে হত্যার বদলা নিতে ইসরাইলের ওপর ইরানের পাল্টা আক্রমণ এবং  ইসরাইলের বদলা নেওয়ার হুমকি ইত্যাদি ঘটনাপ্রবাহে মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনার পারদ এখন চরমে। মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের অনেক দেশই যেমন ইরানকে সমর্থন জানিয়েছে তেমনি ইসরাইলের পক্ষ নিয়েছে পশ্চিমা দেশগুলোর অনেকেই। এই টানাপোড়েনের মধ্যে দুই বৈশ্বিক পরাশক্তি- রাশিয়া ও চীন পর্দার আড়ালে থেকে ইরানের শক্তি হিসেবে দাঁড়িয়েছে। ইরানের পক্ষে এই দুই দেশের সমর্থনের বড় প্রমাণও মিলেছে। যেমন- ইসরাইলের ওপর হামলায় মিসাইল গাইডেন্স সিস্টেম হিসেবে ইরান চীনের বেইদু স্যাটেলাইট নেভিগেশন সিস্টেম ব্যবহার করেছে। পাশাপাশি ব্যবহার করেছে রাশিয়ার গ্লনাস সিস্টেম। আর আগে থেকেই রাশিয়ার সঙ্গে ইউএভি (মনুষ্যবিহীন বিমান) তৈরির গবেষণা চালিয়ে আসছিল ইরান। সে ধরনের কিছু ইউএভি ইসরাইলে হামলায় ব্যবহারও করেছে তেহরান। সূত্র : ওয়াশিংটন পোস্ট, মিডল ইস্ট আই, সিএনএন ও আরটি।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ১ এপ্রিল সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেটে বিমান হামলা চালায় ইসরাইল। এতে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় ভবনটি। হামলায় নিহত হন দেশটির শীর্ষস্থানীয় দুই সামরিক কর্মকর্তাসহ ৭ জন। জবাবে গত শনিবার ইসরাইলকে লক্ষ্য করে একযোগে ৩০০টিরও বেশি ড্রোন এবং ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। আর ইরানের হামলার জবাবে পাল্টা হামলার পরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছে ইসরাইল। তবে এই হামলার বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি আগে থেকেই দিয়ে আসছিল ইরান। ১৩ এপ্রিল ইসরাইলের ওপর ইরানের হামলার দিন দুয়েক আগেই রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিবাকভ এক বিবৃতিতে জানান, মধ্যপ্রাচ্যে চলমান পরিস্থিতিতে ইরানের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে রাশিয়া।

ইসরাইলের সঙ্গে পশ্চিমা দেশগুলোর আঁতাতের ফলেই অশান্তি তৈরি হয়েছে, এমন ইঙ্গিতও দেন তিনি। তার বক্তব্যে বোঝা যায়, ইরানের পাশে আছে রাশিয়া। শুধু তা-ই নয়, অর্থনৈতিক জোট ব্রিকসের (ব্রাজিল, রাশিয়া, ইন্ডিয়া, চীন, দক্ষিণ আফ্রিকা) সদস্য হিসেবে গত বছর ইরান যুক্ত হয়েছে। এই জোটের সদস্য হিসেবেও ইরানকে সমর্থন দিচ্ছে রাশিয়া। আরও একটু পেছনে গেলে দেখা যায়, সামরিক প্রযুক্তির ক্ষেত্রে একে অপরের ঘনিষ্ঠ মিত্র হয়ে উঠছে রাশিয়া ও ইরান। এমনকি ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধে রাশিয়াকে ড্রোন এবং ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহ করতে সম্মতি জানায় ইরান। এর বিনিময়ে রাশিয়া থেকে তারা নেয় উন্নত মানের যুদ্ধবিমান এবং আকাশপথে নিরাপত্তার প্রযুক্তি, যার সাহায্যে ইসরাইল এবং পাশ্চাত্যের দেশগুলোর সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে অবতীর্ণ হতে পারবে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। বর্তমান পরিস্থিতিতে রাশিয়ার সঙ্গে ইরানের বন্ধুত্ব আরও গুরুত্বপূর্ণ চোখে দেখার সময় এসেছে। ওয়াশিংটনের গবেষণা প্রতিষ্ঠান হাডসন ইনস্টিটিউটের জ্যেষ্ঠ ফেলো কান কাসাপগলু বলেন, রাশিয়ার বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র এবং অন্যান্য প্রযুক্তি যদি ইরান কাজে লাগায়, তাহলে ইসরাইল হামলা করলে তার দাঁতভাঙা জবাব দিতে পারবে ইরান।

অপরদিকে ইসরাইলে ইরানের হামলার পর ইরানকে সরাসরি সমর্থন না জানালেও, চীন জানিয়েছে- মধ্যপ্রাচ্যের এই উত্তপ্ত পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে তারা। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, মধ্যপ্রাচ্যে ক্রমেই অস্থিতিশীল পরিস্থিতি নিয়ে তারা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। উভয় পক্ষকেই ধৈর্য ধরার আহ্বান জানায় চীন। এ ছাড়া মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক শান্তি নিশ্চিত করতে বিশ্বকে আহ্বান জানায় তারা। ইরান ও ইসরাইলের এই সংঘর্ষকে গাজায় চলমান পরিস্থিতিরই অংশ বলে মনে করে চীন। সোমবার ইরান ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের মধ্যে এক ফোনালাপে ১ এপ্রিল সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেটে ইসরাইলের হামলাকে নিন্দা জানায় চীন। কিন্তু ইসরাইলের ওপর ইরানের পাল্টা হামলাকে তারা নিন্দা জানায়নি। বরং একে ইরানের আত্মরক্ষামূলক পদক্ষেপ বলে অভিহিত করেছে।

সুতরাং এটা স্পষ্ট যে, রাশিয়া ও চীন মিত্র হিসেবে পাশে থাকায় ঠান্ডা মাথায় এবং সূক্ষ্মভাবে ইসরাইলে হামলা করতে পেরেছে ইরান। এবং হামলা শেষে দেখা গেছে, এতে ইরানের যত না আর্থিক খরচ হয়েছে, ইসরাইলের খরচ হয়েছে তার ৩৭ গুণ। শুধু তা-ই নয়, মধ্যপ্রাচ্যে ইসরাইল এবং তার মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান এক ধাক্কায় নড়বড়ে করে দিয়েছে ইরানের এই হামলা। যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে ইরানে আবার আক্রমণে তারা ইসরাইলের পাশে থাকবে না। এছাড়া ইরানের সেনাপ্রধান মোহাম্মদ বাঘেরি জানিয়েছেন, ইসরাইলের সঙ্গে হাত মিলিয়ে আবার ইরানে হামলা করলে যুক্তরাষ্ট্রকে ছেড়ে কথা বলবে না ইরান। মধ্যপ্রাচ্যে যত মার্কিন ঘাঁটি আছে সবগুলোকে শত্রুঘাঁটি হিসেবে হামলা করবে তেহরান।

রুশ গণমাধ্যম স্পুটনিককে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পেন্টাগনের সাবেক বিশ্লেষক মিশেল মালুফ বলেছেন, ইরানের আশপাশে ৩৫টির মতো মার্কিন ঘাঁটি আছে এবং এই মুহূর্তে সবগুলোই হুমকির মুখে। একসময় এগুলো ইরানের জন্য প্রচ্ছন্ন হুমকি হিসেবে কাজ করত, কিন্তু এখন তারা নিজেরাই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

তিনি আরও বলেন, ইরানের কনস্যুলেটে হামলার পরেও মার্কিনিরা চুপ ছিল বলে ইসরাইল সাহস পেয়ে গিয়েছিল। আর এখন ইরান তাদের সাহসে পানি ঢেলে দিয়েছে। ইসরাইলে হামলার মাধ্যমে ইরান বুঝিয়ে দিয়েছে, তোমরা সীমা লঙ্ঘন করেছো, এর মূল্য তোমাদের পেতেই হবে। ইসরাইলের সাথে ইরানের যুদ্ধ বেঁধে গেলে আদৌ যুক্তরাষ্ট্র হাত গুটিয়ে থাকবে না মনে করেন মালুফ। আর যুক্তরাষ্ট্র এখানে হস্তক্ষেপ করলে ইরান নিঃসন্দেহে রাশিয়া আর চীনকে এখানে জড়িয়ে ফেলবে। আর তা ঘটলে বড়সড় এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শুরুর আশঙ্কা মোটেই এড়িয়ে যাওয়া যায় না।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!