1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২০, ১০:৩৫ অপরাহ্ন

শুধু পাঠকদের জন্য

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০২০
  • ১০৫ বার পড়া হয়েছে

আমার ধর্ম হলো পেছন থেকে কেউ ‘ঘেউ ঘেউ’ করলে গুরুত্ব না দেওয়া। যাদের ফ্রেন্ডলিস্টে রাখি না, যারা আজীবন তপস্যা করে আমার ধারেকাছে আসতে পারবে না- তাদের নিয়ে মাথা খাটানোর অর্থ চরম বোকামী। তাই যে যাই বলুক তুচ্ছজ্ঞান করে পাশ কেটে চলি। তবে কখনও কখনও পাঠক যখন সেইসব ‘চুলকানি’ নিয়ে আমার কাছে জানতে চান, ইনবক্স করেন, তখন পাঠকের জ্ঞাতার্থে ব্যাখ্যা দিতে হয়।
সম্প্রতি তারাগঞ্জ ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষের মৃত্যু নিয়ে একটি সংবাদ প্রকাশ করি। সত্যি বলতে অসংখ্য কাজের চাপে এসব নিউজ খুব একটা গুরুত্ব দিয়ে করা হয় না। একমাত্র তদন্তমূলক বা অনুসন্ধানমূলক প্রতিবেদনে গুরুত্ব দেওয়া সাংবাদিকতায় জরুরী। উল্লেখিত নিউজ পাবলিস্ট করার সময় ‘করোনার উপসর্গ’ কথাটি উল্লেখ করা হয়। কারণ ছিল, নিউজ পাবলিস্ট করা পর্যন্ত আমার কাছে করোনা পরীক্ষার ফলাফল কর্তৃপক্ষ জানাতে পারেননি। একটু পরই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানালেন ‘করোনা নেগেটিভ’ এসেছে। যেহেতু ‘করোনায় মৃত্যু’ উল্লেখ করিনি করেছি ‘করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু’। তাছাড়া, অধ্যক্ষের শরীরে টানা ছয়দিন যাবত জ্বর ছিল এবং তিনি সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি ছিলেন। কাজেই এ নিয়ে বিতর্ক মুর্খরাই করবে।
একইসঙ্গে আমার উল্লেখ করা বয়স ষাট এর ক্ষেত্রে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ৬৬ উল্লেখ করে জানালেন। যেহেতু সংবাদের ক্ষেত্রে বরাত দিয়েই করার নিয়ম। সুতরাং হাসপাতালের তথ্যকে গুরুত্ব দিয়ে নিউজটি এডিট করে পুনরায় প্রকাশ করি। এক্ষেত্রে বয়স ভুল হয়ে থাকলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও করেননি। নিশ্চই নমুনা দেওয়ার সময় রোগীর পক্ষ থেকে বয়স ছিষট্টি উল্লেখ করা হয়েছিল।
আমরা অনেকেই জানি, বেশিরভাগ নিউজে বয়স খুব গুরুত্বপূর্ণ কিছু নয়। একমাত্র শিশু-কিশোর বয়স, ক্ষেত্রে বিশেষে অধিক বয়স্ক- এসব ক্ষেত্রে বয়সকে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় আনা হয়। উদাহারণ হিসেবে টেলিভিশন নিউজের ক্ষেত্রে শুধু নাম ও প্রয়োজনে পদবী উল্লেখ করা হয়। ক্ষেত্র বিশেষ ব্যতীত বেশিরভাগ নিউজে বয়স উল্লেখ থাকে না। একমাত্র পত্রিকা ওয়ালারাই বন্ধনী দিয়ে বয়স উল্লেখ করেন।
এছাড়াও বলে রাখা ভালো, কিছু কিছু ক্ষেত্রে বানান বা তথ্যগত ভুল আসতেই পারে। বিশেষত আমরা যারা প্রতিদিন অসংখ্য নিউজের চাপে থাকি। দেশের বড় বড় নামিদামি পত্রিকাগুলো প্রায়ই ভুল করে থাকে। এসব ভুলকে তাদের অজ্ঞতা বলার সুযোগ নেই। ভুল গুরুত্বপূর্ণ হয়ে থাকলে পরবর্তীতে পত্রিকা কর্তৃপক্ষ সংশোধনী দেন- এটাই নিয়ম।
যারা সাংবাদিকতার আইন-কানুন আর কাঠামোর একটি শব্দ জানে না তারা কি করে এসব বুঝবে? যারা এসব ভুল ধরে নিজেদের মহাপান্ডিত্য প্রকাশ করছেন তাদের বেশিরভাগ নিউজে অসংখ্য বানান ভুল, তথ্য ভুল আর নিউজের কাঠামোগত ত্রুটি তো পাঠকের কাছেই লক্ষ্যণীয়। নাম ধরলে নিজেকেই ছোট মনে হয় বলে উল্লেখ করলাম না। যারা আমার পত্রিকার এসব ভুল নিয়ে ঘঁষামাজা করেন তারা কারও না কারও কপি নিয়ে নিজেদের সাংবাদিকতা টিকিয়ে রেখেছেন। সবশেষ উদাহারণ গতকালের ‘প্রসন্ন কুমার সাহা একাডেমির সংবাদ সম্মেলন’ এর নিউজ। একমাত্র আমি জেলা প্রশাসক জনাব আনার কলি মাহবুব এর সাক্ষাৎকার নেই ও তা বাংলার কাগজ অনলাইন সংস্করণে প্রকাশ করি। অথচ পরে অনেককে দেখি ডিসি মহোদয়ের সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছেন। যদিও দু-একজনের ক্ষেত্রে আমার অনুমোতি ছিল।
শুধু তাই নয়, নিউজের কাঠামো খেয়াল করলে দেখা যাবে শতকরা নব্বই থেকে পচানব্বই ভাগ হুবুহু বাংলার কাগজ এর সাথে মিল। এর মানে সোজা, এরা বাংলার কাগজ অনুসরণ করে। নিজেদের মাথায় ঘিলু নেই, নেই মুরোদ; অন্যের কপি ধার করে চলে। অথচ এরা ‘বিরাট সমালোচক’। যাক, তবু তাদের ধন্যবাদ যে তারা সবসময় আমার পেছনে পড়ে আমার দোষ-ত্রুটিগুলো ঘাঁটাঘাঁটি করে। হাজার বছর বেঁচে থাক তাদের এ চুলকানি। ‘নিন্দুক ও অধম সমালোচক’ হিসেবে তাদের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করি।

পাশাপাশি সম্মানিত পাঠকদের জ্ঞাতার্থে বলছি, আল্লাহর রহমতে স্থানীয় কোন সংবাদেই কারও কপি করি না, প্রয়োজন হয় না। উল্টো আমার সমালোচক ‘বহু গুণে গুণান্বিত’ ‘বিরাট ও মহাজ্ঞানী’ সাংবাদিকদের সবকটি আমার খবরের অনুসরণ করে। আমি কোথায় কি করছি, কিভাবে করছি তাও। যখনই কোন উদ্যোগ নেটের দুনিয়ায় প্রকাশ করি তখনই একটি পক্ষ অনুসরণ করে তড়িঘড়ি করে তারাও ওসব করায় উঠেপড়ে লেগে যায়। গর্বের সাথে একমাত্র আমিই কারও অনুসরণ করি না। নিজে মত, পথ ও নতুনত্ব প্রতিষ্ঠা করি। আল্লাহর রহমতে হায়াত থাকা পর্যন্ত তাই করে যাব ইনশাআল্লাহ।

মনিরুল ইসলাম মনির
প্রকাশক ও সম্পাদক- বাংলার কাগজ

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!