1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন

নীল নকশার দায়ভার: প্রসঙ্গ পোড়াগাঁও

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ৫ নভেম্বর, ২০২১

– মনিরুল ইসলাম মনির –

চলছে ইউপি নির্বাচনী প্রচারণা। এবারের নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নিলেও নিজ দলের বিদ্রোহী, স্বতন্ত্র ও জনপ্রিয় প্রার্থী সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে নিজেদের তুমুল প্রতিযোগিতা ও ষড়যন্ত্র তথা নীল নকশার কারিগররাও বসে নেই।

দেশের সীমান্তবর্তী জেলা শেরপুরের অন্যতম উপজেলা নালিতাবাড়ী। এ উপজেলার আলোচিত ইউনিয়ন ১নং পোড়াগাঁও। এবারের নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের যে দ্বিধা-বিভক্তি তা রীতিমতো উপজেলাবাসীকে হতাশ করেছে। দলের জন্য প্রচুর অর্থ ও শ্রম বিনিয়োগ করেও মনোনয়ন বঞ্চিত। অন্যদিকে দলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিশৃঙ্খলাকারী ও রাজনৈতিক কার্যক্রম থেকে দূরে থাকারা আশীর্বাদপুষ্ট হওয়ায় যেন অধিকাংশ মানুষই তা মেনে নিতে পারছেন না।

এদিকে একই দলের মধ্যে দলীয় মনোনয়নকে নিয়ে যে নীল নকশা আঁকা হয়েছিল তারও সমাপনি টানা যাচ্ছে না। উপরন্তু নীল নকশা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে তা হীতে-বিপরীত হয়েছে অনেকের। বলাবাহুল্য, দলীয় মনোনয়নকে সামনে রেখে এখানে অনেকেই প্রার্থী হওয়ায় দ্বিধা-বিভক্ত আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপে চলে আসছিল রাজনৈতিক জাল বুননের প্রতিযোগিতা। এ প্রতিযোগিতায় বাহ্যিক দৃষ্টিতে প্রতিপক্ষই বিজয়ী হয়েছে। যদিও শেষ ফলাফলটা মূল স্রোতের থাকার ইঙ্গিত বহন করছে।

কিন্তু নীল নকশা করতে গিয়ে যারা বলি হলেন আর যারা বলি করলেন তাদের কি হবে? একটি পক্ষ দলীয় প্রার্থীর পক্ষে যে কোন মূল্যে কাজ করতে তৎপর। অন্য একটি পক্ষ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা জামাল উদ্দিনকে সমর্থন দিয়ে এগিয়ে নিতে তৎপর। আবার বর্তমান চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় তার পক্ষ সরাসরি নিতে না পারলেও ক্ষমতাসীন দলের অনেকেই তার প্রতি অনুকম্পা ও সমর্থন দেখাচ্ছেন ভিতরে ভিতরে। বিশেষ করে, স্থানীয় পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ সরাসরি তার প্রচারণায় নেমেছেন।

অন্যদিকে বন্দনা চাম্বুগং ও জামাল উদ্দিন এ দুই প্রার্থীই প্রতিপক্ষের বিছানো জাল হওয়ায় শেষ পর্যন্ত শিকারটি কার থলে গিয়ে স্থিতি নেয় তা যথেষ্ট বিবেচ্য। আবার এ দুই প্রার্থীর মধ্যে যে সমঝোতা হয়েছিল বলে জনশ্রুুতি ও বিভিন্ন তথ্যে উঠে আসতে শুরু করেছে তাও বিবেচ্য। বর্তমান চেয়ারম্যান আজাদ মিয়ার ড্যামি (বিকল্প) প্রার্থী হিসেবে দাড় করিয়ে যে নকশা আঁকা হয়েছিল তা নিয়ে এখন ভিতরে ভিতরে চলছে দফারফা। মূলত দলীয় প্রার্থীর সাথে চুক্তি হয়েছিল, তিনি দলীয় মনোনয়ন পেলে তার শেল্টারদাতা সড়ে দাঁড়াবেন। কিন্তু এখন ওই শেল্টারদাতা আরও একটি নকশা এঁকে হাঁটছেন উল্টো পথে। এখন নিজেরাই দুইভাগে বিভক্ত। একজন দলীয় প্রার্থী অন্যজন বিদ্রোহী। যিনি দলীয় প্রার্থী হয়েছেন তিনি রয়েছেন অর্থকড়ি ও নেতাকর্মী শুন্য। যারা তার পেছনে আপাতত দৌড়াচ্ছেন তারাও একটি নকশা বাস্তবায়নে তৎপর। শেষ পর্যন্ত দলীয় বাধ্যবাধকতার কারণে দলের মূল স্রোতের কাউকে ব্যতীত কোন নেতাকর্মী খুঁজে পাওয়া দলীয় প্রার্থীর জন্য দুস্কর বলে মনে হচ্ছে। আর্থিক সংকটের কারণে নির্বাচনী এ সংকট আরও প্রকট আকার ধারণ করছে। ফলে একসময়ের সন্ধিকারী দুই প্রার্থীর মধ্যে শেষ পরিণতি কি হয় তাই দেখার বিষয়। আর যদি সমঝোতাও হয়ে যায় তাও আওয়ামী লীগের জন্য ক্ষতির কারন বৈ লাভজনক হবে বলে মনে হচ্ছে না। এ সুযোগ যে প্রতিপক্ষের কাজে লাগবে না তা হলফ করে বলা যায় না।
আবার যদি আওয়ামী লীগ শেষ পর্যন্ত প্রতিপক্ষের ছুঁড়ে দেওয়া বল নিজেদের অনুকূলে নিয়ে পাল্টা গোল করে বসে সেক্ষেত্রে প্রতিপক্ষের পুরো নাটক ভেস্তে যাবে। কিন্তু এ নাটক ভেস্তে যাওয়ার শঙ্কায় যদি প্রতিপক্ষ নতুন কোন কৌশল বা নকশা তৈরি করে সেক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ পোড়াগাঁওয়ে আগামী দিনগুলোতে অপেক্ষাকৃত মূল স্রোতের নেতৃত্ব দূর্বল হয়ে পড়বে। ফলে এবার পোড়াগাঁওয়ের সমীকরণ বরাবরের মতোই বিচিত্র এবং চ্যালেঞ্জও বটে।

সবশেষে বলব, প্রতিযোগিতা আর সুবিধাবাদীদের ভির দেশের ঐতিহ্যবাহী বড় রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগে যেন ক্ষতির কারণ না হয়ে দাড়ায় তার লাগাম এখনই টেনে ধরা জরুরী। যারা দল ও রাজনীতি জলাঞ্জলি দিয়ে নিজেদের স্বার্থ হাসিল নিয়ে তৎপর তাদের বিষয়ে সতর্কতা এখন সময়ের দাবী। বলার ছিল অনেক, কিন্তু বাধ্যবাধকতায় টাচ করলাম মাত্র।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!