1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৩:২০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ সম্মেলন না টাকা কামিয়ে হেয় করতে ধান্দা?

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০২০

– মনিরুল ইসলাম মনির –
আজকাল বাংলার কাগজ-এ কিছু প্রকাশ হলেই তথাকথিত ‘সংবাদ সম্মেলন’ আহবান করা হচ্ছে। ঘটনা যাই হোক, সংবাদটিকে মিথ্যা বলে প্রচার দিয়ে বাংলার কাগজ এবং এর প্রকাশক ও সম্পাদক তথা আমাকে হেয় করতে বা চাপে ফেলতে মূলত প্রতিপক্ষ ‘সাংঘাতিক’ মানের সাংবাদিকদের ধান্দা এটি। পাশাপাশি পাঁচ’শ হাজার টাকাও পকেটে উঠে। ফলে মন্দ কি?
সচেতন পাঠক মহল একটু নক করলেই দেখবেন, ওই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজক বাংলার কাগজ এর ন্যায়সঙ্গত সংবাদ দ্বারা অন্যায় করার ফলে ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষ হলেও মূলত এর আয়োজক তারা নন। তাদের ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা হয় মাত্র। আর কিছু টাকা পকেট কেটে রাখা হয় তাদের কাছ থেকে। বাংলার কাগজ-এ একটি সংবাদ হলে সংবাদ সম্মেলনের নামে কিছু টাকা আর আমাকে শায়েস্তা করতে ব্যর্থ চেষ্টা অন্তত করা যেতেই পারে। ওইসব সংবাদ সম্মেলনে যারা অভিযোগ করেন শেষ ফলাফলে তাদের ঝুড়ি শুন্য। মাঝখান থেকে কিছু টাকা খোয়ানো আরকি। এক্ষেত্রে তাদের উৎসাহও খুব একটা লক্ষ্য করা যায় না যতোটা আমার প্রতিপক্ষের মাঝে লক্ষ্য করা যায়। যদিও আমি এইসব লোককে প্রতিপক্ষ ভাবি না। কারণ প্রতিপক্ষ হতে গেলেও একটি মাপকাঠি লাগে। একটি পত্রিকায় কারও সুপারিশে বা টাকার বিনিময়ে কার্ড নিয়ে ঠেলেঠুলে উপজেলা প্রতিনিধি হয়ে টিকে থাকাদের প্রতিপক্ষ ভাবাটাও আমার জন্য লজ্জার। যোগ্যতার প্রশ্ন না হয় নাই তোললাম। তবু তারা যেহেতু ভাবে সে কারণে বলা।
বিচক্ষণ পাঠকেরা লক্ষ্য করলে দেখবেন, ওইসব সংবাদ সম্মেলনে না এখানকার সিংহভাগ সংবাদকর্মী উপস্থিত থাকেন, না উল্লেখযোগ্যরা। উদাহারণ স্বরূপ চালের ডিলারশীপ বাতিল হওয়া বন্দনা চাম্বু গং এর সংবাদ সম্মেলনে ৫-৭ জন সংবাদকর্মী উপস্থিত ছিলেন। অর্থাৎ প্রতিপক্ষের কোরামে থাকা সদস্যরাও সকলেই উপস্থিত থাকেন না। আবার দাদন ব্যবসায়ী হাসানুজ্জামান খোকন এর সংবাদ সম্মেলনেও উপস্থিতির সংখ্যা একই।
অথচ নালিতাবাড়ীতে শুধুমাত্র আমি যে কোরাম নিয়ে চলি তাতেই নতুন-পুরনো মিলে সংবাদকর্মীর সংখ্যা অন্তত ১৮ জনের মতো।ফলাফল- বন্দনার ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ শুন্য। শুধু শুধু তাকে ব্যবহার করা হয়েছে। হাসানুজ্জামান খোকনও ব্যর্থ। না বুঝে দু-চারজন তাদের পক্ষে সাফাই গেলেও বেশিরভাগ পাঠক উল্টো আরও দাঁতভাঙ্গা জবাব দিয়ে পঁচিয়েছেন। সেখানে খোকন নিজেই তার দাদন ব্যবসার কথা স্বীকৃতি দিয়েছে। ধার দেওয়া পাওনা টাকার জন্য মোটরসাইকেল নিয়েছে বলে সে স্বীকার করেছে। আবার এও বলেছে যে, মোটরসাইকেল নিয়ে যাওয়ার সময় সে কাউকে বলার সুযোগ পায়নি। অর্থ হলো, প্রকাশ্যে দিবালোকে একটি ব্যস্ততম এলাকা থেকে সে কাউকে না বলে মোটরসাইকেল নিয়ে ভেগে সংজ্ঞা অনুযায়ী প্রকারান্তরে ‘চুরি’ই করেছে। এ বিষয়টিও আত্মস্বীকৃত। এবার আসি চুরি বিদ্যায়। খোকনের ভাষ্য অনুযায়ী সে সহকারী অধ্যাপক আব্দুর রহিমের মোটরসাইকেলটি দেনাদারের ভেবে নিজের চাবী দিয়ে বিনা বাধাতেই স্টার্ট করে নিয়ে চলে গেছে। তার মানে যে কোন মোটরসাইকেল খোকন ইচ্ছা করলেই স্টার্ট করে নিয়ে যেতে পারদর্শী। বলাবাহুল্য, এ বিদ্যায় পারদর্শী না হয়ে কেউ অন্যের মোটরসাইকেল ভিন্ন চাবী দিয়ে স্টার্ট করাতে পারবেন বলে মনে হয় না। এছাড়াও সে সংবাদ সম্মেলনে যার কাছে টাকা পেতো বলে খোকন ভুলে মোটরসাইকেল নিয়েছে বলে দেনাদারের মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন ও চেসিস নাম্বার উল্লেখ করেছে। তবে কেন খোকন এসব নাম্বার না মিলিয়ে তড়িঘড়ি করে মোটরসাইকেল নিয়ে চলে গেল? অবশ্যই উদ্দেশ্য ভালো ছিল না। কাজেই এখানেও সংবাদ সম্মেলনের নামে তার উদ্দেশ্য ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়েছে। মাঝখান থেকে আমার প্রতিপক্ষ কয়েকটা টাকা পেল আর আমার বিরুদ্ধে লিখার সুযোগ পেল আর কি।
খেয়াল করলে দেখবেন, প্রতিপক্ষ আমায় নিয়ে লেখার সময় কিছু শব্দ ব্যবহার করে। চাঁদাবাজ, হিংস্র, ভুয়া সাংবাদিক, নারীলোভী, চরিত্রহীন- ইত্যাদি। খতিয়ে দেখলে দেখা যাবে সবকটি বৈশিষ্ট্য তাদের মাঝেই বিদ্যমান। আর আমার বিরুদ্ধে উচ্চারণ করা ওইসব শব্দের জন্মদাতাও তারাই। নিজেরাই বাদী বানিয়ে মিথ্যা মামলা সাজিয়ে অথবা সংবাদ সম্মেলন করিয়ে আমার বিরুদ্ধে এসব টাইটেল ব্যবহার করে থাকে। যদিও একটিও এখনও পর্যন্ত প্রমাণ করতে পারেনি। মানে হলো প্রতিহিংসা। যেদিন নিজের চেষ্টায় দৈনিক আমার দেশ এর উপজেলা থেকে জেলা প্রতিনিধির দায়িত্ব পালন করেছি, যেদিন দৈনিক সকালের খবর এর জেলা প্রতিনিধি হয়েছি, যেদিন সময়ের আলো এর জেলা প্রতিনিধি হয়েছি, যেদিন চ্যানেল নাইন এর জেলা প্রতিনিধি হয়েছি, যেদিন জেলা প্রেসক্লাব এমনকি বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সদস্য হয়েছি- এসব ক্ষেত্রেই এদের কারও না কারও গাত্রদাহ শুরু হয়েছে। আর বাংলার কাগজ? এ পত্রিকাটির জন্য আমার বিভিন্ন পর্যায়ের ভেরিফিকেশনে মারাত্মক ডিস্টার্ব করেছে। আমাকে শিবিরকর্মী থেকে সন্ত্রাসী পর্যন্ত বানানো হয়েছে। শেষ পর্যন্ত প্রশাসনকেও হুমকী দিয়েছে। ফলাফল শুন্য। বিন্দুমাত্র আমাকে রং লাগাতে পারেনি। যদি সামান্যতম অভিযোগেরও সত্যতা পেতো তবে এ কথা জেনে রাখুন, সরকার কোনভাবেই আমাকে প্রকাশক ও সম্পাদক হওয়ার সুযোগ দিতেন না। সুপারিশ তো পেয়েছি আমার সবকিছু ঠিক থাকার পর। বেঠিক থাকলে কোন সুপারিশ কাজে লাগ তো না। এটা শুধু অনলাইন পত্রিকা নয় যে, পানের দোকানদারও (রূপক অর্থে) সম্পাদক হয়ে যাবে। একটি প্রিন্ট পত্রিকার অনুমোদন আনতে দাঁত লাগে। নালিতাবাড়ীর অনেক হাতি-ঘোড়া এ চেষ্টা করে তলিয়েছে। কাজেই আমাকে হেয় করতে বা ঘায়েল করতেই মূলত এসব অপচেষ্টা। মনে রাখতে হবে, ষড়যন্ত্রের শেকড় সবসময় দূর্বল হয়। আর তাদের শেষ পরিণতি মীর জাফরের মতোই হয়। ইতিহাস সাক্ষী।

লেখক : প্রকাশক ও সম্পাদক- বাংলার কাগজ

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!