1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন

মসজিদের এসি বন্ধ নয়, ব্যাটারি চালিত সব অটোবাইক নিষিদ্ধ করুন

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১৮ জুলাই, ২০২২

– মনিরুল ইসলাম মনির –

জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধির ফলে বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় সরকারের চলমান বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ভাবনার সাথে পুরোপুরি একমত হওয়া গেল না। এটি সরকারের আনাড়ি সিদ্ধান্তের রূপান্তর মাত্র। এর ফলে জনদূর্ভোগ, শিল্প-উৎপাদন ঘাটতি, কর্মঘণ্টা অপচয়সহ সবক’টি দিক অকল্যাণকর। গতকাল প্রকাশিত দৈনিক প্রথম আলো’র একটি প্রতিবেদনের সূত্র ধরে নির্ধিদ্বায় বলা যায়, এ সংকট শুধুই উপর তলাবাসীর যচ্চুরি। দেশে এখনও যে ক্যাপাসিটি রয়েছে, তাতে করে প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ উৎপাদন স্বাভাবিক রাখতে খুব একটা বেগ পেতে হবে বলে মনে হয় না।

তবু ধরে নিলাম, অর্থনৈতিক অবস্থা যেন বেশি সংকটে না পড়ে তার জন্য আমাদের বিদ্যুৎ উৎপাদন বর্তমানে কমিয়ে আনা জরুরী। কিন্তু এমতাবস্থায় বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের ক্ষেত্রে অন্যান্য সিদ্ধান্তের পাশাপাশি শুধুমাত্র মসজিদের (ধর্মীয় উপাসনালয়) এসি-ই কেন লক্ষ্য হলো? সারাদেশে কতগুলো মসজিদে কতগুলো এসি কতক্ষণ ধরে প্রতিদিন চলে? ব্যক্তিগত অফিস, সরকারী অফিস, বিভিন্ন হোটেল-মোটেল, রেস্টুরেন্ট, শপিং মলসহ দেশের কত বড় বড় জায়গায় যে পরিমাণ এসি গরমের মৌসুমে প্রতিদিন চলে, তার ইয়ত্ত্বা নেই। শুধুমাত্র আমার ক্ষেত্রেই যদি হিসেব করি- ব্যক্তিগত অফিস, বাসা এমনকি প্রেসক্লাবে পর্যন্ত এসি চলে। তাহলে টার্গেট কেন শুধু মসজিদ? এ সিদ্ধান্ত অবশ্যই সুদূর প্রসারি পরিকল্পিত এবং কারও ইশারায় উত্থাপিত। শতকরা অন্তত পঁচাশি ভাগ মুসলিমের দেশে মসজিদে এসি বন্ধ করে সব জায়গায় চলার সুযোগ দেওয়াটা কি ইসলামের সাথে বৈরীতা নয়?

আমি বলি, এসব অপরিপক্ক সিদ্ধান্তে না গিয়ে বরং ব্যাটারি চালিত বাইক; বিশেষ করে ইজিবাইক, ব্যাটারি চালিত চার্জার রিকশা ইত্যাদি বন্ধ করে দেওয়া হোক। এদের না আছে বৈধতা না আছে প্রশিক্ষিত চালক। ফলে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। দেশের জেলা ও উপজেলা শহরগুলোতে এখন যানজটের অন্যতম কারণ হচ্ছে এসব ব্যাটারি চালিত চার্জার বাইক। অবৈধ হওয়া সত্বেও প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত চার্জার বাইক দেশকে কলাপস্ করার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। প্রতিদিন রাস্তায় নামছে নতুন নতুন অসংখ্য চার্জার বাইক। প্রয়োজনের অতিরিক্ত হওয়ার ফলে এখন রাস্তায় লক্ষ্য করলে অধিকাংশ বাইকের অধিকাংশ সিটই খালি অবস্থা নিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়। পাশাপাশি এসব বাইক চার্জ করতে প্রচুর পরিমাণে বিদ্যুতের প্রয়োজন হয় প্রতিদিন। এমতাবস্থায় চার্জার বাইক বন্ধ করা হলে যেমনি যানজট ও দুর্ঘটনা হ্রাস পাবে, তেমনি বিদ্যুতের ঘাটতি মেটানোও সম্ভব। কাজেই সরকারের প্রতি আহবান থাকবে, ব্যাটারি চালিত চার্জার বাইক অনতিবিলম্বে বন্ধ ঘোষণা তথা নিষিদ্ধ করা হোক। অন্যথায় বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের নামে আনাড়ি এ সিদ্ধান্তে দেশের উৎপান খাত ভেঙে পড়বে। বাড়বে জনদুর্ভোগ ও জনরোষ। জনপ্রিয়তা কমবে সরকারের।

এমনিতেই বর্তমান মন্ত্রীসভার কয়েকজনের আনাড়ি কথাবার্তা আর আনাড়ি সিদ্ধান্তে দেশের প্রতিটি সেক্টরে বিশৃঙ্খলা বিরাজমান। কোন ডিপার্টমেন্ট-ই বর্তমানে সুশৃঙ্খল নয়। অধিকাংশই সেবার মানসিকতা বর্জন করে যে যার মতো করে চালাচ্ছে, দুর্ভোগ বাড়াচ্ছে, বাড়াচ্ছে জীবন-যাত্রার ব্যয়-ভোগান্তি। দেশের প্রতিটি অঙ্গ এখন রোগাক্রান্ত। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একদিকে কঠোর মনোবল দিয়ে দেশকে উন্নয়নের সোপানে টেনে তুলছেন, বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হচ্ছেন। অন্যদিকে কিছু আনাড়ি-স্বার্থপর আমলা-রাজনীতিবিদের কব্জায় দেশের শৃঙ্খলাও ক্রমেই ক্ষয়িষ্ণু।

তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিনীত নিবেদন, এসব লাগামহীন ব্যক্তিদের লাগাম টেনে ধরুন। আপনার পিতার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে দেশকে এদের থাবা থেকে রক্ষা করুন। বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে ধর্মীয় অনুভূতির কথা বিবেচনায় রেখে মসজিদে এসি বন্ধের পরামর্শ না দিয়ে চার্জার বাইক নিষিদ্ধ করুন এবং তা বাস্তবায়ন করুন।

 

লেখক

প্রকাশক ও সম্পাদক: বাংলার কাগজ
সাধারণ সম্পাদক: প্রেসক্লাব, নালিতাবাড়ী

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!