1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৩:১১ পূর্বাহ্ন

তথাকথিত কর্মসংস্থান নয়, খোঁজতে হবে বিকল্প পেশা-বৃত্তি

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৯ জুলাই, ২০২২

– মনিরুল ইসলাম মনির –

যখন পাহাড় খুঁড়ে পাথর, চিনামাটি ও সাদা সিলিকন বালু উত্তোলনে বিরোধিতা করেছি, তখনও কিছু মানুষ কর্মসংস্থানের প্রশ্ন তুলেছেন। এখন নিশ্চই ওসব বন্ধ হওয়ায় কেউ না খেয়ে মরেনি। আবার এখন অবৈধ বালু উত্তোলন নিয়ে কথা বলি, এখনও বলা হয় কর্মসংস্থান হচ্ছে। কিছুদিন পর বালুর মজুদ শেষ হলে একজনও না খেয়ে থাকবে না।

এক সময় আমাদের গারো পাহাড় থেকে নির্বিচারে গাছ কাটা হতো। ওইসব গাছ আর লাকড়ি বিক্রি করে সংসার চালাতো পাহাড়ি জনগোষ্ঠী। তাড়াই এবং বাঁশেরও ব্যাপক চাহিদা এবং প্রাপ্যতা ছিল আমাদের নালিতাবাড়ীতে। এখন তাড়াই এর বংশ পুরো পাহাড়জুড়ে পাওয়া যাবে না। বাঁশও কমে আসছে। বনের গাছও আগের মতো সহজলভ্য নয়। মন চাইলেই টাকা-পয়সা ছাড়া কেটে বাজারে বিক্রি করে রোজগার করার তো দুঃস্বপ্ন। এসব বন্ধ হওয়ার পরও কিন্তু মানুষের রুটি-রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে যায়নি। সময়ের পরিবর্তনের সাথে মানুষ রুটি-রোজগারের জন্য নতুন নতুন পেশা ও বৃত্তি বেছে নিয়েছে।

কিছুদিন আগেও অসংখ্য চাতালে শত শত নারী শ্রমিকদের পাশাপাশি পুরুষ শ্রমিকদের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতে দেখেছি আমরা। এখন চাতাল প্রায় বন্ধ। তবে কি ওইসব শ্রমিকরা রোজগার করছেন না? পেট পুরে খেতে পারছেন না? অবশ্যই সব ঠিকঠাক চলছে। তারা হয়তো নতুন কোন পেশায় নিজেদের মানিয়ে নিয়েছেন। এমন অসংখ্য উদাহারণ আমাদের সামনে রয়েছে।

যখন প্যাডেল চালিত রিকশা, বাইসাইকেল, ঠেলাগাড়ি, গরুর গাড়ি, ঘোড়ার গাড়ি এসব চলত তখনও কেউ না খেয়ে মরেনি। বরং তখন রাস্তা-ঘাটে দুর্ঘটনা কম ছিল, বিদ্যুতের অপচয় কম ছিল, যানজট ছিলই না। সাধারণত, শেরপুর বা ময়মনসিংহেই যদি লক্ষ্য করি, প্রতিদিন শহরজুড়ে যে যানজট তৈরি হয় তার মূল কারণ অটোবাইক। নালিতাবাড়ীও যানজটে পড়ে গেছে। আর দু-তিন বছর পর নালিতাবাড়ী শহরও যানজটে পুরো আটকে থাকবে। সুতরাং, ভবিষ্যতে ব্যাটারি চালিত অটোবাইক বন্ধ হলেও কেউ না খেয়ে মরবে না।

কর্মসংস্থান কিন্তু তারাও করে, তারাও সংসার চালায়- যারা চোরাকারবারী করে, মাদক কারবারী করে, ছিনতাই-চুরি-ডাকাতি করে। কাজেই অন্যায় সবসময় অন্যায়ই। অবৈধকে বৈধ দাবী করাও অন্যায়।

সুতরাং, কর্মসংস্থানের অজুহাতে অবৈধ এবং ভোগান্তির পদ্ধতিসমূহ নিষিদ্ধ করাই শ্রেয়। আর কর্মসংস্থান বা রোজগারের জন্য পরিবেশ বান্ধব, বৈধ, অপেক্ষাকৃত ঝুঁকিমুক্ত, সর্বোপরি সার্বজনিন কল্যাণকর পেশা তথা বৃৃত্তি বেছে নেওয়া আমাদের কর্তব্য এবং তা জরুরী।

অতএব, আসুন বিকল্প কর্মসংস্থানের পথ খুঁজি, নিরাপদ ও নিশ্চিন্ত-সুন্দর জীবন-যাপন করি।

লেখক
প্রকাশক ও সম্পাদক : বাংলার কাগজ
সাধারণ সম্পাদক: প্রেসক্লাব, নালিতাবাড়ী

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!