1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

বদলে গেছে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সেবার মান

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার: শেরপুরের নকলা উপজেলার প্রায় দুই লাখের বেশি মানুষের চিকিৎসাসেবার একমাত্র কেন্দ্র উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির সার্বিক অবকাঠামোর সৌন্দর্য বৃদ্ধি, নিয়ম-শৃঙ্খলার উন্নতি ও সেবার মানে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। বর্তমান হাসপাতালের সেবা নিয়েও এলাকার মানুষ বেশ সন্তুষ্ট। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি দেখতে বেশ ঝকঝকে, তকতকে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মোহাম্মদ. গোলাম মোস্তফা যোগদান করেন গেল বছরের ২৮ অক্টোবর। সে যোগদানের পর থেকে পরিবর্তন শুরু হয়। ২০১০ সালে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নতি হয়েছে হাসপাতালটি। হয়েছে নতুন ভবন। জনবল একই রয়ে গেছে। ৩১ শয্যার জনবল দিয়ে ৫০ শয্যা হাসপাতাল চালাতে হচ্ছে হাসপাতাল। তবু পাল্টে গেছে আগের চেয়ে অনেক বেশি সেবার মান। গত এক বছরে হাসপাতালের প্রতিটি ক্ষেত্রেই এসেছে আমুল পরিবর্তন।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, ৫০ শয্যার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৬ জন চিকিৎসক ও ২৫ জন সেবিকা নিয়ে রোগীদের নিয়মিত সেবা দিচ্ছে। উপজেলার পুরাতন ৯ ইউনিয়নে ২৪টি কমিউনিটি ক্লিনিক এবং ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ৮টি ও উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র ১টি। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির্বিভাগে উপজেলার দূরদূরান্ত থেকে প্রতিদিন প্রায় কমবেশি ১৫০ জন রোগী সেবা নিতে আসে। প্রতিদিন জরুরি বিভাগে প্রায় ১শ থেকে ১শ ৫০জন জন রোগী সেবা নিচ্ছে। প্রতিমাসে কমবেশি ৭০ থেকে ৮০ জন গর্ভবতী মায়ের নরমাল ডেলিভারি করা হয়। রোগীদের কোনো প্রকার হয়রানি শিকার হতে হয় না। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি’র সুপারিশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে দিয়েছেন নতুন একটি আধুনিক এ্যাম্বেুলেন্স। দু’তলা ও তিন তলায় সংযোজন হয়েছে আইপিএস। নার্সিং ষ্টেশনে পর্দা লাগানোসহ তাদের নিরাপত্তার জন্য তাদের কক্ষসহ পুরো হাসপাতালে লাগানো হয়েছে সিসি ক্যামেরা। যক্ষা রোগিদের রোগ নির্ণয়ের জন্য উন্নতমানের জিন এক্সপার্ট মেশিন বসানো হয়েছে যার মাধ্যমে নির্ভূলভাবে কফ পরিক্ষা করা হয়। প্রধান ফটকের কাছে থাকা ডাস্টবিন অন্যত্র সরিয়ে লাগানো হয়েছে শোভা বর্ধন বৃক্ষ। রোগীদের জন্য করা হয়েছে বিশুদ্ধ পানি ও বসার স্থানে ফ্যানের ব্যবস্থা। সম্পূর্ণ হাসপাতালে সাউন্ড সিস্টেম এর আওতায় আনা হয়েছে। যার মাধ্যমে কোন রুমে কি ধরনের সেবা প্রদানসহ প্রতিদিন স্বাস্থ্য বিষয়ক বার্তা প্রদান করা হয়। মিনিস্ট্রায়াল হাইজিন ম্যানেজমেন্ট কর্ণার চালু, কৈশোর বান্ধব সেবা কেন্দ্র চালু, হসপিটাল বর্জ্য ম্যানেজমেন্ট এর জন্য উন্নতমানের ইন্সিনেটর তৈরি করা হইছে এবং বিভিন্ন ধরনের বর্জ্য রাখার জন্য বিভিন্ন কালারের ডাস্টবিন তৈরি করা হয়েছে। নতুন সংযোজ হয়েছে ৩০০ এমএ নতুন এক্স-রে মেশিন।

সরজমিনে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে রোগীরা এসে বহির্বিভাগে ৫ টাকা দিয়ে টিকিট কেটে চিকিৎসকদের কাছে সেবা নিচ্ছে। চিকিৎসরা রোগীদের সামনা-সামনি নিয়ে বেশ গুরুত্বের সহিত সেবা দিচ্ছে। করোনা কালীল সময়ে করোনার নমুনা সংগ্রহ ও পরিক্ষার পাশাপাশি প্রতিদিন (সরকারি বন্ধের দিন ব্যতিত) সকাল ৯-১১ টা পর্যন্ত প্যাথলজির পরিক্ষা চালু আছে এবং গত এক বছরে ২২৩ জন রোগীকে ব্লাড ট্রান্সফিউসন করা হয়েছে বলে জানাগেছে। অদ্যাবধি ৬৩ হাজার ৪শ ৪ জন পুরুষ ও মহিলাকে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ গোলাম মোস্তাফা বলেন, সেবা গ্রহণকারী ও সেবা প্রদানকারী সকলের স্বদিচ্ছা ও সম্মিলিত প্রচেষ্টাতেই সেবার মান পরিবর্তন এসেছে। এই ধারা অব্যাহত রাখতে সকলের সহযোগিতা ও পরামর্শ প্রয়োজন। আমি গত এক বছরে চেষ্ঠা করেছি সকলের সহযোগিতা নিয়ে হাসপাতালের সেবার মান ও পরিবেশ ভাল রাখতে। তবে প্রয়োজনীয় চিকিৎসক থাকলে আরো বেশি সেবা পেত উপজেলাবাসী।

তিনি আরো বলেন, শেরপুর জেলার সুযোগ্য সিভিল সার্জন জনাব ডাঃ এ কে এম আনোয়ারুল রউফ স্যারের পরামর্শ ও নির্দেশ ক্রমে হাসপাতালের উন্নয়ন ও সেবার মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিয়েছিলেন, তার মধ্যে কিছু কার্যক্রম সফল ভাবে সম্পন্ন হয়েছে, আর কিছু কার্যক্রম উনি হাতে নিয়েছেন তা বাস্তবায়ন করার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন। স্যারের ইচ্ছে আছে বিশেষজ্ঞ সার্জন নিয়োগ পেলে বন্ধ থাকা অপারেশন থিয়েটার দ্রুত চালু করবেন।

 

 

 

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!